শিরোনাম :

  • আজ পিকেএসএফ উন্নয়ন মেলার উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী টস জিতে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ যে চ্যানেলে দেখা যাবে বাংলাদেশ-ভারত টেস্ট ম্যাচ সৌদি অ্যারামকোতে প্রথমবারের মতো নারী প্রধান ইসরায়েলি হামলায় গাজায় রক্তবন্যা, ২৪ ফিলিস্তিনি নিহত
ডিএসইর ব্লকের লেনদেন চার ভাগের এক ভাগে নামলো
নিজস্ব প্রতিবেদক :
১২ অক্টোবর, ২০১৯ ১৪:৩২:০১
প্রিন্টঅ-অ+


আগের সপ্তাহের তুলনায় গত সপ্তাহে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) ব্লক মার্কেটে লেনদেনের পরিমাণ কমে চার ভাগের এক ভাগে দাঁড়িয়েছে। সেইসঙ্গে কমছে ব্লকের লেনদেনে অংশ নেয়া প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা। আগের সপ্তাহের তুলনায় গত সপ্তাহে ব্লকে অংশ নেয়া প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা কমেছে ৫টি। বিপরীতে লেনদেন কমেছে ১৫৮ কোটি ৬৬ লাখ ১৭ হাজার টাকা।

গত সপ্তাহে ২৩টি প্রতিষ্ঠান ডিএসইর ব্লক মার্কেটের লেনদেনে অংশ নেয়। এ প্রতিষ্ঠানগুলোর ৭৯ লাখ ৭৪ হাজার ১৪৯টি শেয়ার ৪১ কোটি ৬৫ লাখ ৬ হাজার টাকায় লেনদেন হয়েছে। আগের সপ্তাহে ডিএসইর ব্লকে ৩১ প্রতিষ্ঠানের ৭ কোটি ৪৪ লাখ ৭৭ হাজার ৮৩টি শেয়ার ২০০ কোটি ৩১ লাখ ২৩ হাজার টাকায় লেনদেন হয়।

গত সপ্তাহে ব্লকে লেনদেন হওয়া প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে রয়েছে- স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যাল, সামিট পাওয়ার, ব্যাংক এশিয়া, বিকন ফার্মাসিউটিক্যাল, রেনেটা, ইবনে সিনা, অ্যাপেক্স ফুটওয়্যার, গ্রামীণফোন, আইডিএলসি, নাভানা সিএনজি, ব্র্যাক ব্যাংক, প্রাইম ব্যাংক, এটলাস বাংলাদেশ, স্ট্যান্ডার্ড ইন্স্যুরেন্স, ন্যাশনাল টিউবস, সালভো কেমিক্যাল, এফবিএফআইএফ, জেএমআই সিরিঞ্জ, ইন্দো-বাংলা ফার্মাসিউটিক্যাল, বঙ্গজ, সিএপিএমআইবিবিএলএমএফ, সী পার্ল এবং কেডিএস এক্সেসরিজ।

প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে গত সপ্তাহে ব্লকে সবচেয়ে বেশি টাকার শেয়ার লেনদেন হয় স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালের শেয়ার। কোম্পানিটির ১১ কোটি ৪৭ লাখ ৭৪ হাজার টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। দ্বিতীয় স্থানে থাকা সামিট পাওয়ারের ৯ কোটি ১৯ লাখ ৬০ হাজার টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। ৪ কোটি ২৯ লাখ ৫৯ হাজার টাকার লেনদেনের মাধ্যমে তৃতীয় স্থানে রয়েছে ব্যাংক এশিয়া।

এ ছাড়া বিকন ফার্মাসিউটিক্যালের ৪ কোটি ৭ লাখ ৩৪ হাজার টাকা, রেনেটার ৩ কোটি ৮১ লাখ, ইবনে সিনার ২ কোটি ১৭ লাখ ৮৪ হাজার, এপেক্স ফুটওয়্যারের ১ কোটি ৭২ লাখ ২৫ হাজার, গ্রামীণফোনের ১ কোটি ৬৮ লাখ ৪৬ হাজার, আইডিএলসির ৯৭ লাখ, নাভানা সিএনজির ৪৩ লাখ ২২ হাজার, ব্র্যাক ব্যাংকের ২৯ লাখ ৬১ হাজার, প্রাইম ব্যাংকের ২৮ লাখ ৫ হাজার এবং এটলাস বাংলাদেশের ২৭ লাখ ১৪ হাজার টাকার লেনদেন হয়।

বাকি প্রতিষ্ঠানগুলোর এককভাবে ২০ লাখ টাকার কম লেনদেন হয়েছে। এর মধ্যে- স্ট্যান্ডার্ড ইন্স্যুরেন্সের ১৫ লাখ ৮১ হাজার টাকা, ন্যাশনাল টিউবসের ১৪ লাখ, সালভো কেমিক্যালের ১২ লাখ ৩৩ হাজার, এফবিএফআইএফের ১২ লাখ ১ হাজার, জেএমআই সিরিঞ্জের ১২ লাখ, ইন্দো-বাংলা ফার্মার ৭ লাখ ১৪ হাজার, বঙ্গজের ৬ লাখ ৭৫ হাজার, সিএপিএম আইবিবিএল এমএফের ৫ লাখ ৭২ হাজার, সী পার্লের ৫ লাখ ৩২ হাজার, কেডিএস এক্সেসরিজের ৫ লাখ ১৪ হাজার টাকার লেনদেন হয়।



আমার বার্তা/ ১২ অক্টোবর ২০১৯/রিফাত


আরো পড়ুন