শিরোনাম :

  • দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী কাভার্ডভ্যান মালিকদের সঙ্গে আজ বৈঠকে বসবেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ইরানের বিক্ষোভে নিহত ১০৬ : অ্যামনেস্টি এবার তাণ্ডব চালাবে ঘূর্ণিঝড় ‘কালমেগি’ তুরস্কের প্রেসিডেন্ট ও বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর নোবেল পাওয়া উচিৎ
পায়রা সমুদ্রবন্দরে ১০ নম্বর মহাবিপৎসংকেত, পরিস্থিতি বুঝে আশ্রয়কেন্দ্রে যাবে উপকূলের মানুষ
পটুয়াখালী প্রতিনিধি :
০৯ নভেম্বর, ২০১৯ ১৩:২৩:৫৭
প্রিন্টঅ-অ+


প্রবল বেগে ধেয়ে আসা ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের কারণে পটুয়াখালীর পায়রা সমুদ্রবন্দরে ১০ নম্বর মহাবিপৎসংকেত জারি করেছে আবহাওয়া অফিস। ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাব থেকে উপকূলের মানুষকে নিরাপদে রাখতে আশ্রয়কেন্দ্রে নিতে কাজ করছে জেলা প্রশাসন। তবে মানুষ আশ্রয়কেন্দ্রে যেতে চাইছে না। তারা পরিস্থিতি বুঝে আশ্রয়কেন্দ্রে যাবেন বলে জানিয়েছেন।

কলাপাড়ার ধানখালী ইউনিয়নের ফুলতলি গ্রামের বশির মৃধা, নিজাম ফরাজি, আবুল ফরাজি জানান, শুক্রবার থেকে বৃষ্টি চলছে। বর্তমানে বৃষ্টি নেই। আকাশও পরিষ্কার আছে। এখন আশ্রয়কেন্দ্রে গিয়ে কি করবো? বাড়ির পাশে পানি ও বাতাসের গতিবেগ না বাড়া পর্যন্ত এলাকার মানুষ আশ্রয়কেন্দ্রে যাবে না।

বাউফলের চন্দ্রদ্বীপের চর অডেল গ্রামের বাসিন্দা রফিক মিয়া বলেন, আমরা আশ্রয়কেন্দ্রে গিয়ে দেখে এসেছি। আশ্রয়কেন্দ্র খোলা আছে। আবহাওয়া খারাপ হলে সেখানে যাব।

কলাপাড়ার চম্পাপুর এলাকার বাসিন্দা কুদ্দুস শরিফ ও সাইফুল মৃধা বলেন, নদীতে পানি সামান্য বাড়ছে। এটাতো স্বাভাবিক পানির মতো মনে হয়। বাতাসের গতিবেগ বাড়লে আশ্রয়কেন্দ্রে যাব।

জেলা প্রশাসক মো. মতিউল ইসলাম চৌধুরী জানান, আবহাওয়া অফিস থেকে মহাবিপৎসংকেত জারি করার সঙ্গে সঙ্গে উপকূলের মানুষদের নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নিতে কাজ চলছে।





আমার বার্তা/০৯ নভেম্বর ২০১৯/রহিমা



 


আরো পড়ুন