শিরোনাম :

  • ৬৯ হাজার ৭৬৭ হজযাত্রী সৌদি আরব পৌঁছেছেন বাড্ডায় ছেলেধরা সন্দেহে অভিভাবককে গণপিটুনি : ৫শ জনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা অর্থনৈতিক কূটনীতির ওপর গুরুত্বারোপের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর জলাবদ্ধতা থেকে রাতারাতি মুক্তি দেয়া সম্ভব নয় : স্থানীয় সরকারমন্ত্রীপ্রিয়া সাহার বক্তব্য রাষ্ট্রদ্রোহ বলে মনে করেন না আইনমন্ত্রী
মুক্তির সংগ্রাম কোনো দিন শেষ হয় না : গোলাম মোস্তফা
নিজস্ব প্রতিবেদক :
৩০ জুন, ২০১৯ ১৫:৫৩:২৯
প্রিন্টঅ-অ+


বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টির (বাংলাদেশ ন্যাপ) মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভূঁইয়া বলেছেন, সাঁওতাল বিদ্রোহ ছিল ব্রিটিশ সাম্রাজ্যবাদের বিরুদ্ধে প্রথম সংঘটিত প্রতিবাদ ও ভারতের কৃষক বিদ্রোহের ইতিহাসের এক অতুলনীয় অধ্যায়।

তিনি বলেন, বৃটিশ শাসন, শোষণ ও উৎপীড়ন থেকে পরাধীন জাতির স্বাধীনতা সংগ্রামের সৃষ্টি হয়। ১৮৫৫ সালের সাঁওতাল বিদ্রোহ সে ধরনের শোষণ অত্যাচারেরই প্রকাশ। ১৮৫৫-৫৭ সাল পর্যন্ত এ বিদ্রোহ ভারতীয় উপ-মহাদেশের বিহার, উড়িষ্যা এবং বাংলাদেশ পর্যন্ত প্রসার লাভ করেছিল। সাঁওতাল বিদ্রোহের তীব্রতা ও ভয়াবহতায় ইংরেজ শাসনের ভীত কেঁপে উঠেছিল। লর্ড ডালহৌসি মার্শাল ল’ জারি করেও এ বিদ্রোহ দমন করতে পারেনি।

রোববার (৩০ জুন) ঐতিহাসিক সাঁওতাল বিদ্রোহ দিবস স্মরণে জাতীয় গণমুক্তি আন্দোলন আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

গোলাম মোস্তফা ভূঁইয়া বলেন, অসম যুদ্ধের ফলস্বরূপ, এ বিদ্রোহে সাঁওতালদের পরাজয় ঘটলেও, বৈদেশিক শাসন এবং দেশীয় সামন্ত্রতান্ত্রিক শোষণের মূলোৎপাটন করার লক্ষ্যে পরিচালিত এ বিদ্রোহ ভারতবর্ষের মানুষের মনে যে সাম্রাজ্যবাদবিরোধী চেতনা জাগ্রত করেছিল, সে চেতনার আলোতেই উদিত হয়েছে ভারতবর্ষের স্বাধীনতার রক্তিম সূর্য। অথচ সাঁওতাল বিদ্রোহীদের আত্মত্যাগ আজও আসেনি পাদপ্রদীপের আলোয়। সাঁওতাল বিদ্রোহে নিরক্ষর সাঁওতালেরা রক্ত দিয়ে রচনা করেছিল ব্রিটিশ সাম্রাজ্যবাদবিরোধী সংগ্রামের ইতিহাসে গৌরবোজ্জ্বল এক অধ্যায়। মুক্তিকামী মানুষের কাছে সাঁওতাল বিদ্রোহ আজও প্রেরণার উৎস।

ন্যাপ মহাসচিব আরও বলেন, সাঁওতাল বিদ্রোহ নিপীড়িত মুক্তিকামী মানুষের চিরদিনের প্রেরণার উৎস। এ সংগ্রামে পরাজয় ছিল কিন্তু আপস ছিল না। বিদ্রোহীরা নির্ভয়ে মৃত্যুকে আলিঙ্গন করেছে কিন্তু আত্মসমর্পণ করেনি। বিদ্রোহীদের আত্মত্যাগ ও বীরত্বের কাহিনি প্রেরণা যুগিয়েছে ভারতবর্ষের পরবর্তী সব স্বাধীকার আন্দোলনে। সাঁওতাল বিদ্রোহ প্রমাণ করে দিয়েছে মুক্তির সংগ্রাম কোনো দিন শেষ হয়ে যায় না। মানুষ পৃথিবীতে যতদিন থাকবে, শোষণ মুক্তির সংগ্রাম চলবে ততদিন।

সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত সমন্বয়কারী অ্যাডভোকেট তাজুল ইসলামের সভাপতিত্বে আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন এনডিপি ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মো. মঞ্জুর হোসেন ঈসা, সংগঠনের সমন্বয় কমিটির সদস্য আবদুল হালিম, মাওলানা আবু জাফর রেদোয়ানী, আবদুল কাইয়ূম মাহমুদ, আফরোজা বেগম, ইমরুল হাসান, যুব নেতা আবদুল্লাহ আল কাউছারী, ছাত্রনেতা আল-আমিন ভূঁইয়া প্রমুখ।



আমার বার্তা/৩০ জুন ২০১৯/জহির


আরো পড়ুন