শিরোনাম :

  • ঢাকায় বাড়তে পারে তাপমাত্রা করোনার ছোবলে এবার চলে গেলেন এসআই মোশাররফ সপ্তাহে তিন দিন ছুটির বিধান আসছে নিউজিল্যান্ডে পেরুতে একদিনেই আক্রান্ত প্রায় ৩ হাজার
মাজেদের লাশ নারায়ণগঞ্জ থেকে না সরালে মেঘনায় ভাসিয়ে দেয়ার ঘোষণা
নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি :
১২ এপ্রিল, ২০২০ ১৭:০২:৫২
প্রিন্টঅ-অ+


বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আত্মস্বীকৃত খুনি ক্যাপ্টেন (বরখাস্ত) আবদুল মাজেদের ফাঁসি কার্যকরের পর কঠোর গোপনীয়তার মধ্যে তার মরদেহ নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ে দাফন করা হয়েছে। রোববার (১২ এপ্রিল) ভোরে উপজেলার শম্ভুপুরা ইউনিয়নের হোসেনপুর এলাকায় তার মরদেহ দাফন করা হয়।

এদিকে হোসেনপুর এলাকায় মাজেদের মরদেহ দাফনের খবর ছড়িয়ে পড়লে তার মরদেহ সেখান থেকে অপসারণের দাবিতে স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী ও এলাকাবাসী বিক্ষোভ করেছেন। সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত উপজেলার শম্ভুপুরা ইউনিয়নের হোসেনপুর এলাকায় বিক্ষোভ করেন তারা।

খবর পেয়ে সোনারগাঁ থানা পুলিশসহ উপজেলা প্রশাসনের লোকজন ঘটনাস্থলে হাজির হন এবং এলাকাকাসীকে শান্ত করার চেষ্টা করেন। শম্ভুপুরা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুর রউফও ঘটনাস্থলে হাজির হন।

গোপনে বঙ্গবন্ধুর খুনি মাজেদের মরদেহ সোনারগাঁয়ের মাটিতে দাফন করা নিয়ে এলাকাবাসীর মাঝে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। প্রশাসনের সহায়তায় মাজেদকে সোনারগাঁয়ে দাফন করা হয়েছে বলে অভিযোগ এলাকাবাসীর।

এ নিয়ে সোনারগাঁ উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড, উপজেলা আওয়ামী লীগ ও স্থানীয় বিভিন্ন রাজনৈতিক-সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন। অনেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে চরম ক্ষোভ প্রকাশ করে মরদেহ অপসারণের দাবি জানিয়েছেন। মাজেদের মরদেহ অপসারণ করা না হলে কবর থেকে তুলে মেঘনা নদীতে ভাসিয়ে দেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন।

শম্ভুপুরা ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি রিয়াজুল হক টিটু বলেন, বঙ্গবন্ধুর আত্মস্বীকৃত খুনি মাজেদের মরদেহ কীভাবে সোনারগাঁয়ে দাফন করা হলো আমরা বুঝতে পারছি না। মাজেদের মরদেহ অপসারণের জন্য এলাকাবাসী সকাল থেকে বিক্ষোভ করছে। মরদেহ অপসারণের বিষয়ে প্রশাসনের সঙ্গে আলোচনা চলছে। আমরা মাজেদের মরদেহ সোনারগাঁয়ে থাকতে দিব না। যেকোনো উপায়ে এখান থেকে মাজেদের মরদেহ অপসারণ চাই।

শম্ভুপুরা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুর রউফ বলেন, এলাকাবাসীর বিক্ষোভসহ সব ধরনের বিষয় নিয়ে আলোচনা করা হচ্ছে। মরদেহ অপসারণ করতে হলে প্রশাসনের মাধ্যমে করতে হবে। সেই বিষয় নিয়ে আমরা প্রশাসনের সঙ্গে আলোচনা করছি।



আমার বার্তা/১২ এপ্রিল ২০২০/জহির


আরো পড়ুন