শিরোনাম :

  • একদিন পিছিয়ে আজ হেমন্তের শুরু টেকনাফে পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত ২ বছিলায় জঙ্গি আস্তানায় অভিযান : তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল ১৮ নভেম্বর সৌদি আরবে সড়ক দুর্ঘটনায় ৩৫ ওমরাহ যাত্রী নিহত পাক-ভারতের গোলাগুলি, নিহত ৪
হল না পেয়ে নেতাজিসহ সবাইকে আক্রমণ করছেন দেব!
বিনোদন ডেস্ক :
০২ অক্টোবর, ২০১৯ ১০:৫১:৫৭
প্রিন্টঅ-অ+


কলকাতায় দুর্গাপূজা উপলক্ষে ২ অক্টোবর মুক্তি পেতে চলেছে চারটি বাংলা ছবি। সেগুলো হলো ‘গুমনামি’, ‘পাসওয়ার্ড’, ‘সত্যান্বেষী ব্যোমকেশ’ এবং ‘মিতিন মাসি’।

হল দখলে এই চার ছবির মধ্যে চলছে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই। সেখানে খানিকটা পিছিয়ে দেবের 'পাসওয়ার্ড'। সে নিয়ে নায়কের মন বেজায় খারাপ। বেশ কিছু গণমাধ্যমে তিনি অন্য ছবি নিয়ে নেতিবাচক প্রতিক্রিয়াও ব্যক্ত করেছেন। অন্যদের আক্রমণ করছেন খানিকটা নোংরাভাবেই। মিস্টার কুল খ্যাত নায়ক দেব যখন প্রতিযোগিতার বাজারে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে মেজাজ দেখালেন তখন সবাই অবাক হয়েছেন।

ছবি মূলত চারটি হলেও নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুকে নিয়ে করা সৃজিত মুখার্জীর ‘গুমনামি’ এবং পরিচালক কমলেশ্বর বাবুর ‘পাসওয়ার্ড’ ও যেমন পুরোপুরি ভিন্ন দুটো বিষয়। বাকি দুটো গোয়েন্দাগিরির। এই গোয়েন্দা কাহিনি নিয়েও বিরক্তি প্রকাশ করেছেন দেব৷ যা কলকাতার ইন্ডাস্ট্রিতে নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে সবার মধ্যে৷ অনেকেই বলছেন, নিজে হালে পানি না পেয়ে সিনেমায় বর্তমানে সফল ট্রেন্ডের সমালোচনায় মেতে গেছেন দেব৷

তবে এই নায়কের উপর সবার বিরক্তিটা চরমে পৌঁছেছে নেতাজিকে নিয়ে বাজে মন্তব্যের কারণে। সম্প্রতি এক সাক্ষাতকারে দেব ‘গুমনামী’ সিনেমা নিয়ে বলতে গিয়ে বলেন, ‘আমার ভাল লাগার উপর ছবির ভাল-খারাপ নির্ভর করে না। আমি আমার মতো করে চেষ্টা করেছি। নতুন বিষয় নিয়ে ছবি করছি। সুভাষচন্দ্র বসুকে তো বিক্রি করছি না! এটাও তো বলতে পারি যে প্রোমোশনের জন্য এখন সবাই সুভাষচন্দ্র বসুর স্ট্যাচুর সামনে ছবি তুলছে। ছবি রিলিজ করার পর দেখব, ক’জন সেলিব্রিটি গিয়ে ছবি তোলে।’

অভিনেতা দেব কোন আক্কেলে নেতাজি সুভাষ বসুকে অপমান করলেন? রীতিমতো বিক্রি করে দিলেন কথার মাধ্যমে সে নিয়ে উত্তাল কলকাতা৷

যে ভারতের স্বাধীনতায় নেতাজির অবদান কোন মানুষ কোনদিন ভুলবে না সেই নেতাজিকে নিয়ে এমন মন্তব্যকে বহু দেবপ্রেমীরাই দেশদ্রোহী মন্তব্য বলে উল্লেখ করেছেন।

দেবের এমন বিতর্কিত মন্তব্যে পরিচালক সৃজিত মুখার্জী আহত যদিও হয়েছেন, তথাপি তিনি ‘গুমনামি’র ট্রেলার ফের টুইটারে পোস্ট করে স্ট্যাটাস লিখে প্রত্যুত্তর দিয়েছেন একেবারে মুখের ওপর।তিনি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ভাষাতেই উপযুক্ত জবাবটা বেছে নিয়েছেন। ‘চিত্ত যেথা ভয়শূন্য, উচ্চ যেথা শির’ ক্যাপশান দিয়ে।আর সোশ্যাল মিডিয়া তোলপাড় করছেন নানাশ্রেণি পেশার মানুষ।

একজন লিখেছেন, ‘অভিনেতা, প্রযোজক এবং দেশের একজন দায়িত্বশীল সাংসদ আপনি। আপনি এরম বলবেন তা বোধহয় ভাবার বাইরে ছিল দেব। আপনি আজ এক স্বাধীন গণতান্ত্রিক দেশের সাংসদ সেই দেশকে স্বাধীন করার ব্রত নিয়ে যেই মানুষটা ঘর ছেড়েছিলেন সেই নেতাজিকে এইরুপ অপমান করার আগে দুবার ভাবতে পারতেন দেব।’

একজন লিখেছেন, ‘হল পেতে মুখ্যমন্ত্রীকেও কাজে লাগালেন। তাতেও সফল না হয়ে পাগল হয়ে গেছেন দেব।’



আমার বার্তা/০২ অক্টোবর ২০১৯/জহির


আরো পড়ুন