শিরোনাম :

  • আফগানিস্তানে জাতিসংঘ কম্পাউন্ডে হামলা কর্মস্থলে যেতে যাত্রীদের চরম দুর্ভোগ ৫ আগস্টের পরও বাড়বে বিধিনিষেধ, আসতে পারে শিথিলতা কামরাঙ্গীরচরে নিজ বাসায় আগুনে পুড়ে ব্যবসায়ীর মৃত্যু
দুষ্প্রাপ্য খনিজে চীনা আধিপত্য কমাতে চায় যুক্তরাষ্ট্র-ইউরোপ
১৩ জুন, ২০২১ ১০:৫৭:৫২
প্রিন্টঅ-অ+


চীন যদি যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপের ইলেক্ট্রিক গাড়ি, উইন্ড টারবাইন ও ড্রোন তৈরিতে প্রয়োজনীয় একটি খনিজ প্রাপ্তির পথে বাধা হয়ে দাঁড়ায় তাহলে কী হবে?

তিন শক্তির মধ্যে চলমান উত্তেজনার মধ্যে ওয়াশিংটন ও ব্রাসেলস কোনোভাবেই এমন পরিস্থিতিতে পড়তে চায় না। এ জন্য তারা এ খাতে এখনই বিনিয়োগ করতে চায়। এমন অন্তত ১৭টি খনিজ রয়েছে, যার বড় একটা অংশ উত্তোলন ও পরিশোধিত হয় চীনে।

ফলে বলা হচ্ছে এ ধরনের খনিজের খোঁজে দিন দিন যুক্তরাষ্ট্রের ওপর চাপ বাড়ছে। ইউএস জিওলোজিক্যাল সার্ভের হিসাবে, ২০১৯ সালে এমন বিরল খনিজের ৮০ শতাংশ আমদানি করতে হয়েছিল যুক্তরাষ্ট্রকে। আর গত বছর ইউরোপীয় কমিশন জানিয়েছিল যে, বছরে তাদের এ খনিজ যতটা প্রয়োজন হয়, তার ৯৮ শতাংশ আসে চীন থেকে।  

ভবিষ্যতের পরিবেশবান্ধব জ্বালানির পথে এই দুষ্প্রাপ্য খনিজগুলোর গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। আর এক্ষেত্রে চীনের আধিপত্য পশ্চিমাদের জন্য নিশ্চিত মাথাব্যথার কারণে হতে পারে।  

গাড়ি ও টারবাইন

নিওডিমিয়াম, প্রাসিওডিমিয়াম ও ডিসপ্রোসিয়ামের মতো বিরল খনিজগুলো ভবিষ্যতের উইন্ড টারবাইন ও ইলেক্ট্রিক গাড়ি তৈরিতে ব্যবহৃত ম্যাগনেটের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এ ছাড়া স্মার্টফোন, কম্পিউটার স্ক্রিন ও টেলিস্কোপ লেন্সের মতো পণ্যতে এসব খনিজ এখনও ব্যবহৃত হয়। আবার গ্লাস পলিশিং ও অপটিক্যাল লেন্সেও এসবের ব্যবহার রয়েছে।

এ সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্রের সিনেট এ ধরনের খনিজের সরবরাহ ব্যবস্থায় উন্নতির জন্য একটি আইন পাস করেছে। ফেব্রুয়ারিতে দেশটির প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন এ সংক্রান্ত একটি নির্বাহী আদেশ জারি করেছিলেন।   

দুষ্প্রাপ্য এসব খনিজসহ লিথিয়ামের উৎপাদন আরও বাড়াতে চায় ওয়াশিংটন। এ লক্ষ্যে ভূরাজনৈতিক প্রতিযোগীদের ওপর নির্ভরতা কমাতে মিত্র দেশগুলো ও অংশীদারদের সাথে কাজ করছে যুক্তরাষ্ট্র।

উৎপাদন বাড়োনোর জন্য যুক্তরাষ্ট্রের সবচেয়ে বড় আশা হতে পারে ক্যালিফোর্নিয়ার মাউন্টেন পাস খনি। বিশ্ববাজারে একসময় এ খনির দাপট থাকলেও তাতে ভাগ বসিয়েছে চীন। এ খাতে চীনা সরকার বড় ভর্তুকি দিয়ে আসছে।  

২০১৭ সালে এমপি ম্যাটেরিয়াল এ খনি থেকে নুতন করে উৎপাদন শুরু করে। প্রতিষ্ঠানটি এটিকে যুক্তরাষ্ট্রের শিল্পের জন্য পুনর্জন্ম বলে আখ্যায়িত করতে চায়।

কোম্পানিটির লক্ষ্য হলো প্রত্যেকটি খনি থেকে পাওয়া প্রত্যেকটি দুষ্প্রাপ্য খনিজ আলাদা করে ফেলা। তারপর ২০২৫ সালের মধ্যে এই  শিল্পে ব্যবহৃত ম্যাগনেট উৎপাদন করা। বাজারে নেতৃত্ব দেওয়া চীনা ফার্ম এখন এভাবেই কাজ করছে।   

ইউরোপের জন্য জটিলতা

উৎপাদন বাড়ানোর লক্ষ্যে চলতি মাসে একটি কর্মপরিকল্পনা পেশ করা হবে ইউরোপীয় কমিশনের সামনে। তবে ব্যাটারি ও ইলেক্ট্রিক কার বিশেষজ্ঞ ডেভিড মেরিম্যান বলছেন, লক্ষ্য অর্জনে ইউরোপকে আসলে বেশ জটিল পথের ভেতর দিয়ে যেতে হবে।  তিনি বলছেন, ইউরোপ আসলে কাঁচামালের জন্য মূলত আমদানির ওপরই নির্ভর করতে চায়। তারা মূলত প্রোসেসিং বা পুনঃউৎপাদনের দিকে ঝুঁকতে চায়।

দুষ্প্রাপ্য খনিজের বাজারে চীনা আধিপত্য আরও কিছুদিন চলবে বলে মনে করা হচ্ছে। তবে ইউরোপ যদি পুনঃউৎপাদনের দিকে পুরোপুরি চলে যেতে পারে তবে ২০৩০ সালের মধ্যে সেখানে প্রয়োজনীয় দুষ্প্রাপ্য খনিজগুলোর ২০ থেকে ৩০ শতাংশ তারা নিজেরাই যোগান দিতে পারবে, যেটা এখন আক্ষরিক অর্থেই শূন্য।  

মূলত কম্পিউটিং ও অটোমোটিভ শিল্পে ব্যবহৃত সেমিকন্ডাক্টরের স্বল্পতার পরই এসবের উৎপাদন বাড়ানোর বিষয়টি নিয়ে চিন্তা শুরু হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে। এখন এর বেশিরভাগই উৎপাদন হয় এশিয়াতে।

এমপি ম্যাটেরিয়ালসের একজন মুখপাত্র বলছেন, বৈশ্বিক উৎপাদকদের তাদের কাঁচামালের যোগান নিয়ে নতুন করে ভাবতে হবে। বেশ কিছু ইউরোপীয় অটোমোটিভ ও উইন্ড পাওয়ার ফার্ম ইতোমধ্যে এ ভাবনা শুরু করেছে।

এএফপি।

আমার বার্তা/ এইচ এইচ এন



 


আরো পড়ুন