শিরোনাম :

  • নয়াপল্টনে বিএনপির নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ জবানবন্দিতে বুলুসহ ১৫ বিএনপি নেতার নাম পেয়েছে পুলিশ সেনা অভ্যুত্থানবিরোধী বিক্ষোভে উত্তাল সুদান, সংঘর্ষে নিহত ৭দুই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষ, নিহত ২
খাদ্য নিরাপত্তার ক্ষেত্রে নজিরবিহীন বিপর্যয়ের আশঙ্কা
১৬ অক্টোবর, ২০২১ ১১:১২:৫৭
প্রিন্টঅ-অ+

খাদ্য নিরাপত্তার ক্ষেত্রে নজিরবিহীন বিপর্যয় আসতে পারে’ জাতিসংঘের এমন সতর্কতা আর বৈশ্বিক ক্ষেত্রে খাদ্য পণ্যের ব্যাপক মূল্যবৃদ্ধির আশঙ্কার মধ্য দিয়েই পালিত হচ্ছে ‘বিশ্ব খাদ্য দিবস’।


‘ইথিওপিয়া, মাদাগাস্কার, দক্ষিণ সুদান এবং ইয়েমেনে প্রায় পাঁচ লাখ মানুষ দুর্ভিক্ষের মতো পরিস্থিতিতে আছে। সাম্প্রতিক মাসগুলোতে বুরকিনা ফাসো এবং নাইজেরিয়ার ঝুঁকিপূর্ণ জনগোষ্ঠীও প্রায় একই পরিস্থিতিতে পড়েছে,’ এক বিবৃতিতে এ তথ্য দিয়েছে জাতিসংঘ।


এমন দুর্ভিক্ষময় পরিস্থিতিতে থাকা অন্তত চার কোটি মানুষকে সহায়তার জন্য দ্রুত তহবিল গঠনের আহবান জানিয়েছে সংস্থাটি।


যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক চ্যারিটি সংস্থা দা হাঙ্গার প্রজেক্টের তথ্য অনুসারে, প্রায় ৬৯ কোটি মানুষ বিশ্বব্যাপী ভয়াবহ দরিদ্রতার সঙ্গে বাস করছে, আর ৮৫ কোটি মানুষ দরিদ্রতার ঝুঁকিতে আছে কোভিডের কারণে। আবার এর মধ্যে ৬০ শতাংশই নারী।


খাদ্যের আন্তর্জাতিক বড় প্রতিষ্ঠান ক্রাফট হেইনজ সতর্ক করে বলেছে যে, মহামারি-পরবর্তী পরিস্থিতি আর মুদ্রাস্ফীতির কারণে ‘খাদ্যের উচ্চমূল্যের সঙ্গেই খাপ খাইয়ে নিতে হবে’।


ভারতের মুম্বাইয়ের রাহ ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি সারিকা কুলকার্নি ক্রাফট হেইনজের প্রধান মিগুয়েল প্যাট্রিসিওর সঙ্গে একমত যে খাদ্যমূল্য বেশিই থাকবে। কুলকার্নি ও রাহ ফাউন্ডেশন ভারতের ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর মানুষদের জীবনযাত্রার মান উন্নয়নের জন্য একযোগে কাজ করছে।


মহামারির কারণে অনেকে দেশেই শস্য থেকে আরম্ভ করে ভোজ্যতেলসহ কাঁচামালের উৎপাদন কমেছে। মূলত করোনাভাইরাস নিয়ন্ত্রণে নেয়া পদক্ষেপের পাশাপাশি অসুস্থতা, স্বল্প উৎপাদন ও বিতরণের কারণে এমন পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে।


যেহেতু অর্থনীতিতে এমন পণ্যের সরবরাহ পুনরায় শুরু হয়েছে, অনেকেই হয়তো ক্রমবর্ধমান চাহিদা অনুযায়ী তা করতে পারছে না, যা দাম বাড়াতে অবদান রাখছে। পাশাপাশি উচ্চ বেতন আর জ্বালানি মূল্যও উৎপাদনকারীদের ওপর বোঝা হয়ে দাঁড়াচ্ছে।


