শিরোনাম :

  • রাজধানীর উত্তরখানে আগুনে একই পরিবারের ৮ জন দগ্ধ ভারতে আঘাত হেনেছে ঘূর্ণিঝড় তিতলিবাবরসহ ১৯ জনের মৃত্যুদণ্ড, তারেকসহ ১৯ জনের যাবজ্জীবনরায়কে ঘিরে ঢাকায় ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায় আজ
থাই ফলে সেজেছে স্টল
নিজস্ব প্রতিবেদক :
২৭ মার্চ, ২০১৯ ১৫:১৭:৩৬
প্রিন্টঅ-অ+

থাই আম, রাম বুটান, অ্যাভাকাডো, চেরি ম্যাঙ্গো, লঙ্গনসহ নানা ধরনের ফলে সেজেছে স্টলগুলো। এছাড়া রয়েছে ড্রাই ফ্রুটস বা ডিহাইড্রেড করা শুকনা ফল। এ রকম ১৫ থেকে ২০ জাতের ফল নিয়ে বসেছে থাইল্যান্ডের থাই বিমস্টেক ইন্টারন্যালশনাল কোম্পানি লিমিটেডের স্টল।


বুধবার রাজধানীর প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও হোটেলে শুরু হয়েছে চার দিনব্যাপী থাইল্যান্ড ট্রেড ফেয়ার : টপ থাই ব্র্যান্ডস মেলা। থাইল্যান্ডের থাই বিমস্টেক ইন্টারন্যাশনাল কোম্পানি লিমিটেড ও বাংলাদেশের ফ্রেশ হাইজেনিক ফুড যৌথভাবে এই স্টল দিয়েছে। এতে স্থান পেয়েছে থ্যাইল্যান্ডের ফলসহ নানা ধরনের পণ্য।


এসব ফল সর্বনিম্ন ৪০০ থেকে ১ হাজার ২০০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে বলে জানান স্টলের মো. আবু নাঈম। তিনি বলেন, এই স্টলে ড্রাই ফ্রুটস. গ্রিন ফ্রুটস ও বেবি ফ্রুটস পাওয়া যাচ্ছে। ড্রাই ফ্রুটস বা শুকনা ফলের মধ্যে রয়েছে ড্রাই চেরি টমেটো, অ্যাপ্রিকোট, কিউই, প্লাম সাকুরা, প্লামস, হানি মেলন, মিষ্টি আম, আনারস, স্টবেরি ইত্যাদি।


গ্রিন ফ্রুটসের মধ্যে রয়েছে মিষ্টি আম, কিউই, রাম বুটান, চেরি, রক মেলন, হানি মেলন, অ্যাভাকাডো, লঙ্গন, পাপায়া, বড় আম, ফুজি অ্যাপেল, ডুরিয়ান। বেবি ফ্রুটসের মধ্যে রয়েছে ডাচি স্টবেরি মিক্সড, ডাচি চেরি, ডাচি ইউগাট স্ট্রবেরি প্রভৃতি।


থাই বিমস্টেক ইন্টারন্যাশনাল কোম্পানির কাছ থেকে বাংলাদেশের ফ্রেশ হাইজেনিক ফুড এবং বুনামি প্রাইভেট লিমিটেড পণ্য আমদানি করে থাকে। বাংলাদেশের এই দুই আমদানিকারক প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে রাজধানীর বিভিন্ন সুপার শপগুলো এসব পণ্য ক্রয় করে। পরে তারা ক্রেতাদের কাছে খুচরা বিক্রি করে। বুনামিবিডিকম (bunamebd.com) থেকেও এসব ফল অনলাইনে অর্ডার করা যায়।


 


এ ছাড়াও মেলায় থাইল্যান্ডের স্বাস্থ্যসেবা, প্রসাধনী, সৌন্দর্য ও সুস্থতা পণ্য, বেডিং, স্পা, বৈদ্যুতিক সরঞ্জাম, স্টেশনারি, গৃহস্থালি পণ্য, তাজা ফল, খাদ্যদ্রব্য, টেক্সটাইল ও ফেব্রিক, অন্তর্বাস, হ্যান্ডব্যাগ, অলঙ্কার, কনফেকশনারি, সজ্জাসংক্রান্ত পণ্য ও শিশু পণ্য পাওয়া যাচ্ছে।


থাই প্রতিষ্ঠান এবং বাংলাদেশি যেসব প্রতিষ্ঠান যারা থাই পণ্য আমদানি করছে অথবা থাই প্রতিষ্ঠানের এজেন্ট হিসেবে ব্যবসায় জড়িত আছে, তারা এই থাই মেলায় অংশ নিয়েছে। এতে মোট ৭৬টি প্রতিষ্ঠান তাদের পণ্য প্রদর্শন করছে। মেলা চলবে ৩০ মার্চ পর্যন্ত। প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত মেলা দর্শনার্থীদের জন্য উন্মুক্ত থাকবে।


 


আমার বার্তা/২৭ মার্চ ২০১৯/রিফাত

আরো পড়ুন