শিরোনাম :

  • করোনা আক্রান্ত দুজনসহ সুপ্রিম কোর্টের তিন আইনজীবী'র মৃত্যু দেশের অর্ধেক অঞ্চলে ঝড়বৃষ্টি হতে পারে আজ ব্রাজিলে করোনায় ৬০ হাজারের বেশি মানুষের মৃত্যু চেক প্রজাতন্ত্রে ‘করোনা ফেয়ারওয়েল পার্টি’
করোনা : হঠাৎ অসুস্থ বোধ করলে যা করবেন
আমার বার্তা ডেস্ক :
১৮ মার্চ, ২০২০ ১৩:২২:২৮
প্রিন্টঅ-অ+


করোনাভাইরাস নিয়ে আতঙ্ক ভর করছে মানুষের মনে। বিশ্বজুড়ে এই ভাইরাসের আক্রমণে প্রতিদিন মৃতের তালিকা বড় হচ্ছে। এখনো পর্যন্ত মারা গেছেন সাত হাজারেরও বেশি মানুষ।

এই ভাইরাসে আক্রান্ত হলে প্রাথমিক ভাবে জ্বর, শুকনো কাশি, নিঃশ্বাস নিতে কষ্ট এবং পেশিতে যন্ত্রণা হবে। আর তার সঙ্গে ক্লান্তও মনে হবে।

চীন থেকে বিশ্বজুড়ে এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার পরই এ নিয়ে গবেষণা শুরু হয়েছে। যদিও চিকিৎসকেরা নিশ্চিত করে কোনো কিছুই বলতে পারছেন না। এই রোগ সারানোর কোনোরকম ওষুধ এখনো পর্যন্ত আবিষ্কার করতে পারেননি চিকিৎসক-বিজ্ঞানীরা।

কতক্ষণ বা কত দিন করোনাভাইরাস শরীরে থাকে তাও জানতে পারা যায়নি। লক্ষণ জানার জন্য কতদিন পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে তাও জানাতে পারছেন না চিকিৎসকেরা।

সেলফ আইসোলেশনের অর্থ ১৪ দিন বাড়িতে বন্দি অবস্থায় থাকা। সেই সময়ে কাজে না যাওয়া, স্কুলে বা অন্যান্য জনসমাগমের আশঙ্কা থাকতে পারে সেগুলো বর্জন করা। এমনকী বাড়িতে পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের থেকেও আলাদা হয়ে থাকতে হয়। দূরে থাকতে হবে গৃহের পোষ্যদের থেকেও।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (WHO) নির্দেশ দিয়েছে কোনো রকম অসুস্থতা অনুভব করলেই দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। প্রয়োজনে বাড়িতেই স্বেচ্ছায় কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে। এখন কথা হলো, বাড়িতে থাকলেই কি এই রোগ ঠেকানো সম্ভব? হঠাৎ অসুস্থ বোধ করলেই বা কী করতে হবে?

প্রথম ও সবচেয়ে বড় সমস্যা হলো কতজনকে কোয়ারেন্টাইন এবং কতজনকে বাড়িতে থাকতে বলা হবে। নিজে থেকেই মানুষকে স্ক্রিনিংয়ের জন্য এগিয়ে আসতে হবে। যদিও এতে দেশের মেডিক্যাল সিস্টেমে বড় চাপ পড়বে। এমনকী বেশিরভাগ মানুষই জানেন না কোথায় গিয়ে স্ক্রিনিং করাতে হবে।

অনেকেই ভাবছেন সামান্য সর্দি-কাশি-জ্বরের লক্ষণ থাকলে বাড়িতে থেকেই তা ঠিক করে নেয়া যাবে। কিন্তু তা একেবারেই নয়। হাসপাতালে গিয়ে সঠিক চিকিৎসার প্রয়োজন রয়েছে। কারণ এটি পাবলিক হেলথ ইস্যু।

ডাক্তারদের কথায়, সাধারণ সার্জিক্যাল মাস্ক বায়ুবাহিত ভাইরাস ও ব্যাকটেরিয়ার বিরুদ্ধে সুরক্ষা দিতে যথেষ্ট নয়। তবে হাঁচি বা কাশি থেকে ভাইরাসের সংক্রমণের ঝুঁকি কিছুটা কমাতে সাহায্য করতে পারে এই মাস্ক। কিন্তু ট্রিপল লেয়ার মাস্ক হওয়া জরুরি। হাত থেকে মুখের সংক্রমণের বিরুদ্ধেও কিছু সুরক্ষা দেয় এমন মাস্ক। তাই কোনোরকম অসুস্থতা অনুভব করলেই চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।



আমার বার্তা/১৮ মার্চ ২০২০/জহির


আরো পড়ুন