ই-পেপার শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ১ আষাঢ় ১৪৩১

নালিশ করলেন প্রধানমন্ত্রীর কাছে দেশের শীর্ষস্থানীয় ব্যবসায়ীরা

কাস্টমসের হয়রানিতে উদ্বিগ্ন ব্যবসায়ীরা, রাজস্ব বোর্ডের নীরব ভূমিকা
মো. রাজিব উদ্-দৌলা চৌধুরী:
২৮ মে ২০২৪, ২২:৩২

কাস্টমস হাউস হতে আমদানিকৃত মালামাল খালাস করতে হলে পণ্যের এইচ এস কোড এবং পণ্য সম্পর্কে একটা ডিক্লারেশন বা ঘোষণা সংশ্লিষ্ট কাস্টমস্ কর্তৃপক্ষকে প্রদান করতে হয়। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক প্রতিষ্ঠানের এক প্রতিনিধি জানান, শতভাগ রপ্তানিমুখী তৈরি পোশাক কারখানাটি চীন হতে ৯০ হাজার কেজি কাপড় আমদানির এলসি খোলে। তিন ধাপে এই কাপড় চট্টগ্রাম বন্দর দিয়ে আসে। শেষ ধাপে আসা পুরো ২২ কেজি কাপড় আসার কথা থাকলেও এক্ষেত্রে ১ হাজার ৭০০ কেজি কাপড় বেশি আসে। এই অতিরিক্ত কাপড় সংশ্লিষ্ট কাস্টমস্ কর্মকর্তারা মিথ্যা ঘোষণা হিসেবে অভিযুক্ত করে কাপড়গুলো জব্দ করেন। পরে মিথ্যা ঘোষণার অভিযোগে ঐ পোশাক কারখানাকে ১৫ লাখ টাকা জরিমানা করে এবং সেই সঙ্গে বাড়তি আসা কাপড়ের শুল্কায়ন করা হয় ৪.৫০ লাখ টাকা। শুল্কায়নকৃত টাকা জমা দেয়ার নির্দেশও দেয়া হয়।

তাছাড়া রয়েছে বন্দরে নির্ধারিত সময়ের বেশি পণ্য রাখার মাশুল বা পোর্ট ডেমারেজ দাঁড়ায় আরো ১৫ লাখ টাকা। ততদিনে ০২ মাসের বেশি সময় অতিবাহিত হয়ে যায়। এদিকে পণ্য জাহাজীকরণ বা শীপম্যান্ট সময়ও শেষ হয়ে যায়। পরবর্তীতে ৫০% মূল্য ছাড়ে সেই পোশাক রপ্তানি করতে হয়। অথচ মাস্টার এলসি এবং ব্যাক টু ব্যাক এলসি ও কাঁচামাল আমদানি প্রাপ্যতায় অর্থাৎ ইউডিতে ০৩ শতাংশ পণ্য বা কাপড় কমবেশি গ্রহণযোগ্য বা টলারেন্সের বিধান রয়েছে। সেক্ষেত্রে ২ হাজার ৬০০ কেজি কাপড় বেশি আসলেও সমস্যা ছিল না। পণ্য বা কাঁচামাল আমদানি ও রপ্তানির ক্ষেত্রে কাস্টমস্ কর্তৃপক্ষের বিভিন্ন ধরনের হয়রানি দীর্ঘদিন থেকে ব্যবসায়ীরা নীরবে সহ্য করে আসছে। এসব বিষয় ব্যতিরেকেও ব্যবসায়ী নেতারা ব্যাংক ঋণের সুদের হার ,আমদানিকারকদের নির্ধারিত মূল্যে ডলার সরবরাহ, নিরবচ্ছিন্ন গ্যাস-বিদ্যুৎ সরবরাহ, নগদ প্রণোদনা অব্যাহত রাখার দাবি প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে গত শনিবার রাতে গণভবনে ওই বৈঠকে তুলে ধরেন। এসময় প্রধানমন্ত্রীর বিনিয়োগ বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠকে কাস্টমস কর্মকর্তাদের হয়রানির বিষয়ে কয়েকজন ব্যবসায়ী বলেন, কাস্টমস কর্মকর্তারা করের চেয়ে জরিমানা আদায়ে অতি উৎসাহী। কারণ জরিমানার একটি অংশ কর্মকর্তারা পান। তবে বেশির ভাগ ক্ষেত্রে কর্মকর্তাদের ঘুষ দিলে জরিমানার পরিমাণ হ্রাস পায়।

এক পর্যায়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আপনারা টাকা দেন কেন? উপস্থিত একজন ব্যবসায়ী বলেন, মূলত হয়রানি এড়াতেই টাকা দেয়া হয়। কারণ জরিমানা প্রক্রিয়া শেষ হতে অনেক সময় ক্ষেপন হয়। এদিকে, পণ্যটি যথাসময়ে রপ্তানি করার বিষয়টি সর্বাগ্রে স্মরণ রাখতে হয়। সময়মত রপ্তানি না করতে পারলে ক্রয়াদেশও বাতিল হয়ে যায়। তাই বাধ্য হয়ে জরিমানা এড়াতে ঘুষ দিয়ে পণ্য খালাস করা হয়। দীর্ঘদিন একই এইচ এস কোড দিয়ে আমদানি করা পণ্যের ক্ষেত্রে হঠাৎ এইচ এস কোড পরিবর্তন বা ভুল উল্লেখ করে ৩ গুণ অর্থাৎ ২৫০ শতাংশ জরিমানা আরোপ করে থাকে। তাতে করে পণ্যের উৎপাদন খরচ বেড়ে যায়। ফলশ্রুতিতে প্রতিযোগিতামূলক বাজারে টিকে থাকা কঠিন হয়ে পড়ে। এক্ষেত্রে বিদেশি ক্রেতা বাংলাদেশি পণ্য ক্রয়ে মুখ ফিরিয়ে নেন।

