শিরোনাম :

  • রাজধানীর উত্তরখানে আগুনে একই পরিবারের ৮ জন দগ্ধ ভারতে আঘাত হেনেছে ঘূর্ণিঝড় তিতলিবাবরসহ ১৯ জনের মৃত্যুদণ্ড, তারেকসহ ১৯ জনের যাবজ্জীবনরায়কে ঘিরে ঢাকায় ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায় আজ
ভোলায় ১০টাকা কেজি চাল বিতরণে ব্যাপক অনিয়ম
ভোলা প্রতিনিধি :
২১ মার্চ, ২০১৯ ১৩:৫৬:৫৬
প্রিন্টঅ-অ+

ভোলার দৌলতখানে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির আওতায় ১০ টাকা মূল্যের চাল ৩০ কেজির স্থলে ২৫-২৬ কেজি ও মূল্য ৩’শ টাকার স্থলে সাড়ে ৩শত টাকা নেওয়ার অভিযোগ উঠছে।উপজলোর র্দূগম চর মদনপুর ইউনিয়নের খাদ্যবান্ধব র্কমসূচি চালের ডিলার মাহবুব আলম ভুট্টুর বিরুদ্ধে এসকল অভিযোগ উঠে। ফলে এলাকার হতদরদ্রি সুবিধাভোগী মানুষ ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের মাঝে চরম ক্ষোভরে সৃষ্টি হয়ছে।


জানা যায়, গত সোমবার উপজলোর মদনপুর ইউনয়িন পরিষদে খাদ্যবান্ধব র্কমসূচির আওতায় হতদরিদ্রদের মাঝে ১০ টাকা দরে ৩০ কেজি করে চাল বিক্রয় করা হয়। এ র্কমসূচির সুবিধাভোগীদের জনপ্রতি ৩শত টাকা নিয়ে ৩০ কেজি করে চাল দেওয়ার কথা থাকলওে সরকারি সেলাইকরা বস্তা থেকে এক পাশ দিয়ে কেটে বস্তা প্রতি ৪-৫ কজেি করে চাল রখেে ২৫-২৬ কজেি করে চাল দেওয়ার অভিযোগ উঠে ওই ডিলারের বিরুদ্ধে এবং চাল নিতে আসা সুবিধাভোগীদের পুরো ৩০ কেজি করে চাল দাবি বলে ৩শত টাকার স্থলে সাড়ে ৩শত করে টাকা নয়ে ওই ডিলার।


বিতরণ স্থলে ট্যাগ অফিসার ও চাল মাপার কোনো মিটার না থাকায় সুবিধাভোগী বস্তা হিসেবেই চাল বাড়িতে নিয়ে যায়। পরে বাড়িতে নিয়ে চাল মেপে বস্তায় ২৫-২৬ কেজি করে চাল পাওয়া যায় বলে অভিযোগ করেন তারা। এছাড়া যে সকল সুবিধাভোগীদরে কার্ড হারিয়ে গেছে তাদের কাছ থেকে চাল দেয়ার কথা বলে পাঁচ শত টাকা করে দাবি করেন। এলাকার লোকদরে কোনো দিন তারিখ না বলেই ডিলার নিজের মনগড়াভাবে হঠাৎ করে এসে চাল দেয়া শুরু করে দেয়। এতে অনেক র্কাডধারী লোক চাল নিতে পারনেনি বলে অভিযোগ করেন। এর আগে গত বছর এই ডিলারের বিরুদ্ধে ১০ টাকা কেজি ধরে চাল চাল সুবিধাভোগীদের না দিয়ে অনত্র বেশী দরে বিক্রি করার অভিযোগ রয়েছে।


মদনপুর ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মো. আলাউদ্দিন জানান, তার ওয়ার্ডে ১০ টাকা কেজি দরে চালের ৩০ জন সুবিধাভোগী রয়েছে। প্রত্যেকের কাছ থেকে ৩০ কেজি চাল দেয়ার কথা বলে ডিলার মাহবুব আলম ভুট্টু সাড়ে ৩শত করে টাকা নিয়েছে। এমনকি সে বস্তা প্রতি ৪ থেকে ৫ কেজি করে চাল মাপে কম দিয়েছে। সে এলাকাবাসী ও কোনো জনপ্রতিনিধিদের তোয়াক্কা না করে গরীব লোকদের ঠকিয়ে যাচ্ছে।


ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের মো. হারুন, শাহজান মাঝিসহ একাধিক সুবিদাভোগী জানান, চালের ডিলার তাদের কাছ থেকে ৩০ কেজি চাল দেয়ার কথা বলে ৩০০ টাকার স্থলে সাড়ে ৩শত টাকা করে নিয়েছে। তার পরও সে ওজনে


৩০ কেজির স্থলে কাউকে ২৫ কেজি আবার কাউকে ২৬ কেজি করে দিয়েছে।


সুবিধাভোগী মো. হোসেন ও ফারুক জানান, ডিলার মাহবুব আলম ভুট্টু গত বছর ৩শত টাকা করে নিয়ে ২১-২২ কেজি করে চাল দিয়েছে। এবছর পুরো ৩০ কেজি করে দেয়ার কথা বলে সাড়ে ৩শত করে টাকা নিয়েছে। কিন্তু তারপরও সে বস্তা দিয়েছে সেগুলোর এক কোনা দিয়ে সেলাই কাটা। এবং প্রতি বস্তায় ৪ থেকে ৫ কেজি করে চাল কম রয়েছে।


একই এলাকার মো. কামাল হোসেন জানান, তার কার্ডটি নষ্ট হয়ে যাওয়ায় সেটি ঠিক করার কথা বলে তার কাছ থেকে দুই শত টাকা দাবি করে। এবং কার্ড ছাড়া চাল নিতে হলে তাকে পাঁচ শত টাকা দিতে হবে বলে জানায় ডিলার ভুট্টু।


এব্যাপারে অভিযুক্ত ডিলার মাহবুবব আলম ভুট্টু টাকা বেশী নেয়ার কথা স্বিকার করে বলেন, চরে চাল নিতে বেশী খরচ হওয়ায় বিধায় প্রতি নামে ৫০ টাকা করে বেশী নেয়া হয়েছে। তবে ওজনে কাউকে কম দেয়া হয়নি। যদিও কম হয়ে থাকে সেটা গুদামের লোকজন যানে। আমি গুদাম থেকে বস্তা হিসেবে আনি এবং বস্তা হিসেবে বিলি করি।


মদনপুর ইউপি চেয়ারম্যান নাছির উদ্দিন নান্নু ডিলারের পক্ষে সাফাই গেয়ে বলেন, দৌলখান গোডাউন থেকে মদনপুর চরে এক টন চাল আনতে খরচ হয় দুই হাজার টাকা অথচ অন্য যায়গায় নিতে খরচ হয় এক থেকে দেড় শত টাকা। এ জন্য পরিবহন খরচ বেশী বিধায় ডিলার অতিরিক্ত ৫০ টাকা বেশী নেয়। আর ওজনে কম দেয়ার প্রশ্নই আসে না। যেহেতু গোডাউন থেকে ৩০ কেজির বস্তা দেয়া হয়। আর ওই অবস্থাই সেগুলো বিতরণ করা হয়। যদি কম থেকে থাকে তাহলে লেবাররা উঠা-নামা করাতে গিয়ে বস্তা ছিদ্র হয়ে চাল পরে যাওয়ায় মাপে কম হতে পারে।


বর্তমানে আইন অনুযায়ী কোনো কাজই হয় না উল্লেখ করে চেয়ারম্যান বলেন, আপনারা যদি এগুলো নিয়ে লেখালেখি করেন এতে করে উল্টো আইনের মারপ্যাচে ডিলার চাউল আনবে না। আর এ জন্য চরের মানুষই বঞ্চিত হবে।


দৌলতখান খাদ্যগুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শান্তি রঞ্জন দাস বলেন, সরকারি ৩০ কেজি বস্তা ওজনে এর চেয়ে বেশী হবে। কখনও হওয়ার সম্ভাবনা নেই। আর আমরা এখান থেকে সেলাই করা বস্তা ডিলারদের কাছে হস্তান্তর করি। কোনো বস্তা লুজ মনে হলে তা পরিবর্তন করে দেই। সুতরাং ৪ থেকে ৫ কেজি করে কম হলে সেটা ডিলার রেখে দেয়।


এ ব্যাপারে দৌলতখান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জিতেন্দ্রনাথ মজুমদার বলেন, চাল বিক্রি করে অতিরিক্ত টাকার নেয়ার কোনা বিধান নেই। বিষয়টি নিয়ে আমার কাছে কেউ অভিযোগ করেনি। বিষয়টি তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।


 


আমার বার্তা/২১ মার্চ ২০১৯/রিফাত

আরো পড়ুন