শিরোনাম :

  • ড. কালাম স্মৃতি পদক গ্রহণ করলেন প্রধানমন্ত্রী বিকেলে রাজহংস উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী অবশেষে মাঠে নামতে যাচ্ছেন মেসি! ভিকারুননিসার নতুন অধ্যক্ষের বৈধতা নিয়ে রিটের আদেশ আজ বছিলায় জঙ্গি আস্তানায় অভিযান : তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল ১৭ অক্টোবর
২০০০ বছর আগে মৃত নারীর রূপ নিখুঁত ভাবে ফুটিয়ে তুললেন বিজ্ঞানীরা
আমার বার্তা ডেস্ক :
১৮ আগস্ট, ২০১৯ ১১:১২:০০
প্রিন্টঅ-অ+


চিলি, পেরু এবং মিশরে পূর্ব পুরুষের মৃতদেহ সংরক্ষণের নিয়ম চালু ছিল। কিন্তু সেই দেহ সংরক্ষিত হলেও মুখ দেখে আসল চেহারা কেমন হত সঠিক ভাবে তা জানার সম্ভব ছিল না। এবার সেটাই সম্ভব করে দেখাল প্রযুক্তি। যার ফলে সামনে এলো হাজার হাজার বছর আগে পূর্ব পুরুষরা ঠিক কেমন দেখতে ছিল।

সম্প্রতি এই অসম্ভবকেই সম্ভব করে দেখিয়েছেন স্কটল্যান্ডের ইউনিভার্সিটি অব ডান্ডির ফরেনসিক আর্ট এবং ফেসিয়াল আইডেন্টিফিকেশন বিভাগের স্নাতকোত্তর স্তরের ছাত্রী ক্যারেন ফ্লেমিং। শুধুমাত্র খুলির সাহায্যে প্রায় ২০০০ বছর আগে মৃত এক নারীর মুখায়বব তৈরি করেছেন তিনি। মৃত্যুর আগে ওই নারী কেমন দেখতে ছিল, থ্রিডি ওয়্যাক্স ব্যবহার করে তা নিখুঁত ভাবে ফুটিয়ে তুলেছেন তিনি।

১৮৩৩ সাল থেকে ইউনিভার্সিটি অব এডিনবরার অ্যানাটমিক্যাল মিউজিয়ামে রাখা ছিল ওই খুলিটি। প্রাচীন কালে ব্রিটেনে কেল্টিক জাতির মধ্যে ড্রুয়িড নামের বিশেষ এক গোষ্ঠীর মানুষের বাস ছিল। তাদের জীবনযাত্রা ছিল বেশ রহস্যময়। এই ড্রুয়িডরা মূলত গির্জায় পুরোহিতের দায়িত্ব সামলাতেন। কেউ কেউ ছিলেন যাদুকর। ভবিষ্যৎ বলে দিতে পারতেন তারা। এদের জীবনযাত্রা ছিল রহস্যময়। ঈশ্বরের সঙ্গে সরাসরি যোগাযোগ রয়েছে বলে দাবি করতেন তারা।

যে নারীর মুখাবয়ব গড়ে সাড়া ফেলে দিয়েছেন ক্যারেন, তিনিও ওই ড্রুয়িড গোষ্ঠীর ছিলেন বলে জানা গেছে। তার নাম ছিল হিলডা। তিনি ছিলেন বর্তমান স্কটিশ শহর স্টর্নোওয়ের বাসিন্দা। তিনিও সম্ভবত ছিলেন জাদুকরী। সেই সময় নারীদের সর্বোচ্চ আয়ু ছিল ৩১ বছর। কিন্তু হিলডা ৬০ বছর বয়সে মারা যান বলে ডিএনএ পরীক্ষায় জানা গেছে।

হিলডা অভিজাত পরিবারের মেয়ে ছিলেন। নিজের স্বাস্থ্যের খেয়াল রাখতেন। তাই হয়ত ৬০ বছর পর্যন্ত বেঁচে ছিলেন বলে মনে করছেন গবেষকরা। তবে মৃত্যুর সময় তার মুখে একটিও দাঁত ছিল না। ৫৫ খ্রিস্টপূর্ব থেকে ৪০০ খ্রিস্টাব্দের মধ্যে তার মৃত্যু হয়ে থাকতে পারে বলে ১৮৩৩ সালের একটি জার্নালে উল্লেখ পাওয়া যায়।



আমার বার্তা/১৮ আগস্ট ২০১৯/জহির


আরো পড়ুন