শিরোনাম :

  • অরুণ জেটলি বিরল এক ক্যানসারে ভুগছিলেন কোথায় গিয়ে থামবে আজ নিউজিল্যান্ড! শিশু সায়মা হত্যা : তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল ১৬ সেপ্টেম্বরওএসডি হচ্ছেন জামালপুরের সেই ডিসি দ্বিতীয় ম্যাচেই হোঁচট খেলো রিয়াল মাদ্রিদ
প্রতিদিন একটি আপেল খাওয়ার উপকারিতা
আমার বার্তা ডেস্ক :
১৩ এপ্রিল, ২০১৯ ১১:৪২:৩৪
প্রিন্টঅ-অ+


ছোটবেলা থেকেই আমরা শুনে আসছি- ‘অ্যান আপেল এ ডে কিপস দ্য ডক্টর অ্যাওয়ে।’ মানে প্রতিদিন একটা করে আপেল খেলে ডাক্তারের কাছে যেতে হবে না আপনাকে। এই ম্যাজিকাল ফলে অ্যান্টি অক্সিডেন্ট, ভিটামিন, আঁশ সহ পুষ্টিকর উপাদান অনেক বেশি থাকে বলে কথাটি যুগ যুগ ধরে সত্য মেনে আসছেন পুষ্টিবিদরা।

একটি আপেলে ২৬ গ্রাম প্রোটিন, ৮১ গ্রাম কার্বোহাইড্রেট, ৪০ গ্রাম আঁশ থাকে। আরো থাকে ক্যালসিয়াম, পটাশিয়াম, নিয়াসিন, ফোলেট, থিয়ামিন, ভিটামিন এ, সি, ই ও কে। বিশ্বে লাল, হলুদ, সবুজ সহ বিভিন্ন রঙয়ের অন্তত ৭,৫০০ জাতের আপেল পাওয়া যায়। প্রতিদিন একটি করে আপেল খেলে আসলে কী উপকার পাওয়া যায়, তা জানি চলুন।

ক্যানসার প্রতিরোধ করে : আপেলে থাকা ফাইটো ক্যামিকাল কম্পাউন্ড ক্যানসার রোধ করা সহ বেশ কিছু উপকার করে। তাই নিয়মিত আপেল খেলে ফুসফুস, ত্বক, কোলন, ডাইজেসটিভ ট্র্যাক্ট ও ব্রেস্ট ক্যানসারের ঝুঁকি কমে।

ফ্রি র‌্যাডিকেল প্রতিরোধ করে : আপেলে প্রচুর ফ্ল্যাভনয়েড, ফাইটোক্যামিকাল থাকে, যা শক্তিশালী অ্যান্টি অক্সিডেন্ট হিসেবে কাজ করে। এগুলো শরীরের জন্য ক্ষতিকর, দেহকোষ ও ডিএনএ নষ্টকারী ফ্রি র‌্যাডিকেল প্রতিরোধ করে।

শক্তি বাড়ায় : আপেলে যে গ্লুকোজ, ফ্রুকটোজ ও সুক্রোজ থাকে, তা শরীরে দ্রুত শক্তি যোগায়।

রক্ত স্বল্পতা দূর করে : প্রচুর আয়রন আছে আপেলে, যা রক্তের হিমোগ্লোবিন লেভেল বাড়িয়ে অ্যানিমিয়া বা রক্ত স্বল্পতা দূর করে। এতে শরীরের সব অঙ্গ প্রত্যঙ্গে পর্যাপ্ত অক্সিজেন সরবরাহ হয়।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় : আপেলে ভিটামিন সি, অ্যান্টি অক্সিডেন্ট কম্পাউন্ড ও প্রোটিন থাকে প্রচুর, যা শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। আপেল ইনফেকশন ও বিভিন্ন রোগ দূর করে। আপেলে থাকা অ্যান্টি অক্সিডেন্ট রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর পাশাপাশি শরীর থেকে বিষাক্ত উপাদান বের করে শরীরকে সার্বিকভাবে সুস্থ রাখে।

অ্যাজমার ঝুঁকি কমায় : কয়েকটি গবেষণায় দেখা গেছে, যারা নিয়মিত আপেল জুস পান করেন, তাদের অ্যাজমার ঝুঁকি কমে। আপেলে থাকা ফাইটো ক্যামিকাল ও পলিফেনল অ্যাজমা প্রতিরোধ করা, শ্বাস-প্রশ্বাসের সমস্যা দূর করা সহ ফুসফুসকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে।

হজমের জন্য উপকারি : অনেক গবেষণায় প্রমাণ পাওয়া গেছে, হজমের সমস্যা দূর করতে সহজ কিন্তু কার্যকর উপায় হলো- প্রতিদিন আপেল খাওয়া। আপেলে থাকা খাবারযোগ্য আঁশ হজমের খুব উপকার করে। নিয়মিত আপেল খেলে বাওয়েল মুভমেন্ট ভালো থাকে এবং কোষ্ঠকাঠিন্য, ডায়রিয়া, বদহজম সহ পাকস্থলীর অন্য সব সমস্যা দূর হয়।

দৃষ্টিশক্তি বাড়ায় : আপেলে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ, ফ্ল্যাভনয়েড কম্পাউন্ড ও অ্যান্টি অক্সিডেন্ট থাকে সে কারণে এটি রাত কানা রোগ, চোখের ছানির সমস্যা, গ্লুকোমা সহ চোখের বেশ কিছূ রোগ প্রতিরোধ করে।

ওজন কমাতে সাহায্য করে : আপেলে প্রচুর আঁশ থাকে বলে তা খেলে আমাদের পেট ভরা থাকে। এ কারণে অতিরিক্ত খাওয়া ও তার ফলে ওজন বেড়ে যাওয়ার সমস্যা থাকে না। আপেলে কোনো ফ্যাট থাকে না, তাই এই ফল ওজন কমাতে আদর্শ।

ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করে : বেশ কিছূ গবেষণা মতে, সকালে খালি পেটে একটা আপেল খেলে টাইপ টু ডায়াবেটিস হওয়ার আশঙ্কা ২৯ শতাংশ কমে। আপেলে দ্রবণীয় আঁশ থাকে বলে তা ইনসুলিন নিয়ন্ত্রণে রাখে।

আপেল বেছে নেয়া ও স্টোর করা : কেনার সময় দাগহীন, সতেজ আপেলই বেছে নেয়ার চেষ্টা করবেন সব সময়। এক্ষেত্রে দোকানদার প্রতারণার আশ্রয় নিয়ে দাগপড়া বা পঁচা আপেল দিয়ে দিতে পারেন, সেদিকে খেয়াল রাখুন। বাসায় এনে আপেল অন্য সব ফল থেকে আলাদা রাখুন। আদা, রসুন, পেঁয়াজের মতো গন্ধযুক্ত মসলা থেকে আপেলকে দূরে রাখুন। ফ্রিজে রাখতে হবে, তবে সে আপেল এক থেকে দুই সপ্তাহের মধ্যেই খেয়ে ফেলতে হবে।



আমার বার্তা/১৩ এপ্রিল ২০১৯/জহির



 


আরো পড়ুন