শিরোনাম :

  • আজ আন্তর্জাতিক আদিবাসী দিবস আজ ঢাকার তাপমাত্রা বাড়তে পারে অন্ধ্রপ্রদেশে কোভিড সেন্টারে অগ্নিকান্ডে নিহত ৭ ব্রাজিলে করোনায় মৃতের সংখ্যা লাখ ছাড়াল
আজ বিশ্ব বাঘ দিবস
২০ বছরে ৩৮ বাঘের মৃত্যু
আমার বার্তা ডেস্ক:
২৯ জুলাই, ২০২০ ১৬:০৭:৫৯
প্রিন্টঅ-অ+




আজ (২৯ জুলাই) বিশ্ব বাঘ দিবস। কোভিডের কারণে সীমিত পরিসরে ভার্চুয়ালি সারা বিশ্বে এ দিবস পালিত হচ্ছে। বন বিভাগের সদস্যরা মাত্র সাড়ে ৫ মাসের ব্যবধানে দুটি রয়েল বেঙ্গল টাইগারের মৃতদহে উদ্ধার করেছে। বাঘ দুটির একটি সুন্দরবন পূর্ব বিভাগ এবং অপরটি পশ্চিম বিভাগের আন্ধারমানিক ফরেস্ট ক্যাম্প এলাকায় বনের মধ্যে মরে পড়ে ছিল। বন বিভাগ জানিয়েছে, বাঘ দুটি অসুস্থতা এবং বার্ধক্যজনিত কারণে মারা গেছে।



জৈব পরিবেশ বিজ্ঞানী সাজ্জাদ শিমুল বলেন, সমুদ্রের স্তর এবং জলবায়ু পরিবর্তন ক্রমাগত বৃদ্ধি ফলে বিশেষত বাংলাদেশ অংশে সুন্দরবনের রয়েল বেঙ্গল টাইগার আগামী ৫০ বছরের মধ্যে হারিয়ে যেতে পারে। বন বিভাগের তথ্য মতে, ২০০১ থেকে ২০২০ সালের ১০ জুলাই পর্যন্ত সুন্দরবন পূর্ব বিভাগে ২২টি এবং পশ্চিম বিভাগে ১৬টি বাঘের মৃত্যু হয়েছে। চোরাশিকারির হাতে, সুন্দরবন থেকে লোকালয়ে বের হয়ে আসায় গণপিটুনির শিকার হয়ে, ঝড়-জলোচ্ছাসের আঘাতে এবং অসুস্থ হয়ে ও বার্ধক্যজনিত কারণে বাঘ মারা যাচ্ছে। টোটাল এনভায়রনমেন্ট সায়েন্স নামের জার্নাল-২০২০ সালের তথ্য মতে, সুন্দরবনের বাংলাদেশ অঞ্চলে বাঘ অবৈধভাবে শিকারও করা হচ্ছে। এছাড়া বাঘের প্রজনন ও বিস্তারের ক্ষমতাও হ্রাস পাচ্ছে ।

বাঘ সম্পর্কে কয়েকটি তথ্য-   বাংলাদেশ বন বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, ২০১৫ সালের জরিপ মোতাবেক সুন্দরবনে বাঘের সংখ্যা ছিল ১০৬টি। তিন বছর পর ক্যামেরা ট্র্যাপিংয়ের মাধ্যমে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী সুন্দরবনে ১১৪টি বাঘের অস্তিত্ব চিহ্নিত হয়েছে। ওয়ার্ল্ড ওয়াইল্ড লাইফ ফান্ডের তথ্যমতে, একশ’ বছর আগে পৃথিবীতে বাঘ ছিল এক লাখেরও বেশি। তবে বর্তমানে সে সংখ্যা ৯৫ শতাংশ কমে ৩ হাজার ৯০০টিতে দাঁড়িয়েছে। বর্তমানে পৃথিবীর মাত্র ১৩টি দেশে বাঘের অস্তিত্ব বজায় রয়েছে। এই ১৩টি বাঘ সমৃদ্ধ দেশকে বলা হয় Tiger Range Country (TRC)। দেশগুলো হচ্ছে, বাংলাদেশ, ভারত, মায়ানমার, থাইল্যান্ড, কম্বোডিয়া, ইন্দোনেশিয়া, চীন, মালয়েশিয়া, ভিয়েতনাম, লাওস, ভুটান, নেপাল ও রাশিয়া। বাঘের ৮টি উপ-প্রজাতির মধ্যে বালিনীজ টাইগার, জাভানীজ টাইগার ও কাস্পিয়ান টাইগার ইতোমধ্যে পৃথিবী থেকে বিলুপ্ত হয়ে গেছে।বর্তমানে বাঘের (Penthera tigris) ৫টি উপ-প্রজাতির (sub-species) কোনো রকমে টিকে আছে।



এগুলো হল, বেঙ্গল টাইগার, সাইবেরিয়ান টাইগার, সুমাত্রান টাইগার, সাউথ চায়না টাইগার এবং ইন্দো-চায়না টাইগার।  ২০১০ সালে রাশিয়ায় অনুষ্ঠিত টাইগার সামিট ও ২০১৪ সালে ঢাকা আন্তর্জাতিক বাঘ সম্মেলনে ১৩টি বাঘসমৃদ্ধ দেশ ২০২২ সালের মধ্যেই নিজ নিজ দেশে বাঘের সংখ্যা দ্বিগুণ করার চুক্তি করে। অর্থাৎ এ চুক্তিটি বাস্তবায়ন হলে ২০২২ সালে পৃথিবীতে বাঘের সংখ্যা বর্তমানের তুলনায় দ্বিগুণ হবে। বাংলাদেশের সর্বশেষ টাইগার অ্যাকশন প্ল্যান অনুযায়ী ২০২৭ সালের মধ্যেই সুন্দরবনে বাঘের ক্যারিং ক্যাপাসিটি (সুষম ধারণক্ষমতা) অর্জনের চেষ্টা করছে বন বিভাগ।



টাইগার অ্যাকশন প্ল্যান অনুযায়ী সুন্দরবনে বাঘের ক্যারিং ক্যাপাসিটি ২৫০টি। বাঘ বিশেষজ্ঞদের মতে, বাঘের সংখ্যা দ্রুত কমে যাওয়ার এই প্রবণতা চলমান থাকলে আগামী কয়েক দশকে পৃথিবী থেকে হারিয়ে যাওয়ার আশংকা রয়েছে। বাংলাদেশে বাঘ নিধন ও হরিণ শিকার বন্ধের জন্য ২০১২ সালে অধিকতর শাস্তির বিধান নিশ্চিত করতে বন্যপ্রাণী (সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা) আইন প্রণয়ন করা হয়। এই আইনের ধারা ৩৬ অনুযায়ী, বাঘ শিকার বা হত্যা জামিন অযোগ্য অপরাধ। চূড়ান্ত বিচারে বাঘ শিকারী বা হত্যাকারী সর্বোচ্চ ৭ বছর সর্বনিম্ন ২ বছর কারাদন্ড এবং জরিমানা ১ লক্ষ থেকে ১০ (দশ) লক্ষ টাকা পর্যন্ত অর্থ দন্ডে দন্ডিত হবেন।



আমার বার্তা/ ২৯ জুলাই,২০২০/এসএফসি


আরো পড়ুন