শিরোনাম :

  • নয়াপল্টনে বিএনপির নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ জবানবন্দিতে বুলুসহ ১৫ বিএনপি নেতার নাম পেয়েছে পুলিশ সেনা অভ্যুত্থানবিরোধী বিক্ষোভে উত্তাল সুদান, সংঘর্ষে নিহত ৭দুই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষ, নিহত ২
সৎ সঙ্গে স্বর্গবাস
আমিনুল ইসলাম কাসেমী
১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ২০:৪৮:৩২
প্রিন্টঅ-অ+

সৎ সঙ্গে স্বর্গবাস অসৎ সঙ্গে সর্বনাশ। অতিপরিচিত কথা। ভাল মানুষের সংস্পর্শে মানুষ ভাল হয়। আর খারাপ মানুষের সংস্পর্শে মানুষ খারাপ হয়। এজন্য প্রতিটি মানুষের জন্য ভাল পরিবেশ, সৎ মানুষের সাথে উঠাবসা জরুরি। মানুষ যে ধর্মেরই হোক, যে মতেরই হোক তাকে অবশ্যই ভাল পরিবেশে জীবন কাটাতে হবে। ভাল মানুষের কাছে যেতে হবে। তাহলে তাঁর জীবন সুন্দর হবে। একজন মানুষের মত মানুষ হিসেবে সে নিজেকে গড়ে তুলতে পারবে। 


আজকাল বহু মানুষ অন্যায়ের সাথে জড়িত। বিশেষ করে সমাজের কিশোর বা যুব সমাজ যেন পাল্লা দিয়ে অন্যায়ের দিকে বেশি ধাবিত হচ্ছে। দেশের বিভিন্ন জায়গায় গড়ে ওঠেছে ‘কিশোর গ্যাং’। উঠতি বয়সের ছেলেরাই বড় অপকর্মের বাহিনী গড়ে তুলেছে। কোথাও কোথাও এসব যুবকের অপকর্মের বাহিনীর দাপট দেখা যায়। এদের বয়স তেমন নয়। কিন্তু এই অল্প বয়সেই যেন তারা সমাজের কাল হয়ে দাঁড়িয়েছে এবং লাগামহীনভাবে অপকর্ম করে যাচ্ছে। কেউ তাদের ঠেকাতে পারছে না। মাঝে-মাঝে এমন-এমন অনৈতিক কাজ তারা করে, যেটা পুরো দেশকে কাঁপিয়ে তোলে।


আবার কোথাও যুবক ও কিশোরেরা মাদকের ছোবলে পড়ে তাদের নৈতিক চরিত্রের অবক্ষয় দেখা দিয়েছে। হাজারো যুবক এখন মাদকাসক্ত। গাঁজা-হিরোইন-ফেনিসিডিল ইত্যাদি নেশার সাথে জড়িয়ে আস্তে আস্তে ধ্বংসের দিকে পা বাড়াচ্ছে। নেশা এমনভাবে তাদের গ্রাস করেছে, কিছুই মানছে না। বাবা-মা তাদের সন্তানের মাদকাসক্ততায় হয়রান হয়ে যাচ্ছে। কোনভাবে তাদের নিয়ন্ত্রণে আনা যাচ্ছে না। আইন করে শাস্তির মুখোমুখি করেও তাদের ওই মাদকাসক্তি থেকে ফেরানো সম্ভব হচ্ছে না।


ওই সমস্ত যুব এবং কিশোরেরা দিনে দিনে ভয়ংকর হয়ে উঠছে। সমাজের মানুষ তাদের নিয়ে চিন্তিত। সেই সাথে তাদের অভিভাবকগণ মহাদুশ্চিন্তায় রয়েছে। সবাই চায় কীভাবে তাদের ফেরানো যায়। কীভাবে ওই সমস্ত অপরাধ থেকে ফিরিয়ে ভাল মানুষ বানানো যায়।


