শিরোনাম :

  • চুক্তি মানছে না মিয়ানমার : প্রধানমন্ত্রী পর্যটন বিকাশে মালদ্বীপের অভিজ্ঞতা কাজে লাগাতে হবে : রাষ্ট্রপতি বীরশ্রেষ্ঠ নূর মোহাম্মদের জন্মবার্ষিকী আজ ৯ দিনের তাপপ্রবাহে অ্যান্টার্কটিকার ২০ শতাংশ বরফ গলেছে!
বড় বড় চাকরি পাওয়ার চিন্তা অত্যন্ত সংকীর্ণ চিন্তা : শিক্ষা উপমন্ত্রী
চট্টগ্রাম প্রতিনিধি :
২৫ জানুয়ারি, ২০২০ ১৭:০৪:১১
প্রিন্টঅ-অ+


শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল বলেছেন, ‘স্কুল-কলেজ শেষ করে বড় বড় চাকরি পেতে হবে। আমাদের মধ্যে এমন একটি মানসিকতা রয়েছে। এই যে চিন্তাটা, অত্যন্ত সংকীর্ণ চিন্তা। তোমাদের সব সময় সাধারণ মানুষের কথা চিন্তা করতে হবে। শিক্ষাজীবন শেষ করে সাধারণ মানুষের মতো জীবনযাপন করতে কোনো লজ্জা নেই। কোনো পেশাকে ছোট করে দেখা উচিত নয়।’

শনিবার (২৫ জানুয়ারি) সকালে চট্টগ্রাম নগরের এম এ আজিজ স্টেডিয়ামের জিমনেশিয়াম মাঠে স্কুলশিক্ষার্থীদের জন্য বাস সার্ভিস উদ্বোধন উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা করেন।

শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে মন্ত্রী বলেন, ‘আমি যদি একজন বাসের ড্রাইভার হতে পারি তাতে আমার যে বেতন, তা আজকের অর্থনীতিতে অনেক এমবিএ পাস ছাত্রও পায় না। বিশ্ববিদ্যালয়ে থাকা অবস্থায় আমি তিনটা চাকরি করেছি। আমি রেস্টুরেন্টে বার্গার বানিয়েছি, সিকিউরিটির কাজও করেছি। সেই কাজের মধ্যে কোনো লজ্জা ছিল না। কিন্তু আমাদের দেশে সন্তানদের এমন কষ্ট করতে হয় না।’

শিক্ষা উপমন্ত্রী বলেন, ‘কিছুদিন পরই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ শুরু হচ্ছে। সেই ঐতিহাসিক মুহূর্ত সামনে রেখে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মাতৃস্নেহে চট্টগ্রামের শিক্ষার্থীদের জন্য ১০টি বাস উপহার হিসেবে পাঠিয়েছেন। সেই উপহার আমি তোমাদের কাছে পৌঁছে দিয়ে গেলাম।’

তিনি বলেন, ‘এই বাস তোমাদের সম্পদ। তোমরা নিজেদের দায়িত্বে তোমাদের সম্পদ রক্ষণাবেক্ষণ করবে। আমি প্রধানমন্ত্রীকে গিয়ে বলব, উনার মাতৃস্নেহে পাঠানো উপহার, ভালোবাসার নিদর্শন তোমরা দেখভাল করে রাখছ। তোমরা অবশ্যই বাস ব্যবহারের যে নিয়মকানুন করা হয়েছে, সেগুলো পালন করবে। স্কুলের ইউনিফর্ম পরে বাসে উঠতে হবে। ৫ টাকা ভাড়া নির্ধারণ করা হয়েছে, সততার সাথে সবাই সেটা দেবে। কারণ, তোমরাও একদিন মন্ত্রী-এমপি-বিচারক-জেলা প্রশাসক হবে, সেদিন যাতে তোমরা সততার সাথে দায়িত্ব পালন করতে পার, এ শিক্ষাটা স্কুল থেকে নিতে হবে।’

শিক্ষার্থীদের এসব বাসে কোনো সুপারভাইজার কিংবা টিকিট কাউন্টার থাকবে না। শিক্ষার্থীরা স্বেচ্ছায় সততার কাউন্টারে ৫ টাকা ভাড়া দিয়ে বাসে যাতায়াত করবে।

১০টি বাস নগরের দুটি রোডে মর্নিং ও ডে শিফটে স্কুল শুরু ও ছুটির সময় চলাচল করবে। প্রতি বাসে ৭৫টি আসন রয়েছে। শিক্ষার্থীদের স্কুলড্রেস পরিহিত অবস্থায় বাসে উঠতে হবে। প্রতি বাসে চারটি সিসিটিভি ক্যামেরা থাকবে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক মো. ইলিয়াস হোসেনের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন জিপিএইচ ইস্পাত লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আলমাস শিমুল।



আমার বার্তা/২৫ জানুয়ারি ২০২০/জহির


আরো পড়ুন