শিরোনাম :

  • দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী কাভার্ডভ্যান মালিকদের সঙ্গে আজ বৈঠকে বসবেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ইরানের বিক্ষোভে নিহত ১০৬ : অ্যামনেস্টি এবার তাণ্ডব চালাবে ঘূর্ণিঝড় ‘কালমেগি’ তুরস্কের প্রেসিডেন্ট ও বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর নোবেল পাওয়া উচিৎ
উন্নয়নের প্রাথমিক পর্যায়ে বৈষম্য দূর করা সম্ভব নয় : পরিকল্পনামন্ত্রী
নিজস্ব প্রতিবেদক :
২০ অক্টোবর, ২০১৯ ১৪:৩২:৪৬
প্রিন্টঅ-অ+


উন্নয়নের প্রাথমিক পর্যায়ে বৈষম্য দূর করা সম্ভব নয় বলে মন্তব্য করেছেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান। তিনি বলেন, আমরা অনেক প্রবৃদ্ধি অর্জন করেছি, আমাদের মাথাপিছু আয় বাড়ছে, জীবনযাত্রার মান বাড়ছে। কিন্তু বলা হচ্ছে, প্রচণ্ড রকমে আমরা একটা বৈষম্যমূলক অবস্থার মধ্যে আছি। এই বিষয়ে আমরা বোবাকালা নই, আমরা দেখছি। তবে আমরা যেটা মনে করি, আমাদের উন্নয়নের প্রাথমিক পর্যায়ে বোধহয় এটাকে পরিহার করা সম্ভব হবে না।

উন্নয়নের এই প্রাথমিক পর্যায়ে প্রবৃদ্ধি ও বৈষম্য-দুইটা সমান্তরাল চলবে ও বাড়বে বলে ধারণা পরিকল্পনামন্ত্রীর।

রোববার (২০ অক্টোবর) দুপুরে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে অবস্থিত বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব গভর্ন্যান্স অ্যান্ড ম্যানেজমেন্টে (বিআইজিএম) আয়োজিত পলিসি অ্যানালাইসিস বিষয়ক এক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন মন্ত্রী।

এম এ মান্নান বলেন, ‘গণতান্ত্রিক সরকার হিসেবে সবাইকে সঙ্গে নিয়ে বৈষম্য দূর করতে হবে। কারণ, কারও আছে, তার আছেটাকে কেটে সবাইকে ভাগ করে দেব, এই ধরনের অবস্থায় আমরা যেতে পারব না। আছেও বাড়বে, নাইও বাড়বে। যে শূন্যে আছে, সে যেন একটা জীবনের অবলম্বন পায়, সেটার ব্যবস্থা করতে হবে। সেই কাজটা আমাদের সরকার করছেন বলে অনেক পণ্ডিত বলছেন।’বৈষম্য বাড়ছে, এটা চিন্তার বিষয়, তবে ভয় পাওয়ার নয় বলেও মনে করেন তিনি।

পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের সরকারের প্রাথমিক যে উদ্দেশ্য ছিল, নিম্নআয়ের যারা ছিল, নিছক খাবারের যাদের অভাব ছিল, তাদের জন্য খাবারের সংস্থান করা। তাদের জন্য সামান্যতম পর্যায়ে কাজের সুযোগ সৃষ্টি করা। সেই কাজে অবশ্যই আমরা সফল হয়েছি। গত কয়েক বছরের ফল তাই আমাদের বলছে।’

তিনি বলেন, ‘এখন সরকারের কাজ হচ্ছে, যে বৈষম্য নিয়ে আলোচনা করা হচ্ছে, সেটা মোকাবিলা করার জন্য বিভিন্ন বিধি-বিধান খুঁজে বের করা। এজন্য গবেষক, উন্নয়নকর্মীদের কাছ থেকে সরকার আইডিয়া ও পথপ্রদর্শন চায়।’

বৈষম্য দূর করতে সরকারের ইতোমধ্যে নেয়া পদক্ষেপের বর্ণনা দিয়ে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, ‘গ্রামাঞ্চলে আমরা ক্রমান্বত বেশি ব্যয় করছি। আমরা অবকাঠামোতে বেশি ব্যয় করছি, বিশেষ করে এই পরিবর্তনের চাবিকাঠি শিক্ষায় ক্রমাগত বেশি বেশি ব্যয় করছি। কারণ, শিক্ষার মাধ্যমেই আমরা সকল শ্রেণির মানুষের জন্য সমান সুযোগ সৃষ্টি করতে পারব। সুযোগের এক্সেসটা সবার জন্য সমান থাকতে হবে। সেই চেষ্টা করা হচ্ছে।’



আমার বার্তা/২০ অক্টোবর ২০১৯/জহির


আরো পড়ুন