শিরোনাম :

  • ডি মারিয়া উড়িয়ে দিলেন রিয়ালকে তিন সপ্তাহ পরিকল্পনা, অতঃপর অভিযানের গ্রিন সিগন্যাল কোহলির ব্যাটে সহজ জয় ভারতের বিএনপি নেতা শামসুজ্জামান দুদুর বাড়িতে হামলা জাবি উপাচার্যকে পদত্যাগের জন্য আল্টেমেটাম
দেয়াল টপকিয়ে গ্রেফতার করলেন ভারতের প্রাক্তন মন্ত্রীকে
আন্তর্জাতিক ডেস্ক :
২২ আগস্ট, ২০১৯ ১১:০৫:২৩
প্রিন্টঅ-অ+


ভারতের প্রাক্তন মন্ত্রী পি চিদাম্বরমকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বুধবার রাত ৮টা পাঁচ মিনিটে নিজ বাড়ি থেকে কংগ্রেসের এই জ্যেষ্ঠ নেতাকে গ্রেফতার করে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা (সিবিআই)।

বুধবার সন্ধ্যায় কংগ্রেস অফিসে উপস্থিত হয়েছিলেন তিনি। সে সময় এই প্রাক্তন মন্ত্রী বলেন, তিনি কোনো অপরাধে অভিযুক্ত নন। তার পরিবারও দুর্নীতিতে অভিযুক্ত নয়। আদালতে সিবিআই বা ইডি তার বিরুদ্ধে কোনও চার্জশিট দেয়নি বলেও দাবি করেছেন তিনি।

কংগ্রেস দফতর থেকে সরাসরি বাড়ি ফিরে গিয়েছিলেন চিদাম্বরম। তাকে ধাওয়া করে বাড়ি পর্যন্ত যায় সিবিআই টিমও। পরে সেখানে উপস্থিত হলে বাড়ির দরজা খুলতে রাজি হননি চিদাম্বরমের পরিবারের লোকজন। পরে বাধ্য হয়ে বাড়ির দেয়াল টপকেই চিদাম্বরমের বাড়িতে প্রবেশ করে কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থার কর্মকর্তারা।

সে সময় প্রাক্তন এই মন্ত্রীর বাড়ির সামনে মোতায়েন ছিল কেন্দ্রীয় বাহিনী ও পুলিশ। কয়েক মিনিটের মধ্যেই তাকে গ্রেফতার করা হয়। চিদাম্বরমের ছেলে জানিয়েছেন, রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত হয়েই তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

অর্থমন্ত্রী থাকাকালীন সময় ঘুষের বিনিময়ে বিদেশী বিনিয়োগের অর্থ আত্মসাত করার অভিযোগ আনা হয়েছে তার বিরুদ্ধে। তবে ৭৩ বছর বয়সী চিদাম্বরম তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

ভারতের প্রধান বিরোধী দল কংগ্রেসের এই নেতা ১৯৮৪ সাল থেকে সাংসদ হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। বিভিন্ন সময় অর্থমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও পেনশনবিষয়ক মন্ত্রী ছিলেন তিনি। নির্বাচিত হয়েছিলেন নিম্নকক্ষ লোকসভার সদস্য হিসেবেও।

বুধবার সিবিআই সদস্যরা তাকে গ্রেফতার করার সময় সমর্থক এবং গণমাধ্যম কর্মীরা তার গাড়ির আশেপাশে ভীড় জমায়। চিদাম্বরমকে গ্রেফতারের ঘন্টাখানেক আগে তিনি সুপ্রিম কোর্টেরও শরনাপন্ন হয়েছিলেন। কারণ তার আগের দিন দিল্লি হাইকোর্ট তার জামিনের আবেদন নাকচ করে দেয়।

আদালতে তার আইনজীবী অভিযোগ করেছেন, ক্ষমতাসীন বিজেপি চিদাম্বরম ও তার ছেলে কার্তির বিরুদ্ধে রাজনৈতিক প্রতিশোধ চরিতার্থ করার লক্ষ্যে এই মামলা সাজিয়েছে। ২০০৭ সালে অর্থমন্ত্রী থাকাকালে আইএনএক্স গ্রুপের দশ মিলিয়ন ডলারেরও বেশি বিদেশী বিনিয়োগ আত্মসাত করার অভিযোগ আনা হয়েছে তার বিরুদ্ধে।



আমার বার্তা/২২ আগস্ট ২০১৯/রিফাত


আরো পড়ুন