শিরোনাম :

  • বেসরকারি চাকরিজীবীরাও ফ্ল্যাট পাবে : প্রধানমন্ত্রী আজ বিশ্ব যুব দক্ষতা দিবসআকাশ মেঘলা, বৃষ্টি অব্যাহত থাকতে পারে সংসদে এরশাদের জানাজা সম্পন্ন মঈন-রশিদ ধর্মীয় কারণে শিরোপা উদযাপন করলেন না
দামি শেয়ারের দরপতনে বাড়লো সূচক
নিজস্ব প্রতিবেদক :
০১ এপ্রিল, ২০১৯ ১৬:৪২:৩৪
প্রিন্টঅ-অ+


পতন কাটিয়ে সোমবার দেশের শেয়ারবাজারে ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতা দেখা দিলেও দামের দিক থেকে শীর্ষে থাকা প্রতিষ্ঠানগুলোর শেয়ারের দরপতন হয়েছে। ফলে বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বাড়ার পরও প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) এবং অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) মূল্য সূচকের বড় উত্থান হয়নি।

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে তালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলোর মধ্যে ১৩টির শেয়ার দাম হাজার টাকারও উপরে রয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে- ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকো বাংলাদেশ, রেকিট বেনকিজার, বার্জার পেইন্ট, মুন্নু জুট স্টাফলার্স, ইস্টার্ন লুব্রিকেন্ট, রেনউইক যজ্ঞেশ্বর, গ্ল্যাস্কোস্মিথক্লাইন, মেরিকো বাংলাদেশ, নর্দান জুট, লিন্ডে বিডি, রেনেটা, বাটা সু এবং লিবরা ইনফিউশন।

দামের দিক থেকে শীর্ষ তালিকায় থাকা এ ১৩টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ৯টির শেয়ার দাম কমেছে। বিপরীতে দাম বেড়েছে ৪টির। শেয়ার দাম বাড়ার তালিকায় রয়েছে-বার্জার পেইন্ট, গ্ল্যাস্কোস্মিথক্লাইন, নর্দান জুট ও বাটা সু। দামি শেয়ারের পাশাপাশি দাম কমার তালিকায় দাপট দেখিয়েছে ব্যাংক খাতও। তালিকাভুক্ত ৩০টি ব্যাংকের মধ্যে ১০টির শেয়ার দাম বেড়েছে। বিপরীতে দাম কমেছে ১২টির। আর ৮টির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে।

অবশ্য দামি শেয়ারগুলোর পাশাপাশি ব্যাংকের শেয়ারের দরপতন হলেও ডিএসইতে লেনদেনে অংশ নেয়া বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বেড়েছে। বাজারটিতে সব খাত মিলে ১৬৩টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট দাম বাড়ার তালিকায় স্থান করে নিয়েছে। বিপরীতে দাম কমেছে ১২৬টির। আর ৫৪টির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে।

বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের এমন দাম বাড়ায় ডিএসইর প্রধান মূল্য সূচক আগের কার্যদিবসের তুলনায় ১১ পয়েন্ট বেড়ে ৫ হাজার ৫০৩ পয়েন্টে উঠে এসেছে। অপর দুটি সূচকের মধ্যে ডিএসই-৩০ আগের দিনের তুলনায় ৪ পয়েন্ট বেড়ে ১ হাজার ৯৭১ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। আর ডিএসই শরিয়াহ সূচক ২ পয়েন্ট বেড়ে ১ হাজার ২৭৭ পয়েন্টে অবস্থান করছে।

সূচকের এ উত্থানের দিনে ডিএসইতে বেড়েছে লেনদেনের পরিমাণ। এতে ছয় কার্যদিবস পর বাজারটিতে লেনদেন ৪০০ কোটি টাকার ঘর স্পর্শ করতে পেরেছে। দিনভর ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ৪২৩ কোটি ৯৭ লাখ টাকা। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয় ৩৬১ কোটি ৫৩ লাখ টাকা। সে হিসাবে আগের কার্যদিবসের তুলনায় লেনদেন বেড়েছে ৬২ কোটি ৪৪ লাখ টাকা।

টাকার অঙ্কে এদিন ডিএসইতে সব চেয়ে বেশি লেনদেন হয়েছে ইউনাইটেড পাওয়ার জেনারেশনের শেয়ার। কোম্পানিটির ৩৬ কোটি ৭৩ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। এর পরেই রয়েছে ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকো। কোম্পানিটির শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৩৫ কোটি ১৬ লাখ টাকার। ২৫ কোটি ৯৩ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেনে এর পরেই রয়েছে গ্রামীণফোন।

লেনদেনে এরপর রয়েছে- ব্র্যাক ব্যাংক, মুন্নু সিরামিক, বাংলাদেশ সাবমেরিন কেবলস, সিঙ্গার বাংলাদেশ, আলিফ ইন্ডাস্ট্রিজ, জেএমআই সিরিঞ্জ এবং ডাচ-বাংলা ব্যাংক।

অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের সার্বিক মূল্য সূচক সিএসসিএক্স ৪২ পয়েন্ট বেড়ে ১০ হাজার ২২১ পয়েন্টে অবস্থান করছে। বাজারটিতে লেনদেন হয়েছে ১৬ কোটি ৭০ লাখ টাকা। লেনদেন হওয়া ২৪০টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ১২৬টির দাম বেড়েছে। বিপরীতে দাম কমেছে ৮০টির। আর দাম অপরিবর্তিত রয়েছে ৩৪টির।



আমার বার্তা/০১ এপ্রিল ২০১৯/জহির


আরো পড়ুন