শিরোনাম :

  • আইসিইউ যাচ্ছে প্রান্তিক পর্যায়েও ভয়াবহ গ্রেনেড হামলা মামলার ১৬ জন এখনো কোথায়? রোনালদোর সতীর্থকে বার্সেলোনায় চান মেসি র‍্যাব-পুলিশ সদরের ঊর্ধ্বতন তিন কর্মকর্তাকে বদলি রাজীবের মৃত্যু : তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল ২৬ সেপ্টেম্বর
রাজধানীতে সড়ক দুর্ঘটনায় ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী নিহত
নিজস্ব প্রতিবেদক :
২৫ এপ্রিল, ২০১৯ ১৭:০৮:১৮
প্রিন্টঅ-অ+


রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে জাতীয় হৃদরোগ ইন্সটিটিউট ও হাসপাতালের পাশের সড়কে দুর্ঘটনায় ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থী নিহত হয়েছেন। নিহত শিক্ষার্থীর নাম ফাহমিদা হক লাবণ্য (২১)। তিনি ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের সিইসি বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী।

বৃহস্পতিবার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে। আহত অবস্থায় লাবণ্যকে জাতীয় হৃদরোগ ইন্সটিটিউটে নেয়া হলে সেখানে তার মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় আহত রাইডার সুমনকে হাসপাতালে পায়নি পুলিশ।

শেরেবাংলা নগর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) নুরুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, কীভাবে দুর্ঘটনাটি ঘটলো সেটি কেউই বলতে পারছে না। আশেপাশে কোনো সিসিটিভি ক্যামেরাও নেই। আমরা কারণ জানার চেষ্টা করছি।

ঘটনাটি সম্পর্কে এসআই নুরুল ইসলাম আরও বলেন, হৃদরোগ ইন্সটিটিউট থেকে ‘৯৯৯’ এ ফোন করে বলা হয় দুর্ঘটনায় আহত দুইজন তাদের হাসপাতালে এসেছে। সেখান থেকে থানায় ফোন করা হলে আমি ঘটনাস্থলে যাই। গিয়ে আশেপাশের অনেকের সঙ্গে কথা বলি। কেউই দেখেনি কোনো গাড়ি কিংবা বাসের ধাক্কায় এই দুর্ঘটনা ঘটেছে কি-না। আশেপাশে যেসব সিসিটিভি ক্যামেরা আছে সেগুলো ঘটনাস্থল কাভার করে না। তাই মূল ঘটনাটি জানা যাচ্ছে না। পুলিশ হাসপাতালে যাওয়ার আগেই মেয়েটির মৃত্যু হয়। তার বাসা শ্যামলীর ৩ নম্বর রোডে। হাসপাতালে তার পরিবারের সদস্যরা উপস্থিত আছেন।

তিনি আরও বলেন, মেয়েটি একটি রাইড শেয়ারিং অ্যাপে যাচ্ছিল। কিন্তু এটা পাঠাও নাকি উবার-মোটো তা এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। এঘটনায় রাইডার সুমন আহত হয়েছেন। কিন্তু পুলিশ আসার আগেই সে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে হাসপাতাল থেকে চলে যায়। সে তার প্রেসক্রিপশনটিও নেয়নি। তাকে ফোন দিয়ে তার ফোনটিও বন্ধ পাওয়া যাচ্ছে।

ময়নাতদন্তের জন্য নিহতের মরদেহ শহীদ সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে বলেও জানান তিনি।



আমার বার্তা/২৫ এপ্রিল ২০১৯/জহির


আরো পড়ুন