শিরোনাম :

  • রাজধানীর উত্তরখানে আগুনে একই পরিবারের ৮ জন দগ্ধ ভারতে আঘাত হেনেছে ঘূর্ণিঝড় তিতলিবাবরসহ ১৯ জনের মৃত্যুদণ্ড, তারেকসহ ১৯ জনের যাবজ্জীবনরায়কে ঘিরে ঢাকায় ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায় আজ
বরেণ্য কথাসাহিত্যিক শফীউদ্দীন সরদার আর নেই
নাটোর প্রতিনিধি :
১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ১৩:১২:২৮
প্রিন্টঅ-অ+


দেশবরেণ্য কথাসাহিত্যিক, সাবেক প্রথম শ্রেণির ম্যাজিস্ট্রেট ও অধ্যক্ষ শফীউদ্দীন সরদার আর নেই।

বৃহস্পতিবার সকাল ৮টায় নাটোর শহরস্থ নিজস্ব বাসভবন সরদার মঞ্জিলে তিনি ইন্তেকাল করেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

শফীউদ্দীন সরদারের বয়স হয়েছিল ৮৪ বছর। আজ বাদ মাগরিব নাটোর শহরের গাড়িখানা মসজিদ প্রাঙ্গনে নামাজে জানাজা শেষে মরহুমের লাশ গাড়িখানাস্থ কবরস্থানে দাফন করা হবে।

খ্যাতনামা শিক্ষাবিদ ও কথাসাহিত্যিক শফীউদ্দীন সরদার গত বেশ কিছু দিন ধরে কিডনি ও ফুসফুসজনিত জটিলতায় চিকিৎসাধীন ছিলেন।

শফীউদ্দীন সরদার ইখতিয়ার উদ্দীন মুহাম্মদ বিন বখতিয়ার খলজির বঙ্গবিজয় থেকে একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের বিজয় পর্যন্ত সময়কালের ওপর ঐতিহাসিক উপন্যাসসহ গল্প, কবিতা ও পাঠ্যবই মিলে ৫৪টি গ্রন্থ রচনা করেছেন। তার উল্লেখযোগ্য গ্রন্থের মধ্যে বখতিয়ারের তলোয়ার, গৌড় থেকে সোনার গাঁ, বার পাইকার দূর্গ, দাবানল, যায় বেলা ‌অবেলায়, শেষ প্রহরী, সূর্যাস্ত, চলন বিলের পদাবলী, রাজনন্দিনী প্রভৃতি পাঠক মহলে বেশ সমাদৃত হয়েছিল।

রাজশাহী ক্যাডেট কলেজ, রাজশাহী কলেজসহ বিভিন্ন সরকারি কলেজে অধ্যাপনার পর তিনি রানী ভবানি মহিলা কলেজ, বানেশ্বর ডিগ্রি কলেজসহ বিভিন্ন কলেজের অধ্যক্ষ হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। এর আগে তিনি  সরকারের প্রথম শ্রেণির ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন। ছাত্রজীবন থেকে তিনি সাহিত্যচর্চা করতেন। অবসর জীবনের পুরোটা সময় নাটোরে বসেই এই গুণী লেখক নিরলসভাবে সাহিত্য চর্চা করে গেছেন।

১৯৩৫ সালের ১ মে জন্মগ্রহণকারী সাহিত্যিক শফীউদ্দীন সরদার রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইতিহাস ও ইংরেজি সাহিত্যে ডাবল এমএ করার পর ইউনিভার্সিটি অফ লন্ডন থেকে উচ্চতর ডিগ্রি লাভ করেন। জীবনের একটি বড় অংশ সাহিত্য চর্চা করে এই গুণী লেখক দেশের সাহিত্য ভাণ্ডারে বহু অমূল্য সৃষ্টি রেখে গেছেন।



আমার বার্তা/১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৯/জহির

 


আরো পড়ুন