শিরোনাম :

  • রেল দুর্ঘটনায় আহতদের উদ্ধারে হেলিকপ্টার ব্যবহারের দাবি চট্টগ্রামের সঙ্গে ঢাকা-সিলেটের রেল যোগাযোগ বন্ধ আজ চার দিনের সফরে রাষ্ট্রপতি নেপাল যাচ্ছেন ইডেনের ইনডোর উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কসবায় দুই ট্রেনের সংঘর্ষের ঘটনায় প্রধানমন্ত্রীর শোক
ছাত্রলীগ সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে বিবেচিত হবে : জাফরুল্লাহ
নিজস্ব প্রতিবেদক :
১০ অক্টোবর, ২০১৯ ১৩:৪৭:৪৩
প্রিন্টঅ-অ+


বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যার ঘটনার প্রসঙ্গ তুলে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেছেন, ‘ছাত্রলীগ সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে বিবেচিত হবে।’

জাফরুল্লাহর বক্তব্য, ‘আজকে আবরারের এই যে হত্যাকাণ্ড, তারা যেভাবে পারছে…। ছাত্রলীগ সন্ত্রাসী দল হিসেবে বিবেচিত হবে। সন্ত্রাসী দল হিসেবে ছাত্রলীগ জাতির জন্য কখনোই মঙ্গলজনক না।’

বৃহস্পতিবার (১০ অক্টোবর) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে রাজধানীর জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে ভাসানী অনুসারী পরিষদ আয়োজিত ‘ভারতের সঙ্গে সম্পাদিত দেশবিরোধী চুক্তি বাতিল কর : রাষ্ট্রের ছাত্রছায়ায় গড়ে ওঠা সন্ত্রাসী বাহিনীর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াও বাংলাদেশ’ মানববন্ধনে এ মন্তব্য করেন তিনি।

আবরার হত্যার পর থেকে বুয়েটে ছাত্র রাজনীতি নিষিদ্ধের দাবি জানিয়ে আসছেন শিক্ষার্থীরা। এ বিষয়ে জাফরুল্লাহ বলেন, ‘ছাত্রদের রাজনীতি অবশ্যই থাকবে, তবে দলের লেজুড়বৃত্তি করে নয়। আমাদের আবরারের আত্মদানকে স্মরণ রাখতে হবে। আমাদের সংগ্রাম অব্যাহত থাকবে।’

বাংলাদেশের সব সমস্যার মূল উৎপাদনকারী দেশ ভারতকে উল্লেখ করে তিনি বলেন, এ দেশটিই সব সমস্যা একের পর এক তৈরি করছে।

রোহিঙ্গা সঙ্কট তৈরির মূলেও ভারত রয়েছে উল্লেখ করে জাফরুল্লাহ বলেন, ‘মনে হতে পারে, রোহিঙ্গা সমস্যা মিয়ানমার করেছে, কিন্তু না। রোহিঙ্গা সমস্যার মূল উৎপাদনকারী দেশ ভারত।’

জাতিসংঘে প্রতিটি ক্ষেত্রে ভারত বাংলাদেশের বিরোধিতা করেছে অথবা নীরব থেকেছে বলে দাবি করেন তিনি। বলেন, ‘ফেনী নদী থেকে কয়েক বছর ধরে তারা পানি চুরি করে নিয়ে যাচ্ছে।’

জাফরুল্লাহ বলেন, ‘একটা শ্রেণি অখণ্ড ভারত চায়, আমাদের রক্তের বিনিময়ে। ১৯৭১ সালে ভারত আমাদেরকে যে সাহায্য করেছে, তা আমরা চিরকাল কৃতজ্ঞতার সঙ্গে স্মরণ রাখব। সঙ্গে সঙ্গে মনে রাখার প্রয়োজন, ৯ মাসের সাহায্যের জন্য আমরা আজকে পর্যন্ত ভারতকে কত কিছু দিয়েছি, তার হিসাবটাও নেয়া দরকার। আজকে বাংলাদেশ যদি সাহায্য না করত, তাহলে ভারত দ্বিখণ্ডিত হয়ে যেত। আমরা তাদের অখণ্ডতা বজায় রাখতে সহায়তা করেছি।’

মানববন্ধনে আবরার হত্যার বিচার ও ভারতের আগ্রাসনের বিরুদ্ধে সোচ্চার হওয়ার আহ্বান জানান অন্য বক্তরা। ঘণ্টাব্যাপী এ মানববন্ধনে অর্ধশত মানুষ উপস্থিত ছিলেন।



আমার বার্তা/১০ অক্টোবর ২০১৯/জহির


আরো পড়ুন