শিরোনাম :

  • জনসনকে প্রধানমন্ত্রীর অভিনন্দন আত্মত্যাগ কখনো বৃথা যায় না : প্রধানমন্ত্রী আবারও উত্তরপ্রদেশে ধর্ষণের পর পুড়িয়ে হত্যার চেষ্টা বিক্ষোভ এতটা ছড়াবে ভাবেননি অমিত শাহ!
ডাস্টবিন ময়লার ভাগাড়ে পরিণত হয়েছে
যশোর প্রতিনিধি :
০৫ অক্টোবর, ২০১৯ ১৬:২৮:২৮
প্রিন্টঅ-অ+


যশোর জিলা স্কুলের সামনে রাস্তার ওপর অবস্থিত ডাস্টবিন ময়লার ভাগাড়ে পরিণত হয়েছে। দুর্গন্ধে অভিভাবক ও শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের কাছে দুর্বিসহ হয়ে উঠেছে। ডাস্টবিনটি স্বাস্থ্য ঝুঁকিরও কারণ।

এই ডাস্টবিনের পাশে বসে ভ্রাম্যমাণ খাবারের দোকান। যার ক্রেতা স্কুলের শিক্ষার্থীরা। ওই দোকানের খাবারের ওপর ডাস্টবিন থেকে আসা মাছি বসছে। ভুক্তভোগীরা এখান থেকে ডাস্টবিন সরানোর দাবি করেছেন।

যশোর জিলা স্কুলের ২ নম্বর গেটের (উত্তর গেট) সামনে রাস্তার পাশে ডাস্টবিন অবস্থিত। সার্কিট হাউসপাড়া, ষষ্টিতলাপাড়া ও জিলা স্কুলের আশপাশের এলাকার বাসিন্দাদের ময়লা-আর্বজনা এখানে ফেলা হয়। এসব ময়লা-আবর্জনা পচে দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে। স্কুলের মধ্যে মশা-মাছির উপদ্রব বাড়ছে। দুর্গন্ধে স্কুলে প্রবেশ করতে হলে নাকে কাপড় দিয়ে যেতে হচ্ছে।

ভুক্তভোগী অভিভাবক রেখা মজুমদার বলেন, তার বাসা রেলগেট তেঁতুলতলায়। তার ছেলে তৃতীয় শ্রেণির ছাত্র। প্রতিদিন সকালে ছেলেকে স্কুলে দিয়ে তিনি বাইরে অপেক্ষায় থাকেন। গেটের সামনে ডাস্টবিন থাকায় এখানে তিনি আর বসতে পারছেন না। নাকে কাপড় দিয়ে ছাড়া স্কুলে ঢোকা যায় না।

প্রধান শিক্ষক এ কে এম গোলাম আযম বলেন, তিনি জিলা স্কুলে যোগ দেয়ার পর মেয়রকে ডাস্টবিনটি সরানোর অনুরোধ করেছেন। তিন বার বার লিখিতভাবে, ১০ বার মৌখিকভাবে ও জেলা প্রশাসককে দিয়েও বলিয়েছেন। ছাত্ররা এই দাবিতে মানববন্ধন করেছে। তারপরও মেয়র ব্যবস্থা নেননি। তিন মাসের কথা বলে তিন বছর কাটিয়ে দিচ্ছেন।

পৌর সচিব আজমল হায়দার খান বলেন, ‘‘ডাস্টবিন সরানোর সুযোগ নেই। ডাস্টবিন ওখানেই থাকবে।’’

জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ শফিউল আরিফ বলেন, ডাস্টবিনের বিষয়ে মেয়রের সঙ্গে কথা বলে দ্রুত সরানোর ব্যবস্থা করা হবে।





আমার বার্তা/০৫ অক্টোবর ২০১৯/রহিমা


আরো পড়ুন