শিরোনাম :

  • আজ পিকেএসএফ উন্নয়ন মেলার উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী টস জিতে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ যে চ্যানেলে দেখা যাবে বাংলাদেশ-ভারত টেস্ট ম্যাচ সৌদি অ্যারামকোতে প্রথমবারের মতো নারী প্রধান ইসরায়েলি হামলায় গাজায় রক্তবন্যা, ২৪ ফিলিস্তিনি নিহত
সরকার অপরাধীদের প্রোটেকশন দিচ্ছে : রিজভী
নিজস্ব প্রতিবেদক :
২৬ অক্টোবর, ২০১৯ ১৫:৪৪:৫০
প্রিন্টঅ-অ+


সরকার অপরাধীদের প্রোটেকশন দিচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

তিনি বলেন, ‘আমাদের কাছে বিস্ময়কর মনে হয়। আমার দেখেছি সরকার তার সোনার ছেলেরা অপরাধ করলে সেই অপরাধকে প্রোটেকশন দেয়। আমরা দেখেছি, নাটোরের নুর আহম্মেদ বাবুর হত্যাকারীদের বিচার হয়নি। নাটোরের গামা হত্যাকারীদের ফাঁসি হয়েছিল। তারা রাষ্ট্রীয় ক্ষমা পেয়েছেন। খবরের কাগজে বেরিয়েছে যে এই আওয়ামী লীগের আমলে দুইজন রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমান এবং আবদুল হামিদ সাহেব ৩৪/৩৫ জন হত্যাকারী ফাঁসির আসামি ক্ষমা পেয়েছেন। অর্থাৎ অপরাধীরা প্রোটেকশন পায় সরকারের কাছ থেকে।’

শনিবার দুপুরে নয়াপল্টনে মহিলা দল আয়োজিত মানববন্ধনে তিনি এ অভিযোগ করেন।

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যার প্রতিবাদে এবং বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে এ মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়।

রিজভী বলেন, ‘১০/১২ বছর এই সরকার ক্ষমতায়; তাদের নাকের ডগায় জুয়ার খনি, ক্যাসিনোর খনি, কোটি কোটি টাকার ফিক্সড ডিপোজিটের খনি বের হচ্ছে। এই জন্য শুধু কি জি কে শামীম, সম্রাটরাই দায়ী?

তিনি বলেন, ‘সরকার সোনার কাঠি, রূপার কাঠি পরিবর্তন করে তারা আজকে রাক্ষস থেকে মানবতার মূর্তপ্রতীক হলো কী করে? এইটা নিয়ে জনমনে কিন্তু বেশ বড় বড় প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। বিশ্বজিৎকে যারা হত্যা করেছে তাদেরও কিছু হয়নি। একের পর এক খুন-হত্যার সঙ্গে যারা জড়িত তারা কোনো না কোনোভাবে রেহাই পেয়ে যাচ্ছে।’

রুহুল কবির রিজভী বলেন, ‘আজ হঠাৎ করে টাকার খনি, ডলারের খনি ১০ বছরে কিছুই বের হলো না, আজ এসব বের হচ্ছে কেন? কেউ বলেন গৃহবিবাদ, কেউ বলেন অন্য কিছু বিষয় আছে। আমরা এই ব্যাপারে বলতে চাই না। শুধু বলতে চাই যে, দুর্নীতি করা নিশ্চয়ই অপরাধ। কিন্তু সবচেয়ে যে বড় দুর্নীতি জনগণকে ধোঁকা দিয়ে, প্রতারণা করে দিনের ভোট রাতে করা মহাদুর্নীতি। আর এই দুর্নীতির জন্য সম্রাট, শামীম সবার আগে এই সরকারের বিচার হওয়া উচিত ছিল।’

তিনি আরও বলেন, ‘আজ এই দেশ চালাচ্ছে মাফিয়া সিন্ডিকেট। এটা সরকার নয়, এটা মাফিয়া সিন্ডিকেট। তা নাহলে বেগম খালেদা জিয়ার জামিন হবে না কেন? এমন মামলায় অনেক জামিন হয়েছে। তারা নিজেরা বলেছে তারেক বাড়াবাড়ি করলে তার মায়ের জামিন হবে না। কারণ এই জামিনের চাবিটা শেখ হাসিনার কাছে। খালেদা জিয়া ধুঁকে ধুঁকে হাসপাতালে আছেন। তার আত্মীয়-স্বজনরা বলছেন, তিনি মুক্ত হলে সিদ্ধান্ত নেবেন তারা দেশের বাইরে নিয়ে যাবেন। দেশের বাইরে, দেশের মধ্যে যেখানে উন্নত চিকিৎসা হয় সেই চিকিৎসা তারা করাবেন। কিন্তু পরিবারের এই আকুতি সরকারের কানে ঢোকে না। মানুষের শেষ আশ্রয় আদালত সেখানে বিচার নেই। তাই আমাদের গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে হবে। তা নাহলে আরও আবরার হত্যা হবে।’

মানববন্ধনের আগে নয়াপল্টনে বিক্ষোভ মিছিল বের হয়। মিছিলটি বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে থেকে শুরু হয়ে নাইটিঙ্গেল মোড় হয়ে আবার বিএনপির কার্যালয়ের সামনে এসে শেষ হয়। এতে মহিলা দল কেন্দ্রীয় সভাপতি আফরোজা আব্বাসসহ সংগঠনটির নেতাকর্মীরা অংশ নেন।



আমার বার্তা/২৬ অক্টোবর ২০১৯/জহির


আরো পড়ুন