শিরোনাম :

  • ডি মারিয়া উড়িয়ে দিলেন রিয়ালকে তিন সপ্তাহ পরিকল্পনা, অতঃপর অভিযানের গ্রিন সিগন্যাল কোহলির ব্যাটে সহজ জয় ভারতের বিএনপি নেতা শামসুজ্জামান দুদুর বাড়িতে হামলা জাবি উপাচার্যকে পদত্যাগের জন্য আল্টেমেটাম
প্রয়াত বাবার জন্য বিহারীর প্রথম সেঞ্চুরি
স্পোর্টস ডেস্ক :
০১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ১১:৫৩:৫২
প্রিন্টঅ-অ+


প্রথম দিনটা শেষ করেছিলেন ৪২ রানে অপরাজিত থেকে, স্বীকৃত ব্যাটসম্যান হিসেবে সঙ্গে ছিলেন রিশাভ পান্ত। পরিকল্পনা ছিলো দ্বিতীয় দিনে দুজনে মিলে দলের সংগ্রহটা আরও বড় করার। কিন্তু দ্বিতীয় দিন খেলতে নেমে প্রথম বলেই সাজঘরে ফিরে যান পান্ত, ভেস্তে যায় সব পরিকল্পনা।

তবুও প্রথম দিনে ২৬৪ রানের সঙ্গে আরও ১৫২ রান যোগ করতে সক্ষম হয় ভারত। যার মূল কৃতিত্ব মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান হানুমা বিহারীর। ক্যারিয়ারের ষষ্ঠ টেস্ট খেলতে নেমে হাঁকিয়েছেন প্রথম টেস্ট সেঞ্চুরি, করেছেন ১১১ রান। এর চেয়েও বড় কথা অষ্ঠম উইকেট জুটিতে পুরোদস্তুর বোলার ইশান্ত শর্মার সঙ্গে গড়েছেন ১১২ রানের জুটি, যা ভারতকে দিয়েছে নিরাপদ সংগ্রহ।

দিন শেষে তাই ইশান্তের প্রশংসায় মাতেন বিহারী। সংবাদ সম্মেলনে নিজের সেঞ্চুরির ব্যাপারে কথা বলতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘প্রথম দিন আমি ৪২ রানে অপরাজিত ছিলাম, ভালোভাবে ঘুমাতে পারিনি। আমার চিন্তায় একটা কথাই ছিলো যে বড় ইনিংস খেলতে হবে। খুবই খুশি যে সেঞ্চুরি করতে পেরেছি এবং এর বড় কৃতিত্ব অবশ্যই ইশান্তের। তাকে আমার চেয়ে ভালো ব্যাটসম্যান মনে হচ্ছিল। প্রত্যেক বোলারের ব্যাপারে যেভাবে বিশ্লেষণ করছিল আমার সঙ্গে, তা সত্যিই ব্যাটসম্যানদের মত ছিল।’

এসময় বিহারী জানান, নিজের প্রথম টেস্ট সেঞ্চুরিটি তিনি উৎসর্গ করতে চান প্রয়াত বাবাকে। যিনি পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করেছেন বিহারী যখন ১২ বছরের ছিলেন তখনই। তাই এ সেঞ্চুরি করার সময় বারবার বাবার কথাই মনে পড়েছে তার।

বিহারী বলেন, ‘আমি সত্যিই অনেক খুশি প্রথম টেস্ট সেঞ্চুরি পেয়ে গেছি। লাঞ্চের সময় আমি ৮৪ রানে অপরাজিত ছিলাম, এরপর সেঞ্চুরিতে যেতে খানিক সময় লেগেছে। এর কৃতিত্ব অবশ্যই বোলারদের, তারা ভালো বল করেছে। আমার যখন মাত্র ১২ বছর, তখন বাবা ছেড়ে চলে গেলেন। তাই আমি ঠিক করেছিলাম যখন প্রথম সেঞ্চুরি করবো, সেটি থাকবে আমার বাবার জন্যই। আজকের দিনটা খুবই আবেগময় দিন আমার জন্য। আমি আশা করি বাবা এখন গর্ববোধ করছেন।’



আমার বার্তা/০১ সেপ্টেম্বর ২০১৯/জহির


আরো পড়ুন