শিরোনাম :

  • দুবাই পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী মওলানা ভাসানীর ৪৩তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ বাঙালি জাতিসত্তার বিকাশে ভাসানীর গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে : প্রধানমন্ত্রী ব্যক্তি স্বার্থের ঊর্ধ্বে জাতীয় স্বার্থকে প্রাধান্য দিতেন ভাসানী : রাষ্ট্রপতি রাজধানীতে দরজা ভেঙে সাংবাদিকের মরদেহ উদ্ধার
শিক্ষার সকল কাজে সেবা নিশ্চিত করতে হবে : শিক্ষামন্ত্রী
নিজস্ব প্রতিবেদক :
২৪ জুন, ২০১৯ ১৭:২০:১৫
প্রিন্টঅ-অ+


শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সকল কার্যক্রম বিকেন্দ্রীকরণ করার আহ্বান জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। তিনি বলেছেন, শিক্ষার সকল কাজে সেবা নিশ্চিত করতে হবে। শুধু শিক্ষা সপ্তাহে সেবা দেয়া হবে অন্য সময়ে সেবার নামে হয়রানির শিকার হয়ে ফিরে যেতে হবে তা বন্ধ করতে হবে।

রোববার মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতরে (মাউশি) শিক্ষা সেবা সপ্তাহ (২৪ থেকে ৩০ জুন) উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এ আহ্বান জানান তিনি।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, মাউশির সঙ্গে সারাদেশের অনেক মানুষ জড়িত, তারা প্রতিনিয়ত সেবা পেতে এখানে ছুটে আসছেন। অনেকে এসে সেবার নামে বিভিন্ন টেবিলে দৌড়ায়। সেবার নামে ভোগান্তি পেয়ে তারা ফিরে যাচ্ছেন, এটি বন্ধ করতে হবে। শুধু শিক্ষা সপ্তাহে সেবা পাবে আর অন্য সময়ে হয়রানি হবে সেটি কাম্য নয়। সকলে যে সেবা দিতে দায়িত্ব নিয়েছেন সেই মানসিকতা তৈরি করতে হবে। শিক্ষকরা যদি যদি সঠিক সেবা পান তবে তারাও নিজ প্রতিষ্ঠানে গিয়ে সঠিক দায়িত্বটি পালন করার চেষ্টা করবেন।

মন্ত্রী বলেন, শিক্ষা সেবা সপ্তাহে জনমানুষের সেবার বিষয়টি নিশ্চিত করতে হবে। শুধু শিক্ষা সপ্তাহে সেবা পাবে আর অন্য সময়ে হয়রানির শিকার হবে এটি হতে পারে না। শিক্ষার মান বাড়াতে হলে সেবা দেওয়ার বিষয়টি সকলকে নিশ্চিত করতে হবে। হয়রানি কমাতে শিক্ষার সকল কার্যক্রম বিকেন্দ্রীকরণের আহ্বান জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি মহিবুল হাসান চৌধুরী বলেন, মাউশির কার্যক্রম আরো বেশি অনলাইনভিত্তিক করতে হবে। তবেই সেবা প্রত্যাশীদের দূর-দূরান্ত থেকে এসে হয়রানির শিকার হতে হবে না। খুব সহজেই তারা সেবা পাবেন। এর মাধ্যমে অনিয়ম কমে মানসম্মত শিক্ষা সেবা বাস্তবায়ন করা সম্ভব হবে।

এর আগে শিক্ষা উপমন্ত্রীর নেতৃত্বে মাউশির কর্মকর্তা-কর্মচারীদের একটি র্যালি মাউশিতে প্রবেশ করে। এরপর শিক্ষা সেবা সপ্তাহ সেবা স্টল উদ্বোধন করা হয়।

অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সিনিয়র সচিব মো. সোহরাব হোসেন, কারিগরি ও মাদরাসা বিভাগের সচিব (ভারপ্রাপ্ত) জাকির হোসেন ভূইয়া, অধ্যাপক সৈয়দ মো. গোলাম ফারুক, শিক্ষা মন্ত্রাণালয় ও মাউশির কর্মকর্তা-কর্মচারী প্রমুখ।



আমার বার্তা/২৪ জুন ২০১৯/জহির


আরো পড়ুন