শিরোনাম :

  • রাজধানীর উত্তরখানে আগুনে একই পরিবারের ৮ জন দগ্ধ ভারতে আঘাত হেনেছে ঘূর্ণিঝড় তিতলিবাবরসহ ১৯ জনের মৃত্যুদণ্ড, তারেকসহ ১৯ জনের যাবজ্জীবনরায়কে ঘিরে ঢাকায় ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায় আজ
লোকসভার ভোট বলে দেবে পাকিস্তানের আকাশপথের ভবিষ্যত
আন্তর্জাতিক ডেস্ক :
১৬ মে, ২০১৯ ১২:১৮:৫৩
প্রিন্টঅ-অ+


ভারতকে আকাশপথ ব্যবহার না করতে দেয়ার সিদ্ধান্তে অনড় পাকিস্তান। আগামী ৩০ মে পর্যন্ত ভারতের বিমানগুলোর ওপর এই নিষেধাজ্ঞা জারি থাকবে। তবে তারপরেও এই নিষেধাজ্ঞা বহাল থাকবে, না উঠে যাবে তার কোনো আভাস পাওয়া যায়নি। ভারতের লোকসভা ভোটের ফলাফলের ওপর অনেকটা নির্ভর করছে এই সিদ্ধান্তের ভবিষ্যত।

পাকিস্তান প্রশাসন সূত্রে এসব জানা গেছে। ২৬ ফেব্রুয়ারি বালাকোটে জইশ-ই-মহম্মদের ক্যাম্পে ভারতীয় বায়ুসেনার এয়ারস্ট্রাইক করে। তারপরেই পাকিস্তান তাদের আকাশপথ ভারতের বিমানের জন্য পুরোপুরি বন্ধ করে দেয়। তবে ২৭ মার্চ সেই নিষেধাজ্ঞা সাময়িক শিথিল করে পাক সরকার। শুধুমাত্র নয়াদিল্লি, ব্যাংকক ও কুয়ালালামপুর ছাড়া সব বিমান ওড়ার অনুমতি দেয়া হয়।

বুধবার পাক প্রতিরক্ষা ও অসামরিক বিমান পরিবহন মন্ত্রীর আধিকারীকরা উচ্চপর্যায়ের বৈঠকের ডাক দেন। সেখানে পাক আকাশপথ ভারতের বিমানের জন্য ব্যবহারের বিষয়টি আলোচনা করা হয়। সেখানে এই নিষেধাজ্ঞার পরিধি ৩০ মে পর্যন্ত বাড়ানো হয়। বৈঠক শেষে শীর্ষ আধিকারিক এই কথা জানান।

বালাকোট এয়ারস্ট্রাইকের পর ভারতের ওপর কূটনৈতিক চাপ বজায় রাখতে এই সিদ্ধান্ত নেয় পাক সরকার। আগে পাকিস্তানের আকাশ ছুঁয়ে কুয়ালালামপুরে চারটি বিমান যেত। ব্যাংকক ও নয়াদিল্লিতে আসত দুটি করে বিমান। এখন পাকিস্তান তাদের আকাশপথ ব্যবহার করতে না দেয়ায় এই রুটগুলোতে লাখ লাখ টাকা ক্ষতি হচ্ছে।

তার ওপর যাত্রী হারাতে হচ্ছে। মধ্যপ্রাচ্য থেকে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়াতে যাওয়ার জন্য গুরুত্বপূর্ণ পাকিস্তানের আকাশপথ। তাই সেই আকাশপথ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় চরম ক্ষতির মুখে পড়তে হচ্ছে এয়ারলাইন্সগুলো

গত ২৬ ফেব্রুয়ারি বালাকোটে জঙ্গি ঘাঁটিতে ভারতীয় বিমান বাহিনীর অভিযানের পর নিজেদের আকাশপথ সম্পূর্ণ বন্ধ করে দিয়েছিল পাকিস্তান। গত ২৭ মার্চ থেকে পাকিস্তানের আকাশ পথে অন্যান্য দেশের বিমান চলাচল শুরু হলেও সে সময় নয়াদিল্লি, ব্যাংকক এবং কুয়ালালামপুরগামী বিমানের জন্য ছাড়পত্র দেওয়া হয়নি।



আমার বার্তা/১৬ মে ২০১৯/জহির


আরো পড়ুন