শিরোনাম :

  • রাজধানীর উত্তরখানে আগুনে একই পরিবারের ৮ জন দগ্ধ ভারতে আঘাত হেনেছে ঘূর্ণিঝড় তিতলিবাবরসহ ১৯ জনের মৃত্যুদণ্ড, তারেকসহ ১৯ জনের যাবজ্জীবনরায়কে ঘিরে ঢাকায় ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায় আজ
ইইউ পার্লামেন্টে ইবিএ ফ্যাসালিটি নিয়ে আলোচনা হবে
নিজস্ব প্রতিবেদক :
১০ জুন, ২০১৯ ১৮:৪০:০৪
প্রিন্টঅ-অ+


ইউরোপিয়ান নতুন পার্লামেন্টে বাংলাদেশের ‘এভরিথিং বাট আর্মস’ (ইবিএ) ফ্যাসালিটি নিয়ে আলোচনা হবে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশে সফররত ইইউ’র মানবাধিকার বিষয়ক বিশেষ প্রতিনিধি অ্যামন গিলমোর।

সোমবার (১০ জুন) রাজধানীর গুলশানে আইনমন্ত্রীর আবাসিক অফিসে মন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হকের সঙ্গে ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের একটি প্রতিনিধি দল সাক্ষাৎ করেন। সাক্ষাৎকালে ইইউ’র মানবাধিকার বিষয়ক বিশেষ প্রতিনিধি অ্যামন গিলমোর মন্ত্রীকে এ তথ্য জানান।

দুপুর আড়াইটা থেকে বিকেল সাড়ে তিনটা পর্যন্ত চলা ওই বৈঠকে রোহিঙ্গা ইস্যু, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া, ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্ট ও নুসরাত হত্যাকাণ্ডে বিষয়টি ওঠে আসে।

বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেন, সবগুলো বিষয়ে কথাবার্তা হয়েছে। তিনি আমাকে জানালেন, আগামী নতুন যে ইউরোপিয়ান পার্লামেন্ট হচ্ছে সেখানে আমাদের যে ইবিএ ফ্যাসালিটি এভরিথিং বাট আর্মস সেই ফ্যাসালিটির ব্যাপারে আলোচনা হবে।

তিনি বলেন, আমাদের যে এভরিথিং বাট আর্মস ফ্যাসালিটির ব্যাপারে আলোচনা হবে -সেই আলোচনার কারণে এই কানসার্নগুলো উঠতে পারে বলেই তিনি আমার সাথে এ বিষয়ে আলোচনা করলেন।

আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী বলেন, আমরা অনেক বিষয়ে আলাপ করেছি। এর মধ্যে প্রধান বিষয় হচ্ছে রোহিঙ্গা ইস্যু। উনি আগামীকালকে (মঙ্গলবার) কক্সবাজার যাবেন। প্রত্যক্ষভাবে দেখার জন্য, ওখানে কী হচ্ছে। কক্সবাজার সফর শেষে উনি মিয়ানমার যাবেন। মিয়ানমার যাওয়ার আগে নিজের চোখে দেখতে এসেছেন রোহিঙ্গাদের অবস্থা কী, আমি সেটাকে সাধুবাদ জানাই।

আইনমন্ত্রী আরও বলেন, ওনার সঙ্গে রোহিঙ্গা বিষয়ে আলাপ করার সময় গতকাল প্রধানমন্ত্রী যে কথাগুলো বলেছেন আমি সেই কথাগুলো তুলে ধরেছি। আমরা যে রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবর্তন চাই, সেই সম্বন্ধে ওনার সঙ্গে জোর দিয়ে কথা বলেছি। ওনাকে অনুরোধ করেছি, মিয়ানমারের সাথে যেন তিনি এ ব্যাপারে কথা বলেন।

আনিসুল হক বলেন, আরও কিছু কথা ওনাদের ছিল সেটা হচ্ছে ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের কিছু বক্তব্য যেটা উনি আমাকে জানালেন। সেটা হচ্ছে, উনি যে ভাষায় আমাকে জানালেন ‘কনসার্ন’। ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্ট নিয়ে উনি আমার সাথে কথা বলেছেন। আমি ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্টের ইতিহাস আদ্যোপান্ত উনাকে বলেছি। এটাও পরিষ্কারভাবে ওনাকে বলেছি, ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্ট হচ্ছে সাইবার সিকিউরিটির জন্য, সাইবার ক্রাইম রোধের জন্য। এটা ফ্রিডম অব প্রেস বা ফ্রিডম অব স্পিচ কার্ভ করার জন্য নয়। বাক স্বাধীনতা বন্ধ করার জন্য নয়, সেটা আমি ওনাকে পরিষ্কার করে বলেছি।

তিনি বলেন, আমি এটা এপ্রিসিয়েট করি, উনি নুসরাত হত্যা মামলার কথাও বলেছেন। আমি সেখানেও তাকে নুসরাত হত্যা মামলার আজকে পর্যন্ত যেই অগ্রগতি হয়েছে সেটা জানিয়েছি। প্রধানমন্ত্রী থেকে শুরু করে সকলেই যে এটার ব্যাপারে অত্যন্ত গুরুত্ব সহকারে দেখছি সেটাও তাকে জানিয়েছি।

আইনমন্ত্রী বলেন, খালেদা জিয়া বিষয়েও কথা হয়েছে। আমি পরিষ্কার বলেছি, খালেদা জিয়াকে বাংলাদেশের আদালত আইন মাফিক সাজা দিয়েছে। সেই সাজা হাইকোর্ট বাড়িয়েছে। আইনের শাসনের কারণে এবং হাইকোর্ট এবং বিচারিক আদালত সাজা দেওয়ার কারণেই খালেদা জিয়া জেলে আছেন। এখানে সরকারের কিছু করার নাই। এতিমের টাকা চুরি করে অভিযুক্ত হয়ে সেখানে স্বাক্ষীদের সাক্ষ্য গ্রহণের পরে আদালতের বিবেচনায় তিনি দোষী সাবস্ত হওয়ার কারণে আজকে জেলে আছেন। সেখানে তাকে ছাড়া বা না ছাড়ার ব্যাপারে সরকারের কোনো ভূমিকা নাই।



আমার বার্তা/১০ জুন ২০১৯/জহির


আরো পড়ুন