শিরোনাম :

  • নয়াপল্টনে বিএনপির নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ জবানবন্দিতে বুলুসহ ১৫ বিএনপি নেতার নাম পেয়েছে পুলিশ সেনা অভ্যুত্থানবিরোধী বিক্ষোভে উত্তাল সুদান, সংঘর্ষে নিহত ৭দুই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষ, নিহত ২
আবু তালহা রায়হান
স্ত্রীর কাজে সহযোগিতা করা সুন্নাত
২৬ মে, ২০২২ ২১:৪৩:০২
প্রিন্টঅ-অ+

 


পুরুষ নারীতে শান্তি খুঁজে, খোঁজে সুখ। নারীহীন পুরুষ যেন ছন্দহীন কাব্য-যা বারবার পড়েও টনক নড়ে না হৃদয়ের। রূপ, রস, তাল, লয় আর ছন্দ ছাড়া যেমন কবিতা হয় না ঠিক তেমনই নারী ছাড়া পুুরুষের জীবনও রাঙে না। সুখময় জীবনে নারীসংস্পর্শতার ভূমিকা অপরিসীম। জোছনা রাতে বেলকনিতে দাঁড়িয়ে দুধমাখা চাঁদ দেখা, একপশলা বৃষ্টিতে সিক্ত হওয়া কিংবা রোজবিহানে চায়ের কাপে ঠোঁট ভেজানো-সবকিছুতেই পুরুষ নারীসংস্পর্শ চায়। নারীসঙ্গ ছাড়া সুখগুলো প্রাণ পায় না। প্রতিটা পুরুষই তার প্রেয়সীপ্রেমে নিজেকে বন্দি রেখে সুখানুভব করে। পুরুষ চায় নারী তাকে খুব যতনে আগলে রাখুক, তার বুকে মাথা রেখে সুখ-দুখের গল্প করুক। হাজারটা পথ চলুক।


পুরুষ যদি হয় সুখনদী, তবে নারী হচ্ছে সুখসাগর।


 


আর মহান আল্লাহ তায়ালাও পবিত্র কুরআনে বলেছেন, নারীতেই সুখ, প্রাপ্তির জীবনে স্ত্রী পুরুষের পূর্ণতার পোশাক। ‘শত ঝড়ঝাঁপটায়, শতবিপদে যার কোলে মাথা রেখে প্রশান্তির নিঃশ্বাস নেওয়া যায়, সে তো নারী, প্রিয়তমা স্ত্রী। একজন চরিত্রবান স্ত্রী-ই পারে একজন পুরুষের জীবনকে রাঙিয়ে তোলতে, সুখ -শান্তিতে মাতিয়ে রাখতে। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য, আমাদের সমাজের অধিকাংশ দম্পতি-ই অশান্তির জীবনযাপন করছে। একটি পরিবারে সুখ-শান্তি তখনই বিরাজ করে; যখন কোন পুরুষ তাঁর স্ত্রীর কাজকে সম্মান ও স্বীকৃতি দেয়। প্রশংসা করে। নিজ হাতে ঘরের কাজে স্ত্রীর সহযোগিতা করে। প্রচ- শীতে কিংবা গরমে রোজবিহানে সবার আগেই বিছানা ত্যাগ করে কর্মব্যস্ত স্বামীর কাজে সহযোগিতা ও সন্তান-সন্তুতির প্রস্তুতিতে লেগে যান স্ত্রীরা। আবার সারাদিনের কাজের ফলে ক্লান্ত-অবসন্ন শরীরে ঘুমাতেও যান সবার পরে। সাংসারিক এসব কাজে আমাদের সমাজের পুরুষদের সামান্যতম অংশ নেই। (যদিও তা কারো কারো ক্ষেত্রে ব্যতিক্রম)। 


 


পক্ষান্তরে বিশ্বনবি হজরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের জীবনে রয়েছে স্ত্রীকে সহযোগিতায় এক অনুকরণীয় উত্তম আদর্শ। হাদিসে এসেছে, হজরত আয়িশা রাজিয়াল্লাহু আনহাকে জিজ্ঞাসা করা হলো-রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ঘরে কী কাজ করতেন? উত্তরে হজরত আয়িশা (রা.) বলেন, ‘রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ঘরের মানুষদের সেবায় নানা কাজে অংশ নিতেন।’ (বুখারি)। আল্লামা ইবনে হাজার আসকালানি বলেন, উম্মুল মুমিনিন হজরত আয়িশা (রা.) বলেছেন, ‘রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম নিজ হাতে তাঁর কাপড় সেলাই করতেন; নিজের জুতো মুবারক মেরামত করতেন এবং সাংসারিক যাবতীয় কাজে অংশ গ্রহণ করতেন।’ (ফতহুল বারি)। স্ত্রীদের কাজে সহযোগিতাই হলো বিশ্বনবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সুন্নাত। স্বামীরা সাধারণত ঘরের বাহিরে অফিস-আদালত, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কিংবা বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের কাজে ব্যস্ত থাকেন-তাই স্ত্রীদের যাবতীয় কাজে কর্মব্যস্ত স্বামীর সামান্য ১০-২০ মিনিটের অংশগ্রহণেই সংসারে স্বর্গীয় সুখ বিরাজ করে। স্ত্রীর মন কৃতজ্ঞতাবোধে ভরে ওঠে। বদলে যায় সংসারের রূপ। 


 


অশান্তির পরিবর্তে সুখ-স্বর্গে পরিণত হয় প্রতিটা সম্পর্ক। প্রেম-ভালোবাসা, মায়া-মমতার বন্ধন সুদৃঢ় হয়। পরস্পরের প্রতি আন্তরিকতাপূর্ণ সম্পর্কের সেতুবন্ধ তৈরি হয়। এ জন্য সব স্বামীর উচিত, তাদের স্ত্রীদের কাজের মৌখিক স্বীকৃতি ও প্রশংসার পাশাপাশি সাংসারিক কাজে সামান্য সময়ের জন্য হলেও সহযোগিতা করা। তবেই সমাজের পারিবারিক জীবনে প্রশান্তি আসবে। অনিন্দ্য সুন্দর ও শান্তিপূর্ণ সংসারের বান বয়ে যাবে।


লেখক : ছড়াকার ও গণমাধ্যমকর্মী


abutalharayhan62@gmail.com

আরো পড়ুন