শিরোনাম :

  • সাহারা খাতুনের মরদেহ ঢাকায় আনা হয়েছে আজ দেশের ১৯ অঞ্চলে ঝড়-বৃষ্টি হতে পারে আজ বিশ্ব জনসংখ্যা দিবস তুরস্কের হাজিয়া সোফিয়ায় ৮৬ বছর পর আজানের ধ্বনি
তদন্তে সাত সদস্যের কমিটি গঠন
বুড়িগঙ্গায় যাত্রীবাহী লঞ্চডুবি, ৩৬ লাশ উদ্ধার
নিজস্ব প্রতিনিধি:
২৯ জুন, ২০২০ ২০:৩৮:২৬
প্রিন্টঅ-অ+
‘মর্নিং বার্ড’ লঞ্চ ডুবির পর ফায়ার সার্ভিস ও কোস্ট গার্ডের সদস্যরা উদ্দার অভিযান চালায়


বুড়িগঙ্গায় মুন্সীগঞ্জ থেকে আসা ‘মর্নিং বার্ড’ নামের একটি যাত্রীবাহী লঞ্চডুবির ঘটনা ঘটেছে। মুন্সিগঞ্জ কাঠপট্টি থেকে প্রায় ১০০ জন যাত্রী নিয়ে লঞ্চটি ঢাকায় আসছিল। সকাল সাড়ে নয়টার দিকে ফরাশগঞ্জ ঘাট সংলগ্ন কুমিল্লা ডক এরিয়ায় ময়ূরী-২ লঞ্চ পেছনের দিকে ধাক্কা দিলে মর্নিং বার্ড লঞ্চটি ডুবে যায়।

সন্ধ্যা পর্যন্ত ৩৬টি লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। আরও অনেকে এখনও নিখোঁজ আছেন। তাদের সন্ধানে উদ্ধার তৎপরতা চালাচ্ছেন ফায়ার সার্ভিসের তিনটি ইউনিট, নৌবাহিনীর ডুবুরি দলের সদস্য ও স্থানীয়রা।

কোস্ট গার্ড সদর দফতরের মিডিয়া কর্মকর্তা লে. কমান্ডার হায়াৎ ইবনে সিদ্দিক বলেন, ফায়ার সার্ভিস ও কোস্ট গার্ডের উদ্ধার অভিযান চলায়। ৩০ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। তার মধ্যে, ১৯ জন পুরুষ, ৮ নারী ও ৩টি শিশু রয়েছে। এখনও অনেকে নিখোঁজ রয়েছেন।

ফায়ার সার্ভিসের ডিউটি অফিসার রোজিনা আক্তার বলেন, মুন্সীগঞ্জের কাঠপট্টি নিয়ে মর্নিং বার্ড নামের একটি ছোট লঞ্চ ঢাকায় আসছিল। শ্যামবাজার এলাকায় চাঁদপুর থেকে আসা ময়ূর-২ লঞ্চের সঙ্গে এর সংঘর্ষ হয়। এ সময় মনিং বার্ড লঞ্চটি ডুবে যায়।

দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহ জামান বলেন, ধারণা করা হচ্ছে প্রায় ১০০ জন যাত্রী ছিলেন ওই লঞ্চে। এরমধ্যে নিখোঁজ হয়ে যান প্রায় ৭০ জন। তা থেকে এ পর্যন্ত ৩০ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

ফায়ার সার্ভিসের উপ-সহকারী পরিচালক হাফিজুর রহমান বলেন, বুড়িগঙ্গা নদীর কেরানীগঞ্জের ফরাশগঞ্জ ঘাটে প্রায় ১০০ জন যাত্রী নিয়ে ডুবে যাওয়া লঞ্চটি ঢাকাগামী ‘মর্নিং বার্ড’। ‘ময়ূরী’নামে আরেক লঞ্চের ধাক্কায় ‘মনিং বার্ড’ ডুবে যায় মুহূর্তেই।

তদন্তে সাত সদস্যের কমিটি গঠন

বুড়িগঙ্গা নদীতে লঞ্চডুবির ঘটনায় নৌপরিবহন মন্ত্রণালয় সাত সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছে। মন্ত্রণালয় সোমবার(২৯ জুন)এ সংক্রান্ত একটি অফিস আদেশ জারি করেছে। নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব (উন্নয়ন) মো: রফিকুল ইসলাম খানকে আহবায়ক এবং বিআইডব্লিউটিএ’র পরিচালক (নৌ নিরাপত্তা) মো: রফিকুল ইসলামকে সদস্য সচিব করে এই তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন- নৌপরিবহন অধিদফতরের চীফ নটিক্যাল সার্ভেয়ার ক্যাপ্টেন জসিম উদ্দিন সরকার, বিআইডব্লিউটিসি’র প্রধান প্রকৌশলী, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের নেভাল আর্কিটেকচার এ্যান্ড মেরিন ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক পর্যায়ের একজন প্রতিনিধি, ফায়ার সার্ভিস অধিদফতরের একজন উপযুক্ত প্রতিনিধি, নৌপুলিশের একজন উপযুক্ত প্রতিনিধি ।

কমিটি সাত দিনের মধ্যে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ে প্রতিবেদন দাখিল করবে। কমিটি দুর্ঘটনার কারণ উদঘাটন, দুর্ঘটনার জন্য দায়ি ব্যক্তি/সংস্থাকে সনাক্তকরণ এবং দুর্ঘটনা প্রতিরোধে করণীয় উল্লেখ করে সুনির্দিষ্ট সুপারিশ প্রদান করবে।

প্রধানমন্ত্রীর শোক

বুড়িগঙ্গা নদীতে আজ লঞ্চডুবিতে প্রাণহানির ঘটনায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন। তিনি উদ্ধার অভিযানের বিষয়ে সার্বক্ষণিক খোঁজ-খবর নেন। শেখ হাসিনা দুর্ঘটনায় নিহতদের আত্মার শান্তি কামনা করে তাদের পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানিয়েছেন।



আমার বার্তা/ ২৯জুন,২০২০/এসএফসি





 


আরো পড়ুন