শিরোনাম :

  • রাজধানীতে ট্রাকের ধাক্কায় বৃদ্ধ নিহত জবানবন্দিতে বুলুসহ ১৫ বিএনপি নেতার নাম পেয়েছে পুলিশ উখিয়ায় রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সন্ত্রাসীদের গুলিতে নিহত ২দুই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষ, নিহত ২
বর্ষায় চর্মরোগ ও নিরাময়ের উপায়
০৯ আগস্ট, ২০২১ ১৩:৩৮:০৯
প্রিন্টঅ-অ+

বর্ষা ঋতু সবার কাছেই ভালো লাগে,রোমান্টিক অনুভূতি জাগায় কিন্তু বর্ষার স্যাঁতসেঁতে আবহাওয়া প্রতিটি মানুষেরই ত্বকে ও চুলে প্রভাব ফেলে। ত্বক হারায় কোমলতা, হয়ে ওঠে খসখসে। এতে চুলকানি হতে পারে। ছত্রাকজনিত রোগের প্রাদুর্ভাবও বেড়ে যায়। তাই এসময় চর্মরোগ থেকে রক্ষা পেতে সাবধাণতা অবলম্বন করতে হবে।


বৃষ্টির দিনগুলোতে অধিকাংশ সময় পা ভেজা থাকলে পায়ের পাতা কিংবা দুই পাতার মাঝখানে চুলকানি বা জ্বালা হতে পারে। এটাকে অ্যাথলেট ফুট বলে এবং এটি একটি ছত্রাকজনিত রোগ। এ সমস্যায় পা ভালোভাবে পরিষ্কার করে শুকনো রাখতে হবে। পাশপাশি অ্যান্টি ফাংগাল ওষুধ ব্যবহার করতে হবে এবং খোলা জুতা পরতে হবে।


বর্ষাকালে ঘাড়, পায়ের পাতা, বগলের নিচে গোল চাকার মতো লালচে ক্ষতস্থান সৃষ্টি হতে পারে, এটাকে দাদ বলে। ক্ষতস্থানে চুলকানি হয়। এক্ষেত্রে পরিষ্কার পোশাক পড়তে হবে। কোনোভাবেই ক্ষতস্থানে কাটাছেঁড়া করা যাবে না।


ত্বকে জ্বালা, ত্বক ফেটে যাওয়া এবং বারবার চুলকানি হওয়া এগুলো একজিমার লক্ষণ। আর টিনিয়া ক্যাপিটিস রোগে মাথার ত্বকে দাদ হয়। তবে এই ছত্রাকজনিত রোগের ফলে ক্ষত স্থান দেখা যেতে পারে ভ্রু, দাড়িতে।


লেবু ও বেকিং সোডা দিয়ে তৈরি পেস্ট চুলকানি হওয়া স্থানে লাগালে চুলকানি কমে। দুই চামচ বেকিং সোডা ও এক চামচ লেবুর রস মিশিয়ে ত্বকে লাগান। ৫-১০ মিনিট অপেক্ষা করে ধুয়ে ফেলুন। প্রতিদিন গোসলের আগে এই পেস্টটি ব্যবহার করলে চুলকানি কমে যাবে।


ত্বকের জন্য দারুণ ভালো উপকার দেয় চন্দন। উন্নত মানের চন্দনের গুঁড়ার প্রলেপ চুলকানির স্থানে লাগিয়ে রাখলে উপকার পাবেন।


নিমে আছে অ্যান্টি-ব্যাক্টেরিয়াল গুণ। ত্বকের যেকোনো চুলকানি কমাতে পারে নিম বেশ উপকারি। নিম পাতা বেটে ত্বকে প্রলেপ লাগান। উপকার পাবেন। আর ত্বকের ফোলাভাব কমায় নারকেল তেল। এতে ত্বক কোমল হয়। চুলকানিও কমে। হাতের তালুতে সামান্য নারকেল নিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নিয়ে চুলকানির স্থানে লাগালে উপকার পাওয়া যায়। রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে হাতে - পায়ে তেল অথবা লোশন লাগিয়ে ঘুমালে ত্বক ভালো থাকে, নানা রকম সমস্যা এড়াতে বর্ষাকালে ত্বকের বিশেষ যত্ন নেওয়া উচিত। 


আমার বার্তা - মৌসুমী রায় 


 

আরো পড়ুন