শিরোনাম :

  • রাজধানীর উত্তরখানে আগুনে একই পরিবারের ৮ জন দগ্ধ ভারতে আঘাত হেনেছে ঘূর্ণিঝড় তিতলিবাবরসহ ১৯ জনের মৃত্যুদণ্ড, তারেকসহ ১৯ জনের যাবজ্জীবনরায়কে ঘিরে ঢাকায় ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায় আজ
পটুয়াখালীতে উপকূল সুরক্ষায় বাজেট বৃদ্ধির দাবিতে মানববন্ধন
পটুয়াখালী প্রতিনিধি :
১০ জুন, ২০১৯ ১৮:২০:০৫
প্রিন্টঅ-অ+


আসন্ন জাতীয় বাজেটে চরাঞ্চলে জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলা ও দুর্যোগের ঝুঁকি হ্রাসের জন্য টেকসই উন্নয়ন প্রকল্প গ্রহণসহ উপকূলীয় অঞ্চলের উন্নয়নে সর্বোচ্চ বাজেট বরাদ্দের দাবিতে মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়েছে।

সোমবার পটুয়াখালী সার্কিট হাউজের সামনে ঘণ্টাব্যাপী মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। এর আগে একই দাবিতে গণস্বাক্ষর গ্রহণ করা হয়।

মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা কোস্ট ট্রাস্টের টিম লিডার নাজমুস সাকিব, জেলা জলবায়ু ফোরামের সাধারণ সম্পাদক রাহিমা মিনি, সদর উপজেলা জলবায়ু ফোরামের সভাপতি সুলতান আহম্মদ, ইয়ুথ ফোরামের সভাপতি মো. জহিরুল ইসলাম, জলবায়ু ইয়ুথ ফোরামের সাধারণ সম্পাদক তাসনিম বিনতে মনির, সুশীল সমাজের প্রতিনিধি জাহাঙ্গীর হোসেন মানিক প্রমুখ।

বক্তরা বলেন, জাতীয় উন্নয়ন পরিকল্পনা প্রণয়নের ক্ষেত্রে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন দেশের বিস্তীর্ণ চরাঞ্চল এখনও সবচেয়ে অবহেলিত এক জনপদ হিসেবে চিহ্নিত। খাদ্য নিরাপত্তা, কৃষি উন্নয়ন, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, বাসস্থান, ক্ষমতায়ন- সবদিক দিয়েই দুর্গম চরের মানুষ এক নাজুক অবস্থায় পতিত। সুপেয় পানির অভাব এখন চরাঞ্চলে প্রায় সারাবছর ধরেই। শুধু তাই নয়, দেশের ভেতরে থেকেও বাংলাদেশের সমগ্র চরাঞ্চলে একটি ভিন্ন এবং দূরবর্তী সামাজিক অবস্থা বিরাজ করছে। ফলে চরাঞ্চলে নানা সামাজিক অসঙ্গতি, কুসংস্কারের প্রাবল্যও বেশি।

তারা বলেন, দ্বীপচরসহ দেশের সমগ্র চরাঞ্চলের উন্নয়নে আলাদা কর্মসূচি প্রণয়ন এখন সময়ের দাবি। কেননা দারিদ্র্যপ্রবণ অঞ্চল হিসেবে চরের মানুষকে উন্নয়নের মূল স্রোতধারায় এনে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করতে চাইলে চরাঞ্চলের মানুষের জন্য বরাদ্দ বৃদ্ধি করতে হবে। চরের অতিদরিদ্র মানুষকে অবশ্যই উন্নয়নের মূলধারায় আনতে হবে।

বক্তরা আরও বলেন, জাতীয় বাজেটে চরের মানুষের উন্নয়নে বিশেষ বরাদ্দ এখন সময়ের দাবি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী চরের মানুষের উন্নয়নে সঠিক পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন বলে প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন তারা।



আমার বার্তা/১০ জুন ২০১৯/জহির


আরো পড়ুন