শিরোনাম :

  • আজ রাজধানীর যেসব এলাকায় গ্যাস থাকবে না আজ দেশের ১৯ অঞ্চলে ঝড়-বৃষ্টি হতে পারে ব্রাজিলে করোনায় মৃতের সংখ্যা ৬৫ হাজার ছাড়িয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে একদিনেই করোনায় আক্রান্ত অর্ধলাখ
হঠাৎ কারো দম বন্ধ হয়ে গেলে যা করবেন
আমার বার্তা ডেস্ক :
২১ মে, ২০২০ ১১:৩৭:৩০
প্রিন্টঅ-অ+


এমনটা ঘটতেই পারে। হয়তো আপনি আপনার পরিবার বা বন্ধুদের সাথে রাতের খাবার খাচ্ছেন হঠাৎ আপনাদের মধ্যে কেউ কাশতে শুরু করলেন। গলা পরিষ্কার করার চেষ্টা করার সাথে কাশির তীব্রতা বৃদ্ধি পেতে থাকে, দম বন্ধ হয়ে আসতে চায় যেন। আপনি তাকে সাহায্য করতে চান তবে এমন পরিস্থিতিতে আপনার কী করা উচিত তা জানা নেই।

খাওয়ার সময় দম বন্ধ হওয়া এক সাধারণ ঘটনা। এটি ঘটে যখন বাতাসের উত্তরণটি হঠাৎ করে আংশিক বা সম্পূর্ণভাবে অবরুদ্ধ হয়ে যায় তখন শ্বাস নিতে অসুবিধা হয়। এটি মস্তিষ্কে অক্সিজেন সরবরাহের প্রবাহকে সীমাবদ্ধ করতে পারে, সুতরাং এই জাতীয় পরিস্থিতিতে দ্রুত কাজ করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

এটি যেকোনো ক্ষেত্রেই ঘটতে পারে, সে বয়স্ক বা এক বছরের বাচ্চা হোক। যখন আপনি জল পান করেন বা আপনার খাবারের মধ্যে কথা বলেন তখন দম বন্ধ হওয়ার মতো ঘটনা ঘটতে পারে। আপাতদৃষ্টিতে এটি ছোটখাট দুর্ঘটনা মনে হলেও কখনো কখনো মারাত্মক হয়েও উঠতে পারে। এমন পরিস্থিতিতে কীভাবে কারও জীবন বাঁচাতে হবে তা জেনে নিন-

দম বন্ধ হওয়ার লক্ষণ:

যদিও ভারী কাশি শ্বাসরোধের একটি সাধারণ লক্ষণ তবে উইন্ড পাইপটিতে বাধার কারণে ব্যক্তি শ্বাস নিতে অসুবিধা হচ্ছে কিনা তা সনাক্ত করার জন্য অন্যান্য সংকেত রয়েছে। এখানে কয়েকটি লক্ষণ আপনাকে অবশ্যই দেখতে হবে:

* কথা বলতে অসুবিধা

* শ্বাস প্রশ্বাসের সমস্যা

* শ্বাস নেয়ার চেষ্টা করার সময় অদ্ভুত শব্দ

* জোর করে কাশি

* ত্বক, ঠোঁট এবং নখ নীল হয়ে যাওয়া

* চেতনা হ্রাস

আক্রান্ত ব্যক্তির অবস্থার উপর আপনার প্রতিক্রিয়া নির্ভর করে। যদি সে জোর করে কাশি দিতে সক্ষম হয় তবে তার উচিত এটি করা। এটি বাধা দূর করতে সাহায্য করবে। যদি সে কথা বলতে বা কিছু করতে না পারে তবে শ্বাসনালী পরিষ্কার করার জন্য ‘ফাইভ অ্যান্ড ফাইভ’ পদ্ধতির চেষ্টা করার পরামর্শ দেয়া হয়।

ফাইভ অ্যান্ড ফাইভ পদ্ধতি:

আমেরিকান রেড ক্রস কারো দম বন্ধ হওয়ার সমস্যা হলে ফাইভ অ্যান্ড ফাইভ পদ্ধতির পরামর্শ দেয়।

পেটে আঘাত করার পদ্ধতি:

পদক্ষেপ ১: আক্রান্ত ব্যক্তির পেছনে দাঁড়ান এবং তার কোমর দুই হাত দিয়ে জড়িয়ে ধরুন।

পদক্ষেপ ২: আক্রান্ত ব্যক্তিকে সামান্যভাবে সামনের দিকে বাঁকা করুন। এক হাত দিয়ে মুষ্টি তৈরি করুন এবং একে নাভির উপরে রাখুন। অন্য হাত দিয়ে মুষ্টি ধরুন।

পদক্ষেপ ৩: জোর দিয়ে পেটে কিছুটা চাপ দিন- যেন আপনি ব্যক্তিটিকে উপরে তোলার চেষ্টা করছেন।

পেছনে আঘাত করার পদ্ধতি:

পদক্ষেপ ১: দম বন্ধ হয়ে যাওয়া ব্যক্তির পাশে দাঁড়ান এবং ব্যক্তির বুকজুড়ে আপনার একটি বাহু রাখুন।

পদক্ষেপ ২: সামান্যভাবে কোমরে এমনভাবে বাঁকুন যাতে উপরের শরীরটি মাটির সাথে সমান্তরাল হয়।

পদক্ষেপ ৩: আপনার অন্য হাত দিয়ে তার কাঁধে পাঁচবার আঘাত করুন।

প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়ার পরেও যদি ব্যক্তির অবস্থার উন্নতি না হয় তবে অ্যাম্বুলেন্সের জন্য ফোন করুন। যদি ব্যক্তি অজ্ঞান হয়ে যায় তবে স্ট্যান্ডার্ড কার্ডিওপলমোনারি রিসিসিটেশন (সিপিআর) করুন।



আমার বার্তা/২১ মে ২০২০/জহির

 


আরো পড়ুন