শিরোনাম :

  • জবানবন্দিতে বুলুসহ ১৫ বিএনপি নেতার নাম পেয়েছে পুলিশ উখিয়ায় রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সন্ত্রাসীদের গুলিতে নিহত ২দুই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষ, নিহত ২ আইসিসির সেরা হওয়ার দৌড়ে বাংলাদেশের নাসুম
খানাখন্দে ভরা মাদারীপুর পৌর এলাকার বিভিন্ন সড়ক
লিখন মুন্সী, মাদারীপুর:
২৬ জুন, ২০২২ ১৭:৩৪:০৪
প্রিন্টঅ-অ+

মাদারীপুর পৌর শহরের বিভিন্ন সড়ক খানাখন্দে ভরে গেছে। প্রতিনিয়ত তা বাড়ছে। এতে যান চলাচল ব্যাহত হওয়ার পাশাপাশি পথচারীদের দুর্ভোগ বেড়েছে। বর্ষায় এই দুর্ভোগ দ্বিগুণ হবে বলছেন স্থানীয় বাসিন্দারা। 


মাদারীপুর পৌরসভার ২ ও ৩ নম্বর ওয়ার্ডের সড়কগুলো বেহাল। এগুলোর মধ্যে চাঁদ মারির মোড় থেকে পুরান বাজার, মিলন সিনেমা হল থেকে পৌর সভার সামনে হয়ে কোর্টের মোর সড়কের বিভিন্ন স্থানে খানাখন্দ দেখা গেছে। 


স্থানীয় বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, শহীদ বাচ্চু -সংলগ্ন সড়কের ১৫ ফুটের বেশি অংশের কার্পেটিং প্রায় এক বছর আগে পুরোপুরি উঠে গেছে। সড়কের গর্তে জমে থাকে পানি। গাড়ির চাকা গর্তে পড়ার সঙ্গে সঙ্গে কাদাপানি পথচারীদের ওপর ছিটকে পড়ে। এটা প্রায় নিত্যদিনের ঘটনা। 


একই অবস্থা পুরান বাজার সংলগ্ন  এলাকায়। সড়কের ৩০ ফুটের বেশি অংশের কার্পেটিং উঠে গিয়ে গর্ত সৃষ্টি হয়েছে। এখানেও কঙ্কর ফেলে অস্থায়ী কাজ করে চলে যায় পৌর কর্তৃপক্ষ। 


পুরান বাজারের দোকানি অমিত হাসান আমার বার্তাকে বলেন, ‘এই সড়কে প্রায়ই দুর্ঘটনা ঘটে। রং সাইড গিয়ে হলেও সবাই রাস্তার ভালো অংশ দিয়ে গাড়ি চালাতে চান। এটি করতে গিয়ে প্রায়ই দুর্ঘটনা ঘটে। বিশেষ করে মোটরসাইকেলচালকেরা দুর্ঘটনার শিকার হন। এ ছাড়া গর্তে পানি জমে থাকার কারণে পথচারীদের গায়ে কাদাপানি ছিটকে পড়ে।’ 


একই চিত্র বাদামতলা এলাকা আমিরাবাদ মোড়ে। এখানে সড়কে ৪০ ফুটের বেশি অংশের কার্পেটিং উঠে গর্ত তৈরি হয়েছে। এ ছাড়া এসকেন পট্রি পানিছত্র সংলগ্ন প্রায় ৫০০ ফুট এলাকায় কার্পেটিং উঠে গিয়ে শত শত গর্ত তৈরি হয়েছে। 


মাদারীপুর অটো ড্রাইভার মিজানুর রহমান বাবু বলেন, চাঁদ মারির থেকে পুরান বাজার পৌরসভার সড়কটি যান চলাচলে অনুপযোগী হয়ে গেছে। এ সড়কে অটোরিকশা চালাতে গিয়ে নষ্ট হচ্ছে। যাত্রীরা কষ্ট পাচ্ছে। সবচেয়ে বেশি কষ্ট পাচ্ছে গর্ভবতী নারী ও মেরুদণ্ডের সমস্যায় ভোগা রোগীরা।’


মিজানুর রহমান বলেন, কোর্টের মোর থেকে মিলন হল পর্যন্ত সড়কটি যান চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। মাদারীপুর পৌরসভার ৩ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর রাজীব মাহমুদ কাওসার আমার বার্তাকে বলেন, পুরান কোট মোড় থেকে কাজীর মোড় পর্যন্ত ঈদুল আজহার আগে সংস্কার কাজ শেষ হবে। এ বিষয় পৌর মেয়রর সাথে আমাদের কাউন্সিলরদের  একটি আলোচনা হলে বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেছেন বৈড়ি আবহাওয়ার কারণে কাজ সমস্যা হচ্ছে বৃষ্টি কমলেই সড়কের সংস্কার কাজ শুরু করা হবে। 


পৌর মেয়র খালিদ হোসেন ইয়াদ আমার বার্তাকে বলেন, ‘আগামী ডিসেম্বরের মধ্যে এই রাস্তাটি যেখানে আর সিসি দরকার ড্রেনেজ ব্যবস্থা দরকার সেখানে সেটি করে আমরা রাস্তাটি বাস্তবায়ন করব।

আরো পড়ুন