শিরোনাম :

  • নয়াপল্টনে বিএনপির নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ জবানবন্দিতে বুলুসহ ১৫ বিএনপি নেতার নাম পেয়েছে পুলিশ সেনা অভ্যুত্থানবিরোধী বিক্ষোভে উত্তাল সুদান, সংঘর্ষে নিহত ৭দুই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষ, নিহত ২
বিশ্বনেতাদের গোপন তথ্য ফাঁস
০৪ অক্টোবর, ২০২১ ১২:০৫:৫২
প্রিন্টঅ-অ+

পানামা, দুবাই, মোনাকো, সুইজারল্যান্ড ও ব্রিটিশ ভার্জিন আইল্যান্ডসের মতো অঞ্চল গুলোতে বিভিন্ন দেশের প্রভাবশালী ব্যক্তিরা যে অর্থ রেখেছেন এবং গোপন লেনদেন করেছেন সেই তথ্যই ফাঁস করল প্যানডোরা পেপার্স। 


প্যানডোরা পেপার্সের দলিলপত্রে প্রায় ৩৫ জন বর্তমান ও সাবেক নেতা এবং তিন শতাধিক সরকারি কর্মকর্তার নাম রয়েছে, যারা বিভিন্ন বিদেশি কোম্পানির সাথে সংশ্লিষ্ট।


এই তালিকায় আছে জর্ডানের বাদশাহ আবদুল্লাহ, রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন, চেক প্রধানমন্ত্রী আন্দ্রেই বাবিস, আজারবাইজানের প্রেসিডেন্ট ইলহাম আলিয়েভ, কেনিয়ার প্রেসিডেন্ট উহুরু কেনিয়াত্তা, সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী টনি ব্লেয়ারসহ আরও অনেকের নাম। 


এসব তথ্য পর্যালোচনা করে দেখা গেছে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন মোনাকোয় গোপন সম্পদের সাথে সম্পর্কিত। 


ধারণা করা হচ্ছে পুতিনের এই সম্পদের উত্তরাধিকারী তার সাবেক প্রেমিকা সভেতলানা ক্রিভোনোগিখ। 


কারণ মধ্যবিত্ত পরিবারের সভেতলানা হঠাৎই বিত্তশালী হয়েছেন এবং মোনাকোয় তার নামে ৩৫ কোটি টাকার একটি ফ্ল্যাট রয়েছে। এই অর্থের যৌক্তিক উৎস খুঁজে পাওয়া যায়নি।  


এদিকে আজারবাইজানের প্রেসিডেন্ট ইলহাম আলিয়েভ ও তার সহযোগীরা যুক্তরাজ্যে প্রায় ৪০ কোটি পাউন্ডের জমি-বাড়ি কেনাবেচার চুক্তিতে জড়িত ছিলেন বলে জানা গেছে। 


জর্ডানের বাদশাহ আবদুল্লাহ ব্রিটেন ও যুক্তরাষ্ট্রে ৭ কোটি পাউণ্ডের বাড়ি-জমির মালিক হয়েছেন বলেও দলিল-পত্র রয়েছে।


আর যুক্তরাজ্যের সাবেক প্রধানমন্ত্রী টনি ব্লেয়ার ও তার স্ত্রী লন্ডনে একটি অফিস কেনার সময় ৩ লাখ ১২ হাজার পাউন্ড কর ফাঁকি দিয়েছেন। 


গেল সাত বছর ধরে বিভিন্ন দেশের প্রভাবশালী ও সম্পদশালী ব্যক্তিদের অন্য দেশে বেনামে বিনিয়োগের তথ্য ফাঁস হয়ে আসছে তারই ধারাবাহিকতায় এবারে প্যান্ডোরা পেপারস তথ্য ফাঁস করল। গার্ডিয়ান বলছে, ইতিহাসে এবারই সবচেয়ে বেশি তথ্য ফাঁস হয়েছে। 


বিশ্বব্যাপী অনুসন্ধানী সাংবাদিকদের জোট ‘ইন্টারন্যাশনাল কনসোর্টিয়াম অব 'ইনভেস্টিগেটিভ জার্নালিস্টস'র উদ্যোগে ৬৫০ জনের বেশি সাংবাদিক এসব নথি বিশ্লেষণ করেন।


বিবিসি বলছে, এসব নথিতে যাদের নাম এসেছে, তাদের অনেকের বিরুদ্ধে দুর্নীতি, অর্থ পাচার ও কর ফাঁকির অভিযোগ রয়েছে।


তবে এখানে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল, খ্যাতিমান ও সম্পদশালী ব্যক্তিরা কীভাবে যুক্তরাজ্যে গোপনে সম্পদ কিনতে আইনি পথেই বিভিন্ন কোম্পানি গঠন করেছেন। এসব কেনাকাটার পেছনে থাকা প্রায় ৯৫ হাজার অফশোর কোম্পানির মালিকদের নাম এসেছে। 


সূত্র: বিবিসি, গার্ডিয়ান


 

আরো পড়ুন