শিরোনাম :

  • ঢাকায় বাড়তে পারে তাপমাত্রা করোনার ছোবলে এবার চলে গেলেন এসআই মোশাররফ সপ্তাহে তিন দিন ছুটির বিধান আসছে নিউজিল্যান্ডে পেরুতে একদিনেই আক্রান্ত প্রায় ৩ হাজার
বাংলাদেশ দলে খেলেন ‘বান্টুদা-পটুদা’, চেনেন এদের?
স্পোর্টস ডেস্ক :
০৫ মে, ২০২০ ১১:১৬:১৪
প্রিন্টঅ-অ+


ধরুন, হঠাৎ একদিন ঘুম থেকে উঠে জানতে পারলেন, বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলে দশ বছর ধরে খেলে আসছেন এমন নামের দুই ক্রিকেটার, যাদের কথা আপনি কখনও শোনেননি। দেশের ক্রিকেটের পাড়ভক্ত হিসেবে তখন সে দুই ক্রিকেটারের বাস্তবিক অবস্থা নিয়ে আপনার মনে প্রশ্ন ওঠাই স্বাভাবিক।

ঠিক এমন একটা পরিস্থিতিই যেন সৃষ্টি হয় সোমবার রাতে মাশরাফি বিন মর্তুজা ও তামিম ইকবালের লাইভ সেশনে। হুট করেই ‘বান্টুদা’, ‘পটুদা’ বলতে শুরু করেন মাশরাফি। যে কারও কাছে অবাক ঠেকারই কথা এ দুই নাম। কেননা জাতীয় দলে তো এমন নামের খেলোয়াড় কখনও খেলেনি। তাহলে এরা কারা?

সেই প্রশ্নের উত্তরও দিয়েছেন মাশরাফি নিজেই। জানিয়েছেন বান্টুদা, পটুদা অন্য কেউ নন; জাতীয় দলের দুই পরিচিত মুখ মুশফিকুর রহীম এবং ইমরুল কায়েস। তামিমের সঙ্গে লাইভ আড্ডায় দুষ্টামি-ফাজলামির মাঝে মুশফিককে বান্টুদা এবং ইমরুলকে পটুদা নামে ডাকেন মাশরাফি।

এক্ষেত্রেও যথারীতি নাটের গুরু তামিম। দলের ভেতরে তার অত্যধিক দুষ্টুমির কথা তুলে ধরতে গিয়েই বান্টুদা, পটুদার প্রসঙ্গ আনেন মাশরাফি। তখন মাশরাফি জানান, দলের অন্যতম সেরা দুষ্টু হলেন তামিমই।

লাইভের একদম শেষপর্যায়ে গিয়ে তামিমকে উদ্দেশ্য করে মাশরাফি বলেন, ‘তুই যে পোংটার পোংটা! দলের সবাইকে নাড়া দেস তুই। বান্টুদা মুশফিক বান্টুদারে তুই নাড়াস, সাকিব তোর বন্ধু, অত বেশি নাড়ানাড়ি হয় না। আর যারা আছে...পটুদারে তো তোর যা মন চায়, মানে ইমরুল।’

তামিম ছোট্ট করে যোগ করেন, ‘হ্যাঁ! ইমরুলকে আমি সবচেয়ে বেশি জ্বালাইছি ভাই।’ মাশরাফি বলতে থাকেন, ‘হ্যাঁ আমিও তাই বলতেছি। তুই তাসকিন, সৌম্য, রুবেল...রুবেলের তো ইতিহাস তোর কাছে পুরা বই আকারে আছে।’



আমার বার্তা/০৫ মে ২০২০/জহির

 


আরো পড়ুন