শিরোনাম :

  • আজ আন্তর্জাতিক আদিবাসী দিবস আজ ঢাকার তাপমাত্রা বাড়তে পারে অন্ধ্রপ্রদেশে কোভিড সেন্টারে অগ্নিকান্ডে নিহত ৭ ব্রাজিলে করোনায় মৃতের সংখ্যা লাখ ছাড়াল
প্রাথমিকে শিক্ষাবর্ষ দুই মাস বাড়ানোর পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে : গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী
নিজস্ব প্রতিবেদক :
২৭ জুলাই, ২০২০ ১৫:৪৭:৩৪
প্রিন্টঅ-অ+


প্রাথমিক স্তরের শিক্ষার্থীদের শিক্ষাবর্ষের মেয়াদ দুই মাস বাড়িয়ে আগামী বছরের ফেব্রুয়ারিতে শেষ করার পরিকল্পনা হাতে নেয়া হয়েছে। করোনা পরিস্থিতির মধ্যে অনির্ধারিত ছুটির ক্ষতি পুষিয়ে নিতে এমন পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন।

সোমবার এডুকেশন রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ (ইরাব) আয়োজিত 'করোনায় প্রাথমিক শিক্ষার চ্যালেঞ্জ ও উত্তরণে করণীয়' শীর্ষক এক ভার্চুয়াল সেমিনারে তিনি এমন কথা বলেন।

সেমিনারে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো. আকরাম আল হোসেন, প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক মো. ফসিউল্লাহ, গণসাক্ষরতা অভিযানের নির্বাহী পরিচালক রাশেদা কে চৌধুরী। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন ইরাবের সাধারণ সম্পাদক নিজামুল হক। মূল প্রবন্ধ পাঠ করেন ইরাবের সাংগঠনিক সম্পাদক মীর মো. জসিম।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, করোনা পরিস্থিতির কারণে গত চার মাস ধরে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা হয়েছে। ক্ষতি পুষিয়ে নিতে আমরা নানা ধরনের পরিকল্পনা হাতে নিয়েছি। দীর্ঘ দিন বিদ্যালয় বন্ধ থাকায় চলতি বছরের সিলেবাস সংক্ষিপ্ত করা হচ্ছে। প্রাথমিক শিক্ষার্থীদের পাঠ্যবইয়ের গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায়ের অংশ থেকে এ সিলেবাস তৈরি করা হবে, গুরুত্ব কম হলে তা কমিয়ে আনার কাজ শুরু করা হয়েছে।

তিনি বলেন, আগামী সেপ্টেম্বর থেকে প্রাথমিক বিদ্যালয় খোলার চিন্তাভাবনা রয়েছে। যদি এ সময়ের মধ্যে সংক্ষিপ্ত সিলেবাস শেষ করা সম্ভব হয় তবে চলতি বছরের ডিসেম্বরে ক্লাস মূল্যায়নের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের পরবর্তী ক্লাসে উন্নীত হবে। আর যদি তা সম্ভব না হয় তবে চলতি বছরের শিক্ষাবর্ষ দুই মাস বাড়িয়ে তা আগামী ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত নেয়ার পরিকল্পনা তৈরি করা হয়েছে।

মন্ত্রী বলেন, আমরা ইতোমধ্যে টেলিভিশনে পাঠদান কার্যক্রম শুরু করেছি। এর মাধ্যমে অনেক শিক্ষার্থী পড়ালেখার মধ্যে ব্যস্ত থাকছে। রেডিও ক্লাসের জন্য রেকডিং কাজ শুরু করা হয়েছে। সকল শিক্ষার্থীকে এর আওতায় আনতে দ্রুত রেডিও ক্লাস সম্প্রচার শুরু করা হবে।

পঞ্চম শ্রেণির সমাপনী পরীক্ষা বাতিলের পরিকল্পনা আপাতত নেই। এই পরীক্ষা আরও যুগোপযোগী করার পরিকল্পনা রয়েছে সরকারের। সে বিষয়টি নিয়ে কাজ শুরু করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন।

প্রতিমন্ত্রী জাকির হোসেন বলেন, আগামী ৬ আগস্ট পর্যন্ত শিক্ষাপ্রতিতষ্ঠান বন্ধ আছে। প্রায় সাড়ে ৫ মাস শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ। এই দীর্ঘ দিন বন্ধের যে ক্ষতি হয়েছে প্রাথমিক শিক্ষার তা কাটিয়ে উঠতে আমাদের বেশকিছু পরিকল্পনা রয়েছে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান দ্রুত খোলার সুযোগ এলে এক রকম চিন্তা, আরও বেশি দিন বন্ধ রাখতে হলে আরেক রকম চিন্তা করছি। সেপ্টেম্বরের মধ্যে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান না খোলা হলে আগামী শিক্ষাবর্ষ দুই মাস বাড়ানো হতে পারে।

তিনি বলেন, পঞ্চম শ্রেণির পিইসি-সমাপনী পরীক্ষা বন্ধ করার সিদ্ধান্ত এখন পর্যন্ত নেয়া হয়নি। এটিকে আরও যুগোপযোগী করে তোলা হবে। এ জন্য একটি শিক্ষা বোর্ড তৈরি করার কাজ শুরু হয়েছে। বোর্ড তৈরি হয়ে গেলে তার মধ্যে প্রতি বছর সমাপনী পরীক্ষা আয়োজন ও ফলাফল প্রকাশ করা হবে। ঈদ-উল-আজহার পর শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা হবে বলে বিভিন্ন মাধ্যমে গুজব ছড়ানো হচ্ছে। বিদ্যালয় খোলার এমন কোনো সিদ্ধান্ত এখন পর্যন্ত সরকারের নেই। সরকার সিদ্ধান্ত নিলে সেটা বিজ্ঞপ্তি দিয়ে জানিয়ে দেবে।

অনুষ্ঠানে ইরাবের সভাপতি মুসতাক আহমদের সভাপত্বিতে আরও উপস্থিতি ছিলেন দেশের বিভিন্ন প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক, অভিভাক, ইরাবের নেতৃবৃন্দ প্রমুখ।



আমার বার্তা/২৭ জুলাই ২০২০/জহির


আরো পড়ুন