শিরোনাম :

  • নয়াপল্টনে বিএনপির নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ জবানবন্দিতে বুলুসহ ১৫ বিএনপি নেতার নাম পেয়েছে পুলিশ সেনা অভ্যুত্থানবিরোধী বিক্ষোভে উত্তাল সুদান, সংঘর্ষে নিহত ৭দুই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষ, নিহত ২
নওগাঁয় ভিক্ষুকসহ গ্রাহকের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ এনজিও (এ্যাসোপ) এর বিরুদ্ধে
রাসেল রানা, নওগাঁ প্রতিনিধি
১৭ অক্টোবর, ২০২১ ১৭:৪২:১৯
প্রিন্টঅ-অ+

নওগাঁর বদলগাছী উপজেলার পাহাড়পুর রনাহার গ্রামে প্রধান কার্যালয় দেখিয়ে মাইক্রোক্রেডিট রেগুলেটরী অথরিটি থেকে সনদপ্রাপ্ত যার সনদ নং ০১৭১৭-০০৫২৯-০০১৭৪ এনজিও (এ্যাসোপ) এর বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছেন গ্রাহকরা ।  


ক্ষুদ্র ঋণ ও সঞ্চয় আদায়কারী প্রতিষ্ঠানটি কোলা শাখার প্রায় ১শত অসহায় ও দরিদ্র গ্রাহকের সঞ্চয়ের টাকা ফেরত না দিয়ে আত্মসাৎ করার চেষ্টায় তালবাহানা করে আসছে গত ৬ বছর ধরে । এই ঘটনাটি ঘটেছে কোলা ইউনিয়নের খামার আক্কেলপুর নং ০০৫০ কোলা শাখা অফিসে। এ অফিসের আওতায় থাকা অসহায় ও দরিদ্র গ্রাহকদের সঞ্চয় টাকা আজ দিবো কাল দিবো বলে বিভিন্ন ভাবে তাল বাহানা করছেন কোলা শাখার ম্যানেজার শাহিনুর ইসলাম। 


গত ৪ অক্টোবর এই শাখার গ্রাহকদের সঞ্চয়ের টাকা ফেরত দেয়া কথা বলেন। কিন্তু গ্রাহকদের সঞ্চয়ের টাকা না দিয়ে অফিসের কাগজপত্র নিয়ে যাবার সময় ম্যানেজার শাহিনুর ইসলামসহ পাঁচজন মাঠকর্মীকে তিনটি মোটরসাইকেলসহ কোলা খামার আক্কেলপুর শাখা অফিসে তালাবদ্ধ করেন ভুক্তভোগী গ্রাহক । ঐদিন ম্যানেজারসহ পাঁচজনকে তালাবদ্ধ করে স্থানীয় ইউপি সদস্যকে বিষয়টি জানানো হয়। 


ভিক্ষুক আলেজান বিবি বলেন, দুনিয়ায আমার ব্যাটাপুত কেও নাই মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে চায়ে চিন্তে খাবার খাই। আর মাসে মাসে বিধবা ভাতার ২০হাজার টাকা সঞ্চয় থুচুনো । কিন্তু মোর আশোক হচে ঔষধ খাওয়ার জন্য ১০০টাকা চানু আরক থেকে দিলো না বাপো । এখন ঘর বন্ধ থাকে কেও আসেনা বলে জানা গেছে।


ভান্ডারপুর গ্রামের মাধবী রাণী বলেন, ছয় বছর পূর্বে মাসে ২শত টাকা করে ডিপিএস এর টাকা বাড়ি গিয়ে উঠায়ে নিয়ে আসতো এবং ৪হাজার টাকা সঞ্চয় রাখেছিলাম । তিনি আরও বলেন আমার সঞ্চয়ের টাকা ছয় বছর পরে ফেরত দিতে চেয়ে সঞ্চয়ের হিসাব বহিঃ নিয়ে আসেন এ্যাসোপের কর্মী। এর পরে তাঁকে পাশ বহিঃ বা জমাকৃত সঞ্চয় এবং ডিপিএসএর টাকা দিনের পর দিন অফিসে ঘুরেও ফেরত পাওয়া যায়নি বলে জানান।


উজ্জল পাহান ও সুবাস পাহান বলেন, ৬বছর থেকে আমাদের বিভিন্ন ভাবে টাকা ফেরত দেয়ার কথা মুখে বলে কিন্তু আমাদের টাকা ফেরর দিচ্ছেনা। তাদের অফিস বন্ধ থাকে এবং কিস্তুীর টাকা আদায়কারী মাস্টার পর্যন্ত নাই। তাঁরা বিভিন্ন তাল বাহানা দিয়ে সঞ্চয়ের পাশ বহিঃ পর্যন্ত নিয়ে গেছে। এমন অবস্থায় যাদের কাছে পাশবহিঃ নাই। সেই সব গ্রাহক টাকা পাবেনা বলে হুমকি দিয়েছে বলে জানা গেছে।  


এ্যাসোপ এনজিও কোলা শাখার মাঠ কর্মী শাহিনুর ইসলাম,আব্দুর রশিদ, জাহাঙ্গীর এবং নয়ন বলেন, আমার করোনা কালে বেতন পাইনা তাই অফিসে আসা হয় না। আর প্রধান অফিস থেকে সঞ্চয়ের বা ডিপিএস এর টাকা গ্রাহককে ফেরত না দিলে আমরা কোথা থেকে ফেরত দিবো বলে জানান মাঠ কর্মী। 


ইউপি সদস্য হারুন অর রশিদ বলেন, এনজিও (এ্যাসোপ) এর পরিচালক বা প্রধান কার্যালয়ে গিয়ে তাদের সাথে যোগাযোগ করলে তারা বিভিন্ন ভাবে সময় নিয়েছে । পরে তাদের সাথে সময় অনুসারে কথা বললে শুধু বারবার সময় নিয়েছে। তবে কোনো সুরাহা করেন না এ্যাসোপ এনজিও পরিচালক। পরে গ্রাহকগণ এ্যাসোপের মাঠ কর্মীদের খামার আক্কেলপুর অফিসে তালা বদ্ধ করে রাখেন। পরে এনজিও পরিচালক বলেন আগামী ২৪ অক্টোবর সকল গ্রাহকদের সঞ্চয়ের টাকা ফেরত দেয়া হবে।


এ্যাসোপ এনজিও এর পরিচালক তানভির হোসেন বলেন, আমাদের কোনো রের্কড নেই, গ্রাহকের টাকা অত্মসাৎ করার। প্রতিটি গ্রাহকের টাকা ফেরত দিবো কিন্তু একটু সমস্যা হয়েছে । সারা বিশ্বের মহামারী বা দেশের করোনা ভাইরাস এর কারণে সমস্যা হয়েছে। তবে আস্তে আস্তে সকলের টাকা ফেরত দেয়া হবে ।


আমার বার্তা/ সি এইচ কে

আরো পড়ুন