শিরোনাম :

  • জবানবন্দিতে বুলুসহ ১৫ বিএনপি নেতার নাম পেয়েছে পুলিশ উখিয়ায় রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সন্ত্রাসীদের গুলিতে নিহত ২দুই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষ, নিহত ২ আইসিসির সেরা হওয়ার দৌড়ে বাংলাদেশের নাসুম
সাবেক সহকারী সচিবের অত্যাচারে দিশেহারা একটি পরিবার
নিজস্ব প্রতিবেদক
২৮ ডিসেম্বর, ২০২১ ১৭:০৫:১৩
প্রিন্টঅ-অ+

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সাবেক সহকারী সচিব অবসরপ্রাপ্ত মল্লিক নাজিরুজ্জামানের বিরুদ্ধে অনিয়ম-দুর্নীতির মাধ্যমে সম্পদ অর্জন ও অন্যের সম্পত্তি ভোগ দখলে জাল-জালিয়াতি ও পেশি শক্তি ব্যবহারের অভিযোগ উঠেছে।


সূত্র জানিয়েছে, কিছু দিন আগে তিনি চাকরি থেকে অবসরে গেছেন। নানা অনিয়ম দুর্নীতির মাধ্যমে তিনি এখন পাহাড় সমান সম্পদের মালিক হয়েছেন। রাজধানীর উত্তরা এলাকায় রয়েছে তার একাধিক ফ্ল্যাট, একাধিক বাড়ি, দোকান, নামে-বেনামে কোটি কোটি টাকার সম্পদ।


ব্যাংকে রয়েছে বিপুল পরিমান নগদ অর্থ। এছাড়া তিনি বিদেশে মিশনে চাকরিকালীন নাজিরুজ্জামান মল্লিক মিথ্যা তথ্য দিয়ে দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করে নিজ স্ত্রীকে লন্ডনে স্থায়ীভাবে বসবাসের সুযোগ করে দিয়েছেন।


আরো অভিযোগ পাওয়া গেছে, নাজিরুজ্জামান মল্লিক থানায় ও আদালতে রাজধানীর ওয়ারি এলাকার আক্তারুজ্জামান ও আবুল বাশারের পরিবারের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগে মামলা দায়ের করে দীর্ঘ কয়েক বছর যাবত বাস্তু-ভিটাচ্যুত করে রেখেছেন। হুমকি ধমকি দিয়ে তাদের হয়রানি করছেন নিয়মিত। জানা গেছে, আক্তারুজ্জামান সম্পর্কে তার শ্বশুর বাড়ির দিক থেকে আত্মীয় হন। তাদেরকে একের পর এক হয়রানিমূলক মামলা দিয়ে নাজেহাল করছেন নাজিরুজ্জামান। শ্বশুর বাড়ির পুরো সম্পত্তি ভোগ করতে তিনি আক্তারুজ্জামান ও তার স্বজনদের বহু দিন যাবত হয়রানি করছেন।


পাশাপাশি প্রভাবশালী ব্যক্তিদের নাম ভাঙিয়ে অসহায় পরিবারটিকে হুমকি-ধমকি দিচ্ছেন। নিরীহ আক্তারুজ্জামান গংদের ফাঁসাতে আদালত ও উত্তরা পশ্চিম থানায় একাধিক অভিযোগ দেন নাজিরুজ্জামান। কিন্তু মিথ্যার আশ্রয় নিয়ে করা সেসব অভিযোগের কোন সত্যতা পায়নি পুলিশ। মিথ্যা অভিযোগ সংক্রান্ত প্রতিবেদন আদালতে জমাও দিয়েছে পুলিশ। এর দ্বারা প্রমাণ হয় যে নাজিরুজ্জামান নিজ স্বার্থ হাসিলের উদ্দেশে আক্তারুজ্জামান পক্ষকে ফাঁসানোর পায়তারা করছেন।


জানা গেছে, নাজিরুজ্জামানের চাপে পড়ে আক্তারুজ্জামান গং কিছু সম্পত্তি লিখে দেন। জমি ক্রয় বাবদ আক্তারুজ্জামানদের কয়েকটি চেক দিলেও ব্যাংক থেকে সেই চেক ফিরিয়ে দেওয়া হয়। তারা জমি লিখে দিয়ে কোন টাকা পাননি। উল্টো সম্পত্তি হাতানোর লক্ষ্যে আক্তারুজ্জামান গং ৩০ লাখ টাকা ধার নিয়েছে বলে মিথ্যা অভিযোগ তুলেন নাজিরুজ্জামান। যদিও পুলিশ তদন্ত করে পেয়েছে যে তারা কোন টাকা ধার নেয়নি।


শুধু এই একটি ঘটনাই নয়, সাবেক এই আমলা প্রভাশালী ব্যক্তিদের নাম ভাঙিয়ে আরো অনেকের সম্পত্তি দখল করেছেন বলে অভিযোগ আছে। ওই ভুক্তভোগী পরিবারটি নাজিরুজ্জামানের অত্যাচার থেকে রক্ষায় প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন এবং দুর্নীতি দমন কমিশনের নজরে আনার দাবি জানিয়েছেন।

আরো পড়ুন