শিরোনাম :

  • অরুণ জেটলি বিরল এক ক্যানসারে ভুগছিলেন কোথায় গিয়ে থামবে আজ নিউজিল্যান্ড! শিশু সায়মা হত্যা : তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল ১৬ সেপ্টেম্বরওএসডি হচ্ছেন জামালপুরের সেই ডিসি দ্বিতীয় ম্যাচেই হোঁচট খেলো রিয়াল মাদ্রিদ
অ্যাম্বুলেন্স দেয়নি হাসপাতাল, মায়ের কোলেই শিশুর মৃত্যু
আন্তর্জাতিক ডেস্ক :
২৮ মে, ২০১৯ ১২:২৩:৪১
প্রিন্টঅ-অ+


প্রচণ্ড জ্বরে গা পুড়ে যাচ্ছিল ছোট্ট শিশুর। সেজন্য তাকে হাসপাতালে নিয়ে গিয়েছিলেন বাবা-মা। কিন্তু সেখানে ছেলের সুস্থ হয়ে ওঠা তো দূরের কথা। বরং বাবা-মাকে ফিরে আসতে হল ছেলের মৃতদেহ কোলে নিয়ে। এমন মর্মান্তিক ঘটনা ঘটেছে ভারতের উত্তরপ্রদেশের শাহজাহানপুরে।

সংবাদ সংস্থা এএনআইকে মৃত শিশু আফরোজের বাবা জানান, ছেলেকে দেখার পরেই হাসপাতালের চিকিৎসকরা লক্ষ্ণৌতে নিয়ে যেতে বলেন। আমরা তাদের একটি অ্যাম্বুলেন্স ব্যবস্থা করে দিতে বলি। কিন্তু তারা কোন অ্যাম্বুলেন্স দিতে রাজি হয়নি।

অথচ সে সময় হাসপাতালের বাইরে তিনটি অ্যাম্বুলেন্স দাঁড়িয়ে ছিল। তারপরেও একটা অ্যাম্বুলেন্স তাদের ব্যবস্থা করে দেয়া হয়নি। শিশুটির বাবা-মায়ের কাছেও সে সময় পর্যাপ্ত টাকা ছিল না যে, তারা বাইরের কোন গাড়ি ভাড়া করবেন।

আফরোজের মা বলেন, আমার ছেলের খুব জ্বর ছিল। আমরা বাড়িতে ওকে সামান্য ওষুধ দিয়েছিলাম। কিন্তু অবস্থা খারাপের দিকে যাওয়ায় এখানকার জেলা হাসপাতালে নিয়ে আসি। ছেলেকে এখানে ভর্তি করেছিলাম। কিন্তু ডাক্তাররা ওকে অন্য কোথাও নিয়ে যেতে বলে। তারা আমাদের কোন ধরনের সুযোগ সুবিধাও দেয়নি।

মৃত সন্তানকে কোলে নিয়ে কাঁদতে কাঁদতেই তিনি বলেন, আমরা অ্যাম্বুলেন্সের চালক আর হাসপাতালের কর্মীদেরও অনেক অনুরোধ করেছিলাম যে আমাদের কাছে বেশি টাকা নেই। যা আছে সেগুলো নিয়ে যেন আমার ছেলেকে অন্য হাসপাতালে নিয়ে যায়। কিন্তু তারাও আমাদের কথা শোনেনি। এখানে সে সময় তিনটা অ্যাম্বুলেন্স ছিল।

গাড়ির ব্যবস্থা করতে না পেরে ছেলেকে নিয়ে পায়ে হেঁটেই যাচ্ছিলেন তারা। মাঝপথে মায়ের কোলেই মৃত্যু হয় ছোট্ট শিশুটির। এ বিষয়ে জেলা হাসপাতালের ট্রমা সেন্টার অ্যান্ড ইমার্জেন্সি বিভাগের এক কর্মকর্তা বলেন, শিশুটির শারীরিক অবস্থা বেশি খারাপ হওয়ায় আমরা তাকে লক্ষ্ণৌ নিয়ে যেতে বলি। কিন্তু তার বাবা-মা আমাদের বলেন, তারা তাদের ছেলেকে অন্য কোথাও নিয়ে যাবেন। এরপর তারা বেরিয়ে যান। তারা আর ফিরে আসেননি।



আমার বার্তা/২৮ মে ২০১৯/জহির


আরো পড়ুন