‘দামের সঙ্গে সরাসরি সম্পর্ক আছে চাহিদা ও সরবরাহের। যেখানে জনসংখ্যা আর খাদ্য চাহিদা ক্রমাগত বাড়ছে আবার পানির স্বল্পতা, মাটির গুনাগুণ কমে যাওয়া, জলবায়ু পরিবর্তন, নতুন প্রজন্মের কৃষিকাজে অনিহাসহ নানা কারণে চাষের জমি কমে যাচ্ছে,’ বলছিলেন দারিদ্র দূরীকরণ বিশেষজ্ঞ কুলকার্নি।


তিনি আরও বলেন, ‘পরিবারের সদস্যদের খাদ্যের যোগান দিতে নারীদের মরিয়া চেষ্টা চালাতে হয়। এর মধ্যে খাদ্যের জন্য যৌনতা যেমন আছে, তেমনি অনেককে বাল্যবিবাহের শিকার হতে হচ্ছে।’


ফার্ম রেডিও ইন্টারন্যাশনালের প্রোগ্রাম ডেভেলপমেন্টের সিনিয়র ম্যানেজার কারেন হ্যাম্পসন বলছেন, “খাদ্য নিরাপত্তাহীনতার মধ্যে থাকা ব্যক্তিদের মধ্যে আছে ছোট মাপের কৃষকরাও। দাম বাড়ার এখনকার পরিস্থিতি তাদের দু মুখো তলোয়ারের মতো- একদিকে কৃষক পরিবারগুলোকে তারা যা উৎপাদন করে না, সেসব খাবার কিনতে হয় এবং সে কারণে তাদের ব্যয় অনেক বেড়েছে যাচ্ছে। এটি তাদের ক্ষুধা ও অপুষ্টির দিকে ঠেলে দিচ্ছে।’


উন্নত বিশ্বের মানুষ হয়তো বিলাসদ্রব্য কমাতে পারে বা বিদেশে ছুটিতে যাওয়া কমাতে পারে বা তাদের বাজেটও কাটছাঁট করতে পারে। কিন্তু এর সুফল সরাসরি অনুন্নত বিশ্বের মানুষ পায় না, বিশেষ করে যারা খাদ্যের জন্য যৌনতাকেও বেছে নিতে বাধ্য হয়।


বৈশ্বিক খাদ্যমূল্য বৃদ্ধির চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় জাতিসংঘ, আঞ্চলিক সংস্থা ও সরকারগুলো মানুষকে দরিদ্রতা থেকে বের করে আনতে প্রচলিত উপায়গুলো দেখতে পারে। আর বহু সাহায্য সংস্থা বিশ্বব্যাপী জোর দিয়েছে সৃষ্টিশীল ধারণার ওপর।


খাদ্য ও কৃষি সংস্থা (এফএও) মহাপরিচালক বলছেন, কৃষি খাদ্য পদ্ধতিতে সহায়তা, দীর্ঘমেয়াদী সহায়তার মাধ্যমে পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে হবে এবং নষ্ট করার মতো কোন সময়ই এখন নেই।


কুলকার্নি বলছেন, জলবায়ু সহনশীল কৃষির ব্যবস্থা করা, বৃষ্টির পানি সংরক্ষণ করে পানির স্বল্পতা দূর করা, বীজ ও অন্য দরকারি কাঁচামালের দাম কমানো এবং নিজের জন্য শস্য রাখতে কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করার ব্যবস্থা নিতে হবে।


তারা এজন্য তরুণদের সার্বক্ষণিক কৃষিকাজে জড়িত হতেও উদ্বুদ্ধ করছেন বলে জানান।


বিশ্বব্যাপী সবাই হয়তো চিন্তা করছে যে কীভাবে পণ্যের ক্রমবর্ধমান মূল্য তারা সামলাবে, তখন অধিকারকর্মীরা আশা করছে একটি সংকট হয়তো বিশ্ব এড়াতে পারবে যদি বিশ্ব নেতারা দ্রুত কোন পদক্ষেপ নেয়।


কুলকার্নি বলছেন, এখনও সমস্যা চিহ্নিত করে পদক্ষেপ নেয়ার সময় আছে।


সূত্র : বিবিসি


 

আরো পড়ুন