শিরোনাম :

  • নয়াপল্টনে বিএনপির নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ জবানবন্দিতে বুলুসহ ১৫ বিএনপি নেতার নাম পেয়েছে পুলিশ সেনা অভ্যুত্থানবিরোধী বিক্ষোভে উত্তাল সুদান, সংঘর্ষে নিহত ৭দুই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষ, নিহত ২
আমিনুল ইসলাম কাসেমী
শীতে তাহাজ্জুদ
১১ নভেম্বর, ২০২১ ২১:০৫:০০
প্রিন্টঅ-অ+

শীত এসেছে। এখন মৃদু ঠাণ্ডা। তবে কোথাও ঠাণ্ডা একটু বেশী। একটানা পাঁচমাস কম-বেশি শীত থাকবে। এসময়ে রাতটা একটু লম্বা। অন্য সময়ের থেকে এখন রাতটা অনেক দীর্ঘ। স্বাভাবিক অবস্থা থেকে প্রায় তিন থেকে সাড়ে তিন ঘন্টা রাত বেশি।  শীতে পরিবেশটা অনেক সুন্দর থাকে। শান্ত-নিরব-নিস্তব্ধ। গরমকালে মানুষ যেমন গরমে অতিষ্ট হয়ে হাঁসফাঁস করতে থাকে। শীতে সেটা নেই। নির্মল স্নিগ্ধ হাওয়ায় মনটা জুড়িয়ে যায়।  মানুষ অনেক শান্তিতে কাটাতে পারে। শীতের এই দীর্ঘ রাতে ইবাদতের সুবর্ণ সুযোগ। এখন এশার নামাজ হয় ৭.৩০ মিনিটে। আর ফজর হয় পাঁচটার দিকে। লম্বা রাত। খুব তাড়াতাড়ি রাতের আহার সেরে ঘুমানো যায়। শেষ রাতে প্রায় সকলেরই খুব সহজে ঘুম ভাঙে। তখন উঠে তাহাজ্জুদের নামাজ আদায় করা যায়। অন্যান্য ইবাদতে মশগুল থাকা খুব সহজ। এজন্য সকল মুমিন-মুসলমানরা শীতের রাতকে গণীমত মনে করতে পারেন। এই সময়ে তাহাজ্জুদের অভ্যাস গড়ে তোলা যায়। যাদের নিয়মিত তাহাজ্জুদের অভ্যাস নেই, তারাও এই মৌসুমকে কাজে লাগাতে পারেন।


শেষ রাতের ইবাদত অনেক মূল্যবান। আল্লাহর কাছে নিজের চাওয়া-পাওয়ার উপযুক্ত সময়। মানুষ কত ধরনের সমস্যায় জড়িত। বিভিন্ন অসুবিধায় জর্জরিত। তাদের জন্য রাস্তা খোলা। মহান আল্লাহর কাছে সাহায্য চাইতে পারেন। তাঁর কাছে ক্ষমা চাওয়ার সময়। পবিত্র কুরআনে রাতের কিয়দংশে তাহাজ্জুদ নামাজের কথা বলা হয়েছে। যদিও সেটা নফল। তারপরেও বহু ফজিলত রয়েছে। মহান আল্লাহর নৈকট্য লাভের এক সুবর্ণ সুযোগ। গভীর রাতে মহান আল্লাহর সাথে প্রেমালাপের যেন মোক্ষম সময়। গভীর রাতে আল্লাহ তায়ালা বান্দার অনেক নিকবর্তী হন। বান্দাকে আহবান করতে থাকেন। যেটা হাদিসের মাধ্যমে বোঝা যায়। আল্লাহ তায়ালা বান্দাকে ডেকে ডেকে বলতে থাকেন, আছো কেউ ক্ষমা প্রার্থনাকারী! আমি তাকে ক্ষমা করে দেব। আছো কেউ রিজিক অন্নেষণকারী! আমি তাকে রিজিক দান করব। এভাবে ডেকে ডেকে বলতে থাকেন।


যত বড় ব্যক্তিত্ব এই দুনিয়াতে আগমণ করেছেন। যত ওলী-দরবেশ, আল্লাহর পেয়ারা বান্দারা গোজরান হয়েছেন, সকলেই শেষ রাতের ইবাদতে মশগুল থেকেছেন। মহান আল্লাহর থেকে সাহায্য নিয়ে সামনে অগ্রসর হয়েছেন।  নির্জনে-নিভৃতে ইবাদতের মাধ্যমে তারা আল্লাহর নৈকট্য লাভে সক্ষম হয়ে ছিলেন। এজন্য আসুন, এই শীতের রজনীতে মহান আল্লাহর ইবাদতে বেশী সময় দেওয়ার চেষ্টা করি। গভীর রাতে উঠে তাহাজ্জুদের অভ্যাস গড়ে তুলি। এত লম্বা রাত। এই রাতে গল্প-গুজব কম করে আগে-ভাগে বিছানায় যাওয়ার চেষ্টা করি। নিজের সকল সমস্যা সমাধানের জন্য আল্লাহর কাছে সাহায্য চাই। আল্লাহ তায়ালা অবশ্যই সকল সমস্যার সমাধান করে দেবেন। আল্লাহ তায়ালা আমাদের সকলকে বেশি বেশি তাঁর ইবাদত করার তাওফিক দান করুন। আমিন।


 


লেখক : মুহতামিম, নিজামিয়া মাদরাসা, গোয়ালন্দ, রাজবাড়ি


 

আরো পড়ুন