কাস্টমসের হয়রানির বিষয়ে বিজিএমই এর সভাপতি এস এম মান্নান আমার বার্তা প্রতিনিধিকে জানান, এইচ এস কোডের দাড়ি কমা ভুল হলে কিংবা ওজনের কোন ধরনের হেরফের হলে বিশাল অংকের জরিমানা চাপিয়ে দেন এই কাস্টমস কর্মকর্তারা। অপরদিকে, ব্যবসায় চতুর্মুখী খরচ অস্বাভাবিক হারে বেড়ে গেছে, যার ফলে ব্যবসায়ীরা টিকে থাকতে হিমশিম খাচ্ছে। অসাধু ব্যবসায়ীর সংখ্যা খুবই নগণ্য। দেশের ব্যবসা বাণিজ্যে ০১ নম্বর সমস্যা দুর্নীতি। দুর্নীতি নিরসনের জন্য সকলকে এক সাথে কাজ করতে হবে।

বিভিন্ন গবেষণা প্রতিষ্ঠানের ব্যক্তিবর্গ আমার বার্তা প্রতিনিধিকে বলেন,পণ্য বা কাঁচামাল আমদানি-রপ্তানির পুরো প্রক্রিয়াটি অটোমেশন হওয়ার কথা থাকলেও সেটি এখনো হয়নি। সেই দুর্বলতার সুযোগ নিচ্ছেন কিছু কর্মকর্তা। বাংলাদেশে বর্তমানে বহুমুখী পণ্য ও কাঁচামাল আমদানি-রপ্তানি হচ্ছে, সেক্ষেত্রে এইচ এস কোড (হারমোনাইজ সিস্টেম কোড) আরও সুনির্দিষ্ট হওয়া প্রয়োজন। এবিষয়ে কাস্টমস্ কর্তৃপক্ষের উদ্যোগ নেয়ার কথা থাকলেও তা অদ্যাবধি হয়নি।

আমার বার্তা/মো. রাজিব উদ্-দৌলা চৌধুরীএমই

শ‌নিবার ও রোববার যেসব এলাকায় ব‌্যাংক খোলা

ঈদের আগে সাপ্তাহিক ও সরকারি ছুটির মধ্যেও তৈরি পোশাক শিল্পে কর্মরত শ্রমিক, কর্মচারী ও কর্মকর্তাদের

ঈদে অস্থির মসলার বাজার, দাম বেড়েছে বহু গুণ

দুয়ারে কড়া নারছে ঈদুল আজহা। কোরবানির ঈদ মানেই ত্যাগের সঙ্গে তৃপ্তি করে খাওয়াদাওয়াও। আর সব

ঈদের ছুটিতে কাঁচা মরিচের ডাবল সেঞ্চুরি, শসার সেঞ্চুরি

মাত্র দু'দিন পরেই কুরবানির ঈদ। এরই মধ্যে রাজধানী ছাড়তে শুরু করেছে নগরবাসী। তাই বাজারে ক্রেতাদের

ফাঁকা বাজারেও চোখ রাঙাচ্ছে সব ধরনের সবজি

আর মাত্র দুদিন পরে ঈদ। গতকাল (বৃহস্পতিবার) শেষ কর্মদিবস শেষে পরিবার-পরিজন নিয়ে ঢাকা ছেড়েছেন অনেকে।
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

অশুভশক্তির বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়তে প্রস্তুত থাকতে হবে: ফখরুল

পদ্মা সেতুতে একদিনে টোল আদায়ের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রেকর্ড

গাজীপুরে বকেয়া বেতনের দাবিতে মহাসড়ক অবরোধ

কুরিয়ার সার্ভিসে পাঠানো ৭২৫০ পিস ইয়াবা জব্দ করেছে ডিএনসি

মৎস্যমন্ত্রীর বাসার লিফটে অধিদপ্তরের পরিচালককে মারধর আরেক কর্মকর্তার

ছাত্রদলের ২৬০ সদস্য বিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা

ভালুকায় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২

স্কটল্যান্ডকে উড়িয়ে ইউরো মিশন শুরু জার্মানির

মোটরসাইকেল আরোহীকে চাপা দিয়ে টেনে নিয়ে গেল বাস

সেন্টমার্টিন আক্রান্ত হলে ছেড়ে দেব না: কাদের

জায়গা না পেয়ে ট্রেনের দরজায় ঝুলে রাজধানী ছাড়ছে মানুষ

উগান্ডাকে উড়িয়ে আসরে প্রথম জয় কিউইদের

ঈদের আগেই বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটিতে বড় রদবদল

শ‌নিবার ও রোববার যেসব এলাকায় ব‌্যাংক খোলা

বড় গরুতে আগ্রহ কম ক্রেতাদের, বেপারিদের মাথায় হাত

বিএনপির মুখে ভোটাধিকারের কথা শুনলে হাসি পায়: প্রধানমন্ত্রী

ঈদ নিরাপত্তায় যেসব পরামর্শ দিলো পুলিশ

দক্ষিণ গাজায় আটকা পড়েছেন ১০ লাখের বেশি বাস্তুচ্যুত ফিলিস্তিনি

সেন্টমার্টিনে যাতায়াত বন্ধের ৮ দিন পর পৌঁছেছে খাদ্যপণ্য

কাভার্ডভ্যানের পেছনে লিচুবাহী ট্রাকের ধাক্কা, নিহত ২