শিরোনাম :

  • তাপমাত্রা বাড়বে ঢাকায়, কমবে কুয়াশা স্যামসাং চীন থেকে ভারতে ডিসপ্লে কারখানা সরিয়ে নিচ্ছে সম্মতিতে শারীরিক সম্পর্ক, সম্পর্ক ভাঙলেই বলে ধর্ষণ : কিরন্ময়ী নায়েক দুই গাড়ির সংঘর্ষে রাজস্থানে নিহত ১০
১ হাজার টাকা দিতে অস্বীকৃতি
বোনকে হত্যার পর ৯৯৯ এ কল দিয়ে জানায় ভাই
রাব্বি ইসলাম, মির্জাপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি
২১ জানুয়ারি, ২০২১ ১৩:৫১:২১
প্রিন্টঅ-অ+


টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে এবং মাত্র ১ হাজার টাকা দিতে অস্বীকৃতি জানানোর কারণে নিজের আপন বোনকে হত্যার অভিযোগ উঠেছে আপন ভাইয়ের বিরুদ্ধে। ঘটনাটি বুধবার (২০জানুয়ারি) বিকেলে উপজেলার বাঁশতৈল ইউনিয়নের উত্তর পেকুয়া গ্রামে ঘটেছে। এ ঘটনার পর রাতে মির্জাপুর থানায় মামলা দায়ের করেছেন নিহতের চাচা সোরহাব। নিহত ওই গ্রামের মৃত শাহজাহান মিয়ার মেয়ে সুলতানা আক্তার (৩০)। এ ঘটনায় অভিযুক্ত আসামী নিহতের ছোট ভাই শহিদুলকে (২৭) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

নিহতের চাচা ও পুলিশ জানায়, বুধবার বিকেলে শহিদুল তার মাকে নিয়ে তার মামার কাছে মায়ের জমি বিক্রির জন্য যায়। বিষয়টি জানতে পেরে নিহত বড় বোন সুলতানা তার মামাকে ফোন দিয়ে জায়গাটি না কেনার জন্য বলেন এবং আগামী শনিবার বিষয়টি নিয়ে বসার কথা উল্লেখ করেন। পরে শহিদুলকে তার মামা বড় বোনের ফোন দেয়ার বিষয়টি জানায়। ক্ষিপ্ত হয়ে সেখান থেকে বাড়ি ফিরে বড় বোন সুলতানার সাথে বাকবিতন্ডা হয়। মামার বাড়ি যেতে ১ হাজার টাকা খরচ হয়েছে তাই সেটি তার বোনকে দিতে বলেন শহিদুল। সেই টাকা দিতে অস্বীকৃতি জানালে ঘরের ভিতর আটকে গলা চেপে ধরে এবং ব্যাপক মারধরের ফলে ঘটনাস্থলেই সুলতানার মৃত্যু হয়। ঘরের বাহির থেকে শহিদুলকে বাঁশ দিয়ে ফেরানোর চেষ্টায়ও ব্যর্থ হয় এলাকাবাসী। বোনকে মেরে ফেলার পর শহিদুল নিজেই ‘৯৯৯’ এ কল দিয়ে বিষয়টি জানান। কিন্তু সঠিক কোনো তথ্য সে দিতে পারেননি। ঘটনার পর এলাকাবাসী তাকে আটকে রেখে পুলিশে খবর দেয়। ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার এবং ঘাতক শহিদুলকে গ্রেপ্তার করে থানায় নিয়ে আসে পুলিশ। পরে নিহতের লাশ ময়না তদন্তের জন্য টাঙ্গাইল শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজে প্রেরণ করা হয়।

মির্জাপুর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. গিয়াস উদ্দিন জানান, ঘটনার পর ঘাতককে গ্রেপ্তার করে তার বিরুদ্ধে থানায় হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। মামলা নং- ১৩ (২০-০১-২০২১)। বৃহস্পতিবার দুপুরে তাকে কোর্টের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।



 


আরো পড়ুন