বর্তমান সময়ে কিশোর ও যুবকদের সঠিক পথে ফিরিয়ে আনতে প্রয়োজন ভাল পরিবেশ। ভাল পরিবেশ ছাড়া ওই সকল যুবকদের ফেরানো যাবে না। আইন-কানুনের পাশাপাশি সুস্থ পরিবেশ, ভাল মানুষের সংস্পর্শ জরুরি। ভাল মানুষের সোহবত গ্রহণ করলে এবং ভাল পরিবেশ পেলে অবশ্যই ওই সমস্ত যুবসমাজকে ফেরানো সম্ভব। তাছাড়া আমরা যতই কড়া শাসন দেই না কেন, পরিবেশ খারাপ হলে আবার তারা অনৈতিক কাজে জড়িয়ে পড়ে।


এজন্যই বলঅ হয় ‘সৎ সঙ্গে স্বর্গ বাস’। সৎ লোকের সাথে থাকলে মানুষ ভাল হয়ে যায়। পবিত্র কুরআনুল কারিমে আল্লাহ তায়ালা বলেছেন, ‘কুনু মায়াছ ছাদেকিন’ তোমরা ভাল মানুষের সংস্পর্শে থাক। সত্যি আল্লাহ তায়ালার কালামে মাহাত্ম্য রয়েছে। তিনি যেটা বলেছেন, এটার বিকল্প নেই। এই দুনিয়াতে বহু খারাপ মানুষকে আমরা দেখেছি। তারা সৎ লোকের সোহবতে গিয়ে আমূল পরিবর্তন হয়েছে। সেই পূর্বের খারাপ জিন্দেগি ত্যাগ করে সুস্থ ধারায় ফিরেছে। হাজারো মদখোর, গাঁজাখোর এ রকম অনৈতিক কাজের সাথে যারা জড়িত ছিল। আল্লাহওয়ালা এবং সৎ মানুষের সংস্পর্শে সুন্দর জীবন গড়ে তুলেছেন।


‘সোহবতে সালেহ তরা সালেহ কুনাদ’ ভাল লোকের সোহবতে মানুষ ভাল হয়ে যায়। সেই অন্ধকারাচ্ছন্ন যুগের কথা চিন্তা করুন। মানুষ কত অধঃপতনে নেমে গিয়েছিল। মানুষে মানুষে হাইওয়ান-জানোয়ারের মত আচরণ করত। কিন্তু পেয়ারা হাবীব সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের আগমন যখন ঘটল। তাঁর সংস্পর্শে মানুষ পরিবর্বতন হয়ে গেল। অন্ধকার থেকে আলোর মুখ দেখল তারা। সোনার মানুষে পরিণত হল।


এই জামানায় নবীর ওয়ারিছ ওলামা মাশায়েখদের মধ্যে বহু আল্লাহওয়ালা মানুষ রয়েছে। যাদের সোহবত এ জামানার মানুষ গ্রহণ করতে পারে। খাঁটি মানুষের সাথী হলে, যাদের মধ্যে আল্লাহর ভয় রয়েছে, এ রকম মানুষের কাছে বসলে মানুষ অবশ্যই পরিবর্তন হতে পারে।  তাই ভাই বন্ধু আসুন! আমরা ভাল মানুষে সংস্পর্শে বসার চেষ্টা করি। খারাপ লোকের সংস্পর্শ ত্যাগ করি। ভাল পরিবেশে নিজের জীবন পরিচালনা করার চেষ্টা করি। আল্লাহ তায়ালা আমাদেরকে ভাল করে দিবেন। আল্লাহওয়ালা মানুষের সোহবতে নিজের জীবন সুন্দর হবে। আল্লাহ তায়ালা আমাদের তাওফিক দান করুন। আমিন।


লেখক : মোহতামিম, নিজামিয়া মাদরাসা, গোয়ালন্দ, রাজবাড়ি


আমার বার্তা/ সি এইচ কে

আরো পড়ুন