শিরোনাম :

  • পার্বত্য অঞ্চলের উন্নয়নে নিরলসভাবে কাজ করছে সরকার : প্রধানমন্ত্রী পেশাগত দক্ষতা উন্নয়নে জ্ঞান অর্জনের বিকল্প নেই : স্পিকার আন্তর্জাতিক পর্বত দিবস আজ পার্বত্য অঞ্চলের পরিবেশ রক্ষায় তরুণদের সম্পৃক্ত করার আহ্বান : রাষ্ট্রপতি
একাদশে ভর্তি : কোটার বৈধতা চ্যালেঞ্জের রিট শুনানির তালিকায়
নিজস্ব প্রতিবেদক :
৩০ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ১২:৩৯:০৭
প্রিন্টঅ-অ+


২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির নীতিমালা-২০১৯ এর ঘোষিত আসনের অতিরিক্ত ১১ শতাংশ কোটার বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে করা রিটটি শুনানির জন্য কার্যতালিকায় রয়েছে।

এর আগে রোববার (২৯ সেপ্টেম্বর) ২০১৯ সালের একাদশ শ্রেণিতে ভর্তিতে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নীতিমালাকে লঙ্ঘন করে আসনের বাইরে ভর্তি ও ১১ শতাংশের অতিরিক্ত ফি আদায়ের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে রিট দায়ের করা হয়। একই সঙ্গে, ভিকারুননিসায় একাদশ শ্রেণিতে বোর্ড নির্ধারিত ফির অতিরিক্ত ফি আদায়, অনুপস্থিতি জরিমানা বেশি আদায় বাতিলের নির্দেশনা চাওয়া হয় রিটে।

ভিকারুননিসা ন্যূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের এক শিক্ষার্থীর অভিভাবকের পক্ষে আইনজীবী ইউনুছ আলী আকন্দ এ রিট করেন।

আজ সোমবার হাইকোর্টের বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি এস এম মনিরুজ্জমানের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চে আবেদনটি শুনানির জন্য রয়েছে বলে নিশ্চিত করেন আইনজীবী ইউনুছ আলী নিজে।

আইনজীবী বলেন, চলতি বছরের ২১ এপ্রিল শিক্ষা মন্ত্রণালয় ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির নীতিমালা-২০১৯ জারি করে। ওই নীতিমালার ধারায় ৩.২-এ বলা হয়েছে, বিভাগীয় এবং জেলা সদরের কলেজ বা সমমানের প্রতিষ্ঠানের ভর্তির ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট কলেজ বা সমমানের প্রতিষ্ঠানের শতভাগ আসন সকলের জন্য উন্মুক্ত থাকবে, যা মেধার ভিত্তিতে নির্বাচন করা হবে। মেধার ভিত্তিতে ভর্তির পরে যদি বিশেষ অগ্রাধিকার প্রাপ্ত কোনো আবেদনকারী থাকে, তাহলে মোট আসনের অতিরিক্ত ৫ শতাংশ মুক্তিযোদ্ধার সন্তান বা সন্তানের সন্তানদের জন্য; ৩ শতাংশ বিভাগীয় এবং জেলা সদরের বাইরের শিক্ষার্থীদের জন্য; ২ শতাংশ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধস্তন দফতরসমূহ এবং উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে কর্মরত শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারী ও নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের গভর্নিং বডির সদস্যদের সন্তানদের জন্য; ০.৫ শতাংশ বাংলাদেশ ক্রীড়া শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের (বিকেএসপি) জন্য এবং ০.৫ শতাংশ প্রবাসীদের সন্তানদের জন্য সংরক্ষিত থাকবে। উপযুক্ত কোটায় যদি প্রার্থী না পাওয়া যায়, তবে এ আসন কার্যকর থাকবে না।

ধারা ৫.৫.২-এ বলা হয়েছে, ঢাকা মেট্রোপলিটন এলাকায় অবস্থিত এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো শিক্ষার্থী ভর্তির ক্ষেত্রে পাঁচ হাজার টাকার অতিরিক্ত অর্থ আদায় করতে পারবে না।

নীতিমালার শর্ত অনুযায়ী, শতভাগের বাইরে ১১ শতাংশ কোটা রাখা অবৈধ। রাখতে হলে শতভাগের ভেতরে রাখতে হবে।

অভিযোগ রয়েছে, ভর্তির ক্ষেত্রে পাঁচ হাজার টাকার অতিরিক্ত অর্থ না নেয়ার বিধান থাকলেও ভিকারুননিসা ভর্তির সময় আট হাজার ৩০০ টাকা নিচ্ছে। এ ছাড়া অনুপস্থিতির জন্য নেয়া হয় ৫০ টাকা এবং ৩০ টাকা। কিন্তু ব্যক্তিগত অসুস্থতার কারণে ক্লাসে অনুপস্থিত থাকাটা স্বাভাবিক। তবে এ জন্য কোনো কারণ না দেখিয়ে অনুপস্থিতি জরিমানা অবৈধ। এ কারণে রিট আবেদন করা হয়েছে।

আবেদনে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সিনিয়র সচিব, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ড ঢাকার চেয়ারম্যান, ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের অ্যাডহক কমিটির চেয়ারম্যান ও অধ্যক্ষকে বিবাদী করা হয়েছে।



আমার বার্তা/৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৯/জহির


আরো পড়ুন