শিরোনাম :

  • রাজধানীতে ট্রাকের ধাক্কায় বৃদ্ধ নিহত জবানবন্দিতে বুলুসহ ১৫ বিএনপি নেতার নাম পেয়েছে পুলিশ উখিয়ায় রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সন্ত্রাসীদের গুলিতে নিহত ২দুই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষ, নিহত ২
সড়ক জুড়ে গড়ে উঠেছে জমজমাট পার্কিং ব্যবসা
মো: সোলায়মান
১৪ আগস্ট, ২০২২ ১৫:৩৪:৫৩
প্রিন্টঅ-অ+

রাজধানীর মিরপুর সড়ক জুড়ে অবৈধ পার্কিংয়ে অবরুদ্ধ। অবৈধ পার্কিংয়ের ফলে ব্যস্ততম বিভিন্ন রাস্তার এক বড় অংশ দিয়ে গাড়ি চলাচল করতে পারেনা। অবৈধ পার্কিং রুখতে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়ার উদ্যোগ নেই সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের। মিরপুর, পল্লবী, কাফরুল, দারুসসালাম, শ্যামলি, মিরপুর-১/২/১৩/১৪, ভাসানটেক,কালশী এলাকায় রাতে অবৈধ বাস পার্কিং স্টেশন তৈরি করেছেন স্থানীয় রাজনৈতিক প্রভাবশালী ব্যক্তি ও তাদের অনুসারীরা। রাস্তার দুই পাশ ইচ্ছেমতো দখল করে প্রতিদিন সন্ধ্যা থেকে ভোর পর্যন্ত  বিভিন রুটের যানবাহন পার্কিং করে রাখা হয়। নিয়ম না থাকলেও যেখানে সেখানে অপরিকল্পিত ভাবে এসব বাস- মিনিবাস পার্কিং করে রাখায় সন্ধ্যার পর থেকে মূল রাস্তায় যান চলাচলে প্রতিবন্ধকতাসহ নানা সমস্যার সৃষ্টি হয়। সন্ধ্যার পর থেকে সড়কের পাশে রাখা বাস গুলো হয়ে উঠে মাদক সেবীদের আড্ডা খানা। 


সরেজমিন দেখা যায়, মিরপুরের বিভিন্ন এলাকায় সন্ধ্যা হলেই রাস্তার প্রায় দুই-তৃতীয়াংশজুড়ে বাস পার্কিং শুরু হয়ে যায়। বর্তমানে মিরপুর থেকে প্রতিদিন দিনে-রাতে যেসব বাস বিভিন্ন জায়গার  উদ্দেশে ছেড়ে যায়, সেগুলোর বেশির ভাগেরই নিজস্ব কোনো পার্কিং ব্যবস্থা নেই। ফলে মালিকরা রাস্তার ওপর এসব গাড়ি রাখছেন। 


এক গাড়ির চালক বলেন,গাড়ি রাখার জায়গা নেই তাই এখানে রেখেছি এতে দোষের কিছু নেই। প্রতিদিনই রাতে রাস্তায় এসব গাড়ি পার্ক করা থাকে। তাদের গাড়ি রাখার নিজস্ব কোনো পার্কিং ব্যবস্থা নেই। তাই রাতে যেখানে সুবিধা হয় সেখানেই গাড়ি পার্কিং করে রাখেন। এ জন্য তাদেরকে পুলিশকে ম্যানেজ করতে হয়। রাতে পার্কিংয়ের কারণে যান চলাচলে ভোগান্তির আরেক দিকে রয়েছে ট্রাক ও পিকআপ ভ্যানের পার্কিং। অন্য দিকে নামীদামি যেসব পরিবহন সংস্থার নিজস্ব পার্কিং ব্যবস্থা রয়েছে, তারাও রাস্তায় গাড়ি রাখছে। কারণ এসব প্রতিষ্ঠানেরও বাসের তুলনায় পার্কিংয়ের জায়গা কম। 


মিরপুর ২নং এলাকার ব্যবসায়ী সালাম বলেন, রাস্তা হলো ঠিকই কিন্তু সেই সুবিধা তো জনগণ পাচ্ছে না। অর্ধেক রাস্তাজুড়ে পার্কিং। তাহলে এ সড়ক করেই বা কী লাভ হলো? শ্যামলি এলাকার একজন ব্যবসায়ী সালমান বলেন, নামেই চার লেন। সড়ক বিভাজকের দুই দিকে দুটি করে লেন। কিন্তু দুই পাশের এক লেন সব সময় দখল থাকে। এর ফলে কেনাকাটা করতে আসা জনগণকে ভোগান্তি পোহাতে হয়। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয়রা জানান, প্রভাবশালী নেতাদের নেতৃত্বে চলে রাস্তায় অবৈধ গাড়ি রাখাসহ হাট-বাজার ইজারা, দখলবাণিজ্য সবই হয় । তারা জানান ওই স্থানীয় নেতাদের অনুমতি নিয়েই দীর্ঘ দিন ধরে রাস্তাজুড়ে রাতের আঁধারে অবৈধভাবে এসব গাড়ি পার্কিং করে রাখে বিভিন্ন পরিবহনের ড্রাইভাররা। সড়কে কিভাবে সারি সারি বাস পার্কিং করে রাখা হয়। স্থানীয় পুলিশ-প্রশাসন এগুলো দেখেও না দেখার ভান করে। রাস্তার দু’পাশে বেশি জায়গায়জুড়ে গাড়ি পার্কিং থাকায় রাতে যেকোনো সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। তাই স্থানীয় প্রশাসনের এ বিষয়ে দ্রুত পদক্ষেপ নেয়া জরুরি বলে মন্তব্য করেন এলাকাবাসী।

আরো পড়ুন