শিরোনাম :

  • ঢাকায় বাড়তে পারে তাপমাত্রা করোনার ছোবলে এবার চলে গেলেন এসআই মোশাররফ সপ্তাহে তিন দিন ছুটির বিধান আসছে নিউজিল্যান্ডে পেরুতে একদিনেই আক্রান্ত প্রায় ৩ হাজার
ছেলেকে পেটানোর গল্প শোনালেন তাসকিনের বাবা
স্পোর্টস ডেস্ক :
০৪ মে, ২০২০ ১১:১০:৫২
প্রিন্টঅ-অ+


দেশের ক্রিকেটপাড়ায় ‘বাবার আদরের নেওটা’ হিসেবে বিশেষ পরিচিতি রয়েছে ডানহাতি পেসার তাসকিন আহমেদের। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নাম লেখানোর আগে দিয়েও দেখা যেত, বাবাকে সঙ্গে নিয়েই মাঠে অনুশীলন করতে আসছেন তাসকিন।

ডানহাতি এ গতিতারকা সবসময়ই নিজের ক্যারিয়ারের পেছনে কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানান বাবা ও নিজের পরিবারকে। তবে ছাত্রজীবনের এতো সহজেই বাবা ও পরিবারের বাকি সদস্যদের সমর্থন পাননি তাসকিন। উল্টো একদিন খেলার কারণে সহ্য করেছেন বেধড়ক পিটুনি।

নিজের ছেলেকে ব্যাট দিয়ে পেটানোর সেই গল্প নিজেই শুনিয়েছেন তাসকিনের বাবা আব্দুর রশিদ। রোববার রাতে করোনা দুর্গতদের সাহায্যের জন্য নিলামে তোলা হয়েছিল সৌম্য সরকারের ঝড়ো সেঞ্চুরির ব্যাট এবং তাসকিন আহমেদের হ্যাটট্রিক করা বল।

সেই নিলামে প্রায় সোয়া এক ঘণ্টার মতো সময় লাইভে ছিলেন তাসকিন ও সৌম্য। সেখানে একপর্যায়ে যোগ দেন তাসকিনের বাবাও। তিনি তখন তাসকিনের ছোটবেলার গল্প বলতে গিয়েই জানান, ব্যাট-বলের প্রতি তার ছেলের নেশাটা অনেক আগে থেকেই। আর এ কারণে সেই ব্যাট দিয়েই পিটিয়েছিলেন তাসকিনকে।

আব্দুর রশিদ বলেন, ‘ছোটবেলায় একবার তাসকিনকে নিয়ে গিয়েছিলাম আগারগাওয়ে, বানিজ্য মেলায়। অন্য বাচ্চারা মেলায় গেলে গাড়ি বা অন্যকিছু কিনতে চাইত। কিন্তু ওর চাওয়াই ছিল ব্যাট-বল। আমি কিনেও দিয়েছি। কিন্তু বাসায় আসার পর হল কি, ও এসব নিয়েই মাঠে ২৪ ঘন্টার মধ্যে ১৬ ঘন্টা কাটিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করত।’

তিনি বলতে থাকেন, ‘একদিন আমার ব্যবসায়িক কাজ সেরে বাসায় ফেরার পথে দেখি রোদের মধ্যে ও খেলছে। তো আমি আমার বাইকটা বাসার নিচে রেখেই মাঠের দিকে গেলাম প্রচন্ড রাগ নিয়ে। ও আমাকে দেখেই বুঝেছে বাবা রেগে আছে। তাকে ধরে আমি ঐ ব্যাট দিয়েই পেটাতে পেটাতে বাসায় আনি। আর ব্যাটটা তখনই ভেঙে ফেলি।’



আমার বার্তা/০৪ মে ২০২০/জহির

 


আরো পড়ুন