শিরোনাম :

  • ঝিলপাড়ে শুধুই আহাজারি ১ হাজার ৯৪২ জন হাজি দেশে ফিরেছেন ভিএআর কেড়ে নিলো ম্যানসিটির জয় বিমানের ফিরতি হজ ফ্লাইট শেষ হবে ১৫ সেপ্টেম্বর টানা ১১ জয়ে রেকর্ডে ভাগ বসাল লিভারপুল
মেসি-সুয়ারেজের গোলে ফাইনালের পথে বার্সা
স্পোর্টস ডেস্ক :
০২ মে, ২০১৯ ১১:৩১:২৪
প্রিন্টঅ-অ+


লিভারপুল ছাড়ার পর প্রতিযোগিতামূলক ম্যাচে কখনো ক্লাবটির বিপক্ষে খেলতে নামেননি লুইস সুয়ারেজ। ২০১৪ সালের পর বার্সেলোনার জার্সিতে খেলতে নেমে লিভারপুলের বিপক্ষে গোল পেলেন তিনি। তার সঙ্গে জোড়া গোল পেয়েছেন বার্সা শিবিরের সেরা তারকা লিওনেল মেসি। তাদের নৈপুণ্যে সেমিফাইনালের প্রথম লেগে জিতে চ্যাম্পিয়নস লিগ ফাইনালে এক পা দিয়ে রাখল কাতালান ক্লাবটি।

চেনা মাঠ ন্যু ক্যাম্পে লিভারপুলকে গতকাল রাতে স্বাগত জানায় বার্সেলোনা। প্রতিপক্ষের বিপক্ষে বেশ চাপের মধ্যেও জ্বলে উঠেছেন মেসি। জোড়া গোল করে বার্সা ক্যারিয়ারে ছয়শ গোলের মাইলফলক ছুঁয়েছেন পাঁচবারের ব্যালন ডি’অর জয়ী তারকা। তার দুই গোলের সঙ্গে সুয়ারেজ একবার জালের দেখা পাওয়ায় লিভারপুলকে নিজেদের মাঠে ৩-০ ব্যবধানে হারাতে সক্ষম হয় আর্নেস্তো ভালভার্দের শিষ্যরা।

চলতি মৌসুমে দারুণ খেলতে থাকা লিভাপুল গতকাল ম্যাচের শুরু থেকেই বার্সাকে চেপে ধরতে থাকে। খেলা শুরুর ১৫ মিনিট বার্সেলোনার রক্ষণে গতি আর ‘স্পিড পাসিং’র পসরা সাজিয়ে বসেছিলেন সালাহ-মানেরা। তাদের আক্রমণ থামাতে এসময় রীতিমত হিমশিম খেয়েছেন জেরার্ড পিকে-সার্জি রবার্তোরা। আক্রমণে এগিয়ে থাকলেও উল্টো ১৩ মিনিটে মেসিকে ঠেকাতে গিয়ে নিজেদের ডি-বক্সে হ্যান্ডবল করেছিলেন ফন ডাইক। বার্সা পেনাল্টির আবেদন করলেও রেফারি সাড়া দেননি।

ম্যাচের ২৬ মিনিটে স্বাগতিক দর্শকদের উচ্ছ্বাস উপহার দেন সুয়ারেজ। বাঁ প্রান্ত থেকে লম্বা করে বল বাড়িয়ে দেন জর্দি আলবা। নিচু হয়ে আসা ক্রস একদম লিভারপুলের ডি-বক্সের অনেকটা ভেতরে প্রবেশ করতেই ভ্যান ডাইক ও হুয়ান মাতিপের মাঝে জায়গা বানিয়ে দুর্দান্ত এক ডাইভ দেন উরুগুইয়ান তারকা। বল তার ডান পায়ে লেগে সোজা আলিসনকে ফাঁকি দিয়ে জালে জড়িয়ে যায়।

দারুণ ফর্মে থাকলেও চ্যাম্পিয়নস লিগে বার্সার হয়ে এবার এটাই প্রথম গোল সুয়ারেজের। নিজের প্রাক্তন ক্লাবের বিপক্ষে তার এভাবে জ্বলে উঠায় খুশি ভক্তরা।

শুরুতে গোল খেয়ে তা শোধ করতে মরিয়া হয়ে উঠে লিভারপুল। ম্যাচের ৩৫ মিনিটে হ্যান্ডারসনের নিচু করে বাড়ানো বলে জোরালো শট নিয়েছিলেন সেনেগালিজ ফরোয়ার্ড মানে। তার শট লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়। মিনিট দুয়েক বাদে সালাহ’র প্রচেষ্টা রুখে দেন ল্যাঙ্গলেট। কিন্তু বল পেয়ে যান মিলনার। যদিও লিভারপুলের অধিনায়কের নেওয়া শটও পোস্ট ঘেঁষে বেরিয়ে যায়।

দ্বিতীয়ার্ধে ম্যাচের ৪৭ ও ৫৩ মিনিটে আরও দুটি গোলের সুযোগ পায় লিভারপুল। তবে তাদের দুটো দারুণ প্রচেষ্টা টের স্টেগানের দক্ষতার কাছে হার মানে। এরপর আরও কয়েকবার সালাহ-মানেদের সাজানো-গোছানো আক্রমণ বার্সার ডিফেন্স ভাঙতে ব্যর্থ হয়। উল্টো ৭৫ মিনিটে ব্যবধান বাড়িয়ে দেওয়া গোল করেন মেসি। যদিও গোলটি হতে পারত সুয়ারেজের দ্বিতীয়, কিন্তু তার অসাধারণ শট বারে লেগে ফিরে এলে ফিরতি শটে বল জালে জড়িয়ে দেন বার্সা অধিনায়ক।

ম্যাচের ৮২ মিনিটে অসাধারণ এক ফ্রি-কিকে স্কোর লাইন ৩-০ করেন মেসি। ঝাঁপিয়েও তার নিখুঁত শট ঠেকাতে পারেননি লিভারপুল গোলরক্ষক আলিসন। মেসিকেই ফাবিনিয়ো ফাউল করায় বিপজ্জনক জায়গায় ফ্রি-কিক পেয়েছিল বার্সেলোনা। চলতি আসরে অধিনায়কের এটি দ্বাদশ গোল। দুই মিনিট পরই ব্যবধান কমানোর সুবর্ণ সুযোগ হাতছাড়া হয়ে যায় লিভারপুলের। রবের্তো ফিরমিনোর শট গোললাইন থেকে ঠেকিয়ে দেন রাকিতিচ। ফিরতি বলে সালাহর শট ফিরে পোস্টে লেগে। শেষ পর্যন্ত আর গোল না হলেও ৩-০ ব্যবধানে এগিয়ে থেকে মাঠ ছাড়ে বার্সা।



আমার বার্তা/০২ মে ২০১৯/জহির



 


আরো পড়ুন