শিরোনাম :

  • নয়াপল্টনে বিএনপির নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ জবানবন্দিতে বুলুসহ ১৫ বিএনপি নেতার নাম পেয়েছে পুলিশ সেনা অভ্যুত্থানবিরোধী বিক্ষোভে উত্তাল সুদান, সংঘর্ষে নিহত ৭দুই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষ, নিহত ২
মাস্ক ছাড়া মহাখালী বাস টার্মিনালে গুনতে হলো জরিমানা
২৭ জানুয়ারি, ২০২২ ১২:৩১:৫৪
প্রিন্টঅ-অ+


বেলা তখন সাড়ে ১১টা। মহাখালী বাস টার্মিনালে বেশ ভিড়। টার্মিনাল থেকে একের পর এক বের হচ্ছে দূরপাল্লার বাস। যাত্রীদের বেশ তাড়াহুড়ো, টিকিট কাউন্টার থেকে কাক্সিক্ষত বাসের টিকিট কেটে উঠে পড়ছেন বাসে।


এরই মাঝে বেশ কিছু যাত্রী আছেন যারা মাস্ক না পরেই চলে এসেছেন বাস টার্মিনালে। তারা বুঝে ওঠার আগেই ঢাকা সিটি করপোরেশনের আঞ্চলিক কার্যালয়ের সদস্য, পুলিশ সদস্য এসব মাস্ক না পরা মানুষদের ধরে সরাসরি নিয়ে আসছেন টার্মিনালে পরিচালিত হওয়া ভ্রাম্যমাণ আদালতের কাছে। মাস্ক না পরা অসচেতন মানুষদের ভিড় বাড়ছে এখানে। তাদের সবার কাছ থেকে জরিমানা আদায় করা হচ্ছে।


সিরাজ খান নামের এক যাত্রী মহাখালী বাস টার্মিনাল থেকে টাঙ্গাইল যাওয়ার জন্য বাসের টিকিট কেটেছেন। কিন্তু তিনি মাস্ক পরে আসেননি। সঙ্গে সঙ্গে তাকে ধরা পড়তে হলো ভ্রাম্যমাণ আদালতের কাছে। মাস্ক না পরার দায়ে গুনতে হলো ১০০ টাকা জরিমানা। মহাখালী বাস টার্মিনালে সকাল থেকে এ পর্যন্ত মোট ১২ জনের কাছ থেকে এভাবে জরিমানা জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। 


মাস্ক না পরা সিরাজ খান বলেন, আমার পকেটেই মাস্ক ছিল। কিন্তু না পরে থাকার কারণে ভ্রাম্যমাণ আদালত আমাকে ১০০ টাকা জরিমানা করেছেন। আমি আমার ভুল বুঝতে পরেছি, এখন থেকে বাইরে বের হলে অবশ্যই মাস্ক পরব।


একই রকমের সমস্যায় পড়েছেন সুমন মিয়া নামের ময়মনসিংহগামী এক যাত্রী। তিনিও মাস্ক পরে টার্মিনালে আসেননি। ফলে তিনিও ১০০ টাকা জরিমানা গুনলেন। 


সুমন মিয়া বলেন, মাস্ক পরতে ভুলে গেছি। মহাখালী বাস টার্মিনালে ঢুকতেই এক পুলিশ সদস্য আমাকে ধরে ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে নেন। মাস্ক না পরার দায়ে আদালত ১০০ টাকা জরিমানা করেছেন। জরিমানার সিস্টেম এভাবে যদি ঢাকা শহরের সব জায়গায় করা হয়, তাহলে আমার মত সবাই সচেতন হয়ে যাবে। তবে সব সময় মাস্ক পরে থাকতে খুব কষ্ট হয়, দম বদ্ধ হয়ে আসে।


মহাখালী বাস টার্মিনালে ভ্রাম্যমাণ আদালতটি পরিচালনা করছেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ইয়াসমিন মনিরা। অভিযান প্রসঙ্গে তিনি বলেন, এ পর্যন্ত আমরা এখানে ১২ জন যাত্রীকে জরিমানা করেছি। এটা আমাদের নিয়মিত অভিযান। মূলত সাধারণ মানুষকে সচেতন করা, মাস্ক পরা এবং স্বাস্থ্যবিধি মানানোর জন্যই আমাদের এমন অভিযান। তবে আগে যেভাবে মানুষ মাস্ক পরা অনেকটাই ছেড়ে দিয়েছিল সেই তুলনায় এখন মানুষ সচেতন হয়েছে, অনেকেই মাস্ক পরছেন। নিজের সুস্থতার জন্য, নিজের পরিবারের সুস্থতার জন্য আমাদের অবশ্যই মাস্ক পরতে হবে এবং সচেতন থাকতে হবে।



 

আরো পড়ুন