শিরোনাম :

  • সাহারা খাতুনের মরদেহ ঢাকায় আনা হয়েছে আজ দেশের ১৯ অঞ্চলে ঝড়-বৃষ্টি হতে পারে আজ বিশ্ব জনসংখ্যা দিবস তুরস্কের হাজিয়া সোফিয়ায় ৮৬ বছর পর আজানের ধ্বনি
নিউজার্সিতে ভোট জালিয়াতির মামলায় দুই বাংলাদেশি গ্রেফতার
আমার বার্তা ডেস্ক:
২৯ জুন, ২০২০ ১৪:৫৩:৩২
প্রিন্টঅ-অ+
গ্রেফতার দুই বাংলাদেশি : সেলিম খালিক ও আবু রেজিয়েন (ছবি:সংগৃহীত)


ভোট জালিয়াতির অভিযোগে নিউজার্সিতে দুইজন বাংলাদেশীকে গ্রেফতার করেছে এফবিআই। নিউজার্সির প্যাটারসন সিটি কাউন্সিল নির্বাচনে ভোট গণনার সময় ডাকযোগে আনা ব্যালটের মাধ্যমে শাহীন খালিক নামক এক প্রার্থীর বিজয় ত্বরান্বিত করার ক্ষেত্রে প্রতারণার মামলা হয়েছে তাদের বিরুদ্ধে।গ্রেফতার দুই বাংলাদেশি হল  প্রার্থী শাহীন খালিকের বড়ভাই সেলিম খালিক (৫১) এবং তার সমর্থক আবু রেজিয়েনকে (২১)।



গত ১৯ মে অনুষ্ঠিত এই নির্বাচনে বাংলাদেশি অধ্যুষিত দুই নম্বর ওয়ার্ডের বিদায়ী কাউন্সিলম্যান শাহীন খালিকের বিরুদ্ধে লড়েন মোহাম্মদ আকতারুজ্জামান। ভোট গণনা শেষে শাহীনকে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়। তিনি পান ১৭২৯ ভোট। অপরদিকে দ্বিতীয় স্থান অধিকারী মোহাম্মদ আকতারুজ্জামান পান ১৭২১ ভোট। কিন্তু প্রতিদ্বন্ধী প্রার্থী নির্বাচন কমিশনের ফলাফলকে চ্যালেঞ্জ দিয়ে পুনরায় গণনার আবেদন জানান। দ্বিতীয় বারের গণনায় আকতারুজ্জামানের ভোট বাড়ে। তবে শাহীন খালিক এগিয়ে থাকেন ৩ ভোটে। এরপর আবারো গণনার অনুরোধ জানালে তৃতীয় দফায় উভয়ের সমান ভোট হয়।



উদ্ভূত পরিস্থিতির পরিপ্রেক্ষিতে মামলার উদ্ভব হওয়ায় নির্বাচন কমিশন দ্বিধাদ্বন্দ্বে থাকার মধ্যেই নিউজার্সি স্টেট এটর্নী জেনারেল অফিস থেকে ভোট নিয়ে প্রতারণা, ভোট ডাকাতি এবং ভোট গণনার ফলাফল নিয়ে কারচুপির তদন্ত শুরু হয়। তদন্তের পরই গত ২৫ মে শাহীন খালিকের বড়ভাই সেলিম খালিক (৫১) এবং তার সমর্থক আবু রেজিয়েনকে (২১) গ্রেফতার করা হয়।

এটর্নী জেনারেল গ্রেফতার অভিযানের তথ্য প্রকাশকালে বলেছেন, একইসাথে একই সিটির আরও দুই ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়েছে ভোট জালিয়াতির অভিযোগে। তাদের মধ্যে একজন হলেন বর্তমান কাউন্সিলম্যান মাইকেল জ্যাকসন (৪৮) এবং আরেকজন নির্বাচিত কাউন্সিলম্যান আলেক্স ম্যান্ডেজ (৪৫)। এর মধ্য দিয়ে আমরা সকলকে জানাতে চাই যে, আপনি যদি নিউজার্সির কোনো পর্যায়ের নির্বাচনের ফলাফল জালিয়াতি/প্রতারণার মাধ্যমে পরিবর্তন করতে চান, তাহলে অবশ্যই আমরা তা বরদাশত করবো না। অবশ্যই আপনাকে বিচারের সম্মুখীন হতে হবে। গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানে মানুষের বিদ্যমান আস্থায় সন্দেহের বা প্রশ্নের উদ্রেক ঘটতে পারে-এমন কোনো আচরণকেই আমরা সহ্য করবো না।’

অভিযোগ প্রমাণিত হলে সেলিম খালিকের সর্বোচ্চ ১৬ বছর এবং আবু রেজিয়েনের সর্বোচ্চ ১০ বছর কারাদণ্ড হতে পারে বলেও উল্লেখ করেছেন এটর্নী জেনারেল।



আমার বার্তা/ ২৯জুন,২০২০/এসএফসি


আরো পড়ুন