শিরোনাম :

  • বিদ্যুৎ স্বাভাবিক হতে সময় লাগবে ‘৮ থেকে ১০ ঘণ্টা’ ঢাকায় বিদ্যুৎ স্বাভাবিক ‘রাত ৮টার মধ্যে, চট্টগ্রামে ৯টায়’দুই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষ, নিহত ২ আইসিসির সেরা হওয়ার দৌড়ে বাংলাদেশের নাসুমআফগান ক্রিকেট বোর্ডের সিইওকে বিদায় দিল তালেবান
নিরাপদ সড়কের দাবিতে ফের রাস্তায় শিক্ষার্থীরা
নগর প্রতিবেদক, তেজগাঁও :
১২ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ১৪:৫৮:৩০
প্রিন্টঅ-অ+

নিরাপদ সড়কের দাবিতে ফের রাস্তায় নেমেছে শিক্ষার্থীরা। সড়ক দুর্ঘটনায় সহপাঠী আলী হোসেন নিহতের প্রতিবাদে সোমবার বেলা ১১টা ৫০ মিনিটে রাস্তায় নামে রাজধানীর সরকারি বিজ্ঞান স্কুল অ্যান্ড কলেজের বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা। এ সময় রাজধানীর ফার্মগেট এলাকার পুলিশ বক্সের সামনে দুই পাশের রাস্তা অবরোধ করে তারা।


ফার্মগেট থেকে কারওয়ান বাজারমুখী রাস্তার একাংশ দখল করে তারা, তবে পাশ দিয়ে গাড়ি চলাচল করে। শিক্ষার্থীরা বেলা পৌনে ১টার দিকে ফার্মগেট থেকে মিছিল নিয়ে বিজয় স্মরণির দিকে যাত্রা করে। এদিকে, বৃষ্টি উপেক্ষা করেও বিক্ষোভ চালিয়ে যায় শিক্ষার্থীরা।


উই ওয়ান্ট জাস্টিস। নিরাপদ সড়ক চাই। আর কত প্রাণ ঝরলে সড়ক নিরাপদ হবে। সড়ক সড়ক সড়ক চাই। নিরাপদ সড়ক চাই। আমার ভাই কবরে। খুনি কেন বাহিরে? প্রশাসন জবাব দে। '৭১-এর হাতিয়ার গর্জে উঠুক আরেকবার- এ রকম নানা স্লোগানে মুখরিত হয়ে ওঠে গোটা এলাকা। পুলিশ একপাশ থেকে সরিয়ে দিলেও পরে আবার তারা বিজয় সরণি থেকে কারওয়ান বাজার এলাকার রাস্তা দখল করে।


তেজগাঁও ডিভিশনের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রুবাইয়াত জামান বলেন, ‘পুলিশ প্রশাসন এ ঘটনায় শোকাহত। শিক্ষার্থীকে চাপা দেয়া মাইক্রোবাসটি জব্দ ও চালককে গ্রেপ্তার করেছি। আপনারা জনদুর্ভোগের সৃষ্টি করবেন না। বিকেল ৪টায় ব্রিফিং করবে বলে জানানো হয়, তবে ঠিক কোথায় ব্রিফিংটি হবে তা জানানো হয় নাই।’


এর আগে রোববার রাজধানীর তেজগাঁও শিল্পাঞ্চলে রাস্তা পারাপারের সময় সড়ক দুর্ঘটনায় মো. আলী হোসেন নামের ১৭ বছরের এক শিক্ষার্থীর মৃত্যু হয়। নিহত শিক্ষার্থী সরকারি বিজ্ঞান স্কুল অ্যান্ড কলেজের দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী। রোববার সকাল ৭টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে।


গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে স্থানীয় শমরিতা হাসপাতাল নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে অবস্থার অবনতি হলে তাকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে এলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।


এর আগে ২০১৮ সালে নিরাপদ সড়ক আন্দোলন: বাংলাদেশে কার্যকর সড়ক নিরাপত্তার দাবিতে ২৯ জুলাই থেকে ৮ আগস্ট পর্যন্ত আন্দোলন ও গণবিক্ষোভে নেতৃত্ব দেয় শিক্ষার্থীরা।


২৯ জুলাই রাজধানীর বিমানবন্দর সড়কে দ্রুতগতির দুই বাসের সংঘর্ষে রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের দুই শিক্ষার্থী রাজীব ও দিয়া নিহত হন এবং ১০ জন শিক্ষার্থী আহত হয়। এই সড়ক দুর্ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে নিহত দুই কলেজ শিক্ষার্থীর সহপাঠীদের মাধ্যমে শুরু হওয়া এই বিক্ষোভ পরবর্তী সময়ে সারা দেশে ছড়িয়ে পড়ে এবং নৌমন্ত্রীর পদত্যাগসহ ৯ দফা দাবিতে শিক্ষার্থীরা রাস্তায় নেমে আসে।


এ ছাড়া ২০২১ সালের নভেম্বর মাসে দক্ষিণ সিটির ময়লার গাড়ির চাপায় নটর ডেম কলেজের শিক্ষার্থী নাঈম হাসান নিহত হলে প্রতিবাদে শিক্ষার্থীরা আবার আন্দোলনে নামে। তখন নগর ভবন ঘেরাওয়ের ঘটনা ঘটে৷


একই মাসে এক সপ্তাহ না পেরোতেই রাজধানীতে দুই বাসের প্রতিযোগিতায় আবার প্রাণ হারায় এক শিক্ষার্থী। রামপুরায় অনাবিল পরিবহনের বাসের ধাক্কায় নিহত মাইনুদ্দীন ইসলাম নামের এক এসএসসি শিক্ষার্থী নিহত হয়। ওই শিক্ষার্থী একরামুন্নেছা বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের এসএসসি পরীক্ষার্থী ছিল।


নিহত আলী হোসেনের গ্রামের বাড়ি বরিশাল জেলার মুলাদী থানার কৃষ্ণপুর গ্রামে।


নিহতের পরিবার তেজগাঁওয়ের কুনিপাড়া এলাকায় বসবাস করছে। তার বাবা মো. আজমির মাতুব্বরের একমাত্র পুত্রসন্তান মারা যাওয়ার পর এক কন্যাসন্তান রয়েছে। আলী পরিবারের বড় সন্তান ছিল।

আরো পড়ুন