শিরোনাম :

  • সন্ধ্যার মধ্যেই আঘাত হানবে ‘গুলাব’, সতর্কতা জারিকরোনা পরীক্ষায় শাহজালালে বসল পিসিআর ল্যাবট্রেনের ছাদে হত্যার ঘটনায় গ্রেপ্তার ৫চার অপহরণকারীকে হত্যা করে প্রকাশ্যে ঝুলিয়ে রাখল তালেবান
হাজিরা দিতে গিয়ে পরিমণির কাছে
দ্বিতীয় ও তৃতীয় দফা রিমান্ড মঞ্জুর করায় ক্ষমা চেয়েছেন দুই বিচারক !
১৫ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ১০:৪৯:১৩
প্রিন্টঅ-অ+

ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক দেবব্রত বিশ্বাস এবং আতিকুল ইসলাম ক্ষমা প্রার্থনার আবেদন করে পৃথক পৃথকভাবে দুটি লিখিত ব্যাখ্যা জমা দিয়েছেন।


মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে দায়ের করা মামলায় চিত্রনায়িকা পরীমনির দ্বিতীয় ও তৃতীয় দফা রিমান্ড মঞ্জুর করায় হাইকোর্টে ক্ষমা চেয়েছেন দুই বিচারক।


ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক দেবব্রত বিশ্বাস এবং আতিকুল ইসলাম এই সপ্তাহে সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেলের কার্যালয়ে ক্ষমা প্রার্থনার আবেদন করে পৃথক পৃথকভাবে দুটি লিখিত ব্যাখ্যা জমা দিয়েছেন।


এর আগে বুধবার (৮ সেপ্টেম্বর) চিত্রনায়িকা পরীমনিকে তিন দফা রিমান্ডে নেওয়ার ঘটনায় প্রশ্ন তুলে হাইকোর্ট দুই ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে ব্যাখ্যা চান। পরবর্তী ১০ দিনের মধ্যে তাদের ব্যাখ্যা জমা দিতে বলা হয়েছিল। 


হাইকোর্ট বলেছেন, মানবাধিকার সংগঠন আইন ও সালিশ কেন্দ্র (আসক) -এর আবেদনের শুনানিতে সন্তোষজনক ব্যাখ্যা দিতে ব্যর্থ হলে দুই ম্যাজিস্ট্রেটকে আদালতে হাজির হতে হবে।


এর আগে গত ২৯ আগস্ট মাদক মামলায় আটক চিত্রনায়িকা পরীমনিকে বারবার রিমান্ডে নেওয়ার বৈধতা নিয়ে হাইকোর্টের স্বতঃপ্রণোদিত আদেশ প্রার্থনা করে একটি আবেদন করা হয়।


পরে পরীমনিকে বারবার রিমান্ডে নেওয়ার বিষয়ে ব্যাখ্যা দিতে এ সংক্রান্ত নথি ও তদন্ত কর্মকর্তাকে তলব করেন হাইকোর্ট। ১৫ সেপ্টেম্বর শুনানির দিন নির্ধারণ করা হয়।


এছাড়া মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এবং পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি)  পরিদর্শক কাজী গোলাম মোস্তফাকেও ১৫ সেপ্টেম্বর (আজ) মামলার নথিসহ (কেস ডকেট) আদালতে হাজির হতে বলা হয়।


গত ৪ আগস্ট বিকেলে বনানীর ১২ নম্বর রোডের পরীমনির বাসায় অভিযান পরিচালনা করে র‍্যাব। এ সময় বাসা থেকে সাড়ে ১৮ লিটার বিদেশি মদ, চার গ্রাম আইস, এক স্লট এলএসডি এবং একটি পাইপ জব্দ করা হয়। ওই ঘটনায় র‍্যাব-১ এর কর্মকর্তা মো. মজিবর রহমান মাদক আইনে একটি মামলা করেন।


ওই মামলায় গত ৫ আগস্ট পরীমনির চার দিনের ও গত ১০ আগস্ট দ্বিতীয় দফায় দুই দিনের রিমান্ডে পাঠান আদালত। ওই রিমান্ড শেষে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়। পরবর্তীকালে মামলায় তৃতীয় দফা রিমান্ড আবেদনে গত ১৯ আগস্ট পরীমনির জামিনের আবেদন নামঞ্জুর করে আদালত ১ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।


ওই রিমান্ড শেষে গত ২১ আগস্ট পরীমনিকে কারাগারে পাঠানো হয়।


এরপর মঙ্গলবার (৩১ আগস্ট) ঢাকা মহানগর দায়রা জজ কে এম ইমরুল কায়েস শুনানি শেষে তার জামিন মঞ্জুর করেন। জামিনের কাগজপত্র কারাগারে পৌঁছানোর পর পরদিন সকালে ২৭ দিন পর পরীমনি কারাগার থেকে মুক্তি পান। 


বিস্তারিত আসছে .......

আরো পড়